গৃহবধূ খুনের ২০ বছর পর শ্বশুরবাড়ির লোককে যাবজ্জীবন সাজা দিল চুঁচুড়া আদালত

গৃহবধূ খুনের ২০ বছর পর শ্বশুরবাড়ির লোককে যাবজ্জীবন সাজা দিল চুঁচুড়া আদালত

representative Image

৯৯ সালের ১০ এপ্রিল পাণ্ডুয়ার সোনাটিকরি গ্রামে শ্বশুর বাড়ী থেকে সাকিনা বিবির ঝুলন্ত মৃত দেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

  • Share this:

    #হুগলি: পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে খুনের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছিল স্বামী শেখ মুজিবর, শ্বশুর কেতাবুল, শাশুড়ি হাসিনা বিবিকে। তিন জনের বিরুদ্ধেই চলছিল মামলা। তারপর কেটে যায় কুড়িটা বছর। শেষ পর্যন্ত মামলায় দোষী সাব্যস্ত হন তারা। আজ চুঁচুড়া আদালতের ফাস্ট ট্রাক সেকেন্ড কোর্ট এর বিচারপতি দেবপ্রিয় বসু তিন জনকেই যাবজ্জীবন সাজা এবং দশ হাজার টাকা জরিমানা ধার্য করেন। ময়নাতদন্তের রিপোর্টের ভিত্তিতে এই সাজা হয় বলে জানান সরকারী আইনজীবি চন্ডীচরন বন্দ্যোপাধ্যায়।

    ৯৯ সালের ১০ এপ্রিল পাণ্ডুয়ার সোনাটিকরি গ্রামে শ্বশুর বাড়ি থেকে সাকিনা বিবির ঝুলন্ত মৃত দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মৃতদেহের ময়না তদন্ত হয় চুঁচুড়া ইমামবাড়া জেলা হাসপাতালে। সাকিনা বিবির পরিবারের অভিযোগ পণের জন্য তাকে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছিল। সাকিনা মৃত্যুর সময় পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন । মৃতার পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে স্বামী সহ তিনজনকে গ্রেফতার করে পান্ডুয়া থানা। পরে জামিনে ছাড়া পায় তারা। কুড়ি বছর মামলা চলার পর আজ সাজা ঘোষণা হয়। সাকিনা গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছিল বলে দাবী সাজাপ্রাপ্তদের।

    First published: