Abhishek Banerjee: কর্মীরাই শক্তি! মানুষের জন্য কাজ, নতুন দায়িত্ব পেয়ে সংকল্প অভিষেকের

শুধুমাত্র পদোন্নতি বললে কম বলা হবে। তাঁর রাজনৈতিক কেরিয়ার-এর গ্রাফ এক লাফে আকাশ ছুঁয়েছে।

শুধুমাত্র পদোন্নতি বললে কম বলা হবে। তাঁর রাজনৈতিক কেরিয়ার-এর গ্রাফ এক লাফে আকাশ ছুঁয়েছে।

  • Share this:

    #কলকাতা:

    শুধুমাত্র পদোন্নতি বললে কম বলা হবে। তাঁর রাজনৈতিক কেরিয়ার-এর গ্রাফ এক লাফে আকাশ ছুঁয়েছে। যুবনেতা থেকে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক। এমন উন্নতি কি কাঙ্খিত ছিল! তৃণমূল সংসারের প্রত্যেকের দাবি, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই পদোন্নতি প্রাপ্য ছিল। ২০২১ বিধানসভা নির্বাচন শুধু নয়, তারও আগে থেকে পার্টি ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একনিষ্ঠ সৈনিক হিসাবে তিনি রাজনীতির যুদ্ধক্ষেত্রে ছিলেন। তাই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের এমন উত্থান একেবারে সময়ের নিয়ম ও দাবি মেনেই হয়েছে। পরিশ্রমের ফল মিষ্টিই হয়। সেটা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় উপলব্দি করছেন হয়তো এতক্ষণে। আর এমন একখানা প্রাপ্তি তাঁকে রাজনীতিবিদ হিসাবে আরও বেশি পরিণত করে তুলেছে। তাই নিজের সাফল্যের ভাগিদার করেছেন দলের কর্মী ও সিনিয়রদের।

    বিধানসভা নির্বাচনে জয়ের পর এই প্রথম দলের নেতা মন্ত্রী, সাংসদ, বিধায়কদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পূর্বাভাস ছিল, এই বৈঠকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্য সারপ্রাইজ অপেক্ষা করছে। হলও তাই। আবেগের জোয়ারে ভাসলেন মুকুল রায়ের ছেড়ে যাওয়া পদে সদ্য অভিষিক্ত হওয়া অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। টুইটে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় লিখলেন, নতুন দায়িত্ব পেয়ে আমি অভিভূত। আমার উপর বিশ্বাস রাখার জন্য অল ইন্ডিয়া তৃণমূল কংগ্রেসকে ধন্যবাদ। দলের প্রতিটি সৈনিক, যাঁরা এই যুদ্ধে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়েছেন, তাঁদের ধন্যবাদ। প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও তাঁদের এই লড়াই বাংলাকে জিতিয়েছে। মানুষের জন্য কাজ করতে চেষ্টার ত্রুটি রাখব না। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় আরও লেখেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আদর্শ ও বার্তা দেশের প্রতিটি কোণায় পৌঁছে দিতে সবরকম চেষ্টা করব। দলের প্রতিটি সিনিয়রকে কুর্ণিশ, যাঁরা দলের হাজার প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও দলের নীতি ও আদর্শ পালন করেছেন।

    ২০২৪ লোকসভা নির্বাচন টার্গেট। এদিন বৈঠকে সেটা বুঝিয়ে দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অভিষেক বন্দোপাধ্যায়, ফিরহাদ হাকিম, পার্থ চট্টোপাধ্যায়, সুব্রত বক্সী, শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়, সৌগত রায়, প্রশান্ত কিশোর নিয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে পার্টির একাধিক নীতিতেত রদবদল করেছেন তিনি। সেইসঙ্গে দলের প্রত্যেককে বুঝিয়ে দিয়েছেন, মানুষের পাশে থেকে দায়িত্ব পালনে যেন কোনও খামতি না থাকে! দুর্নীতি ও ফাঁকিবাজি দূরে সরিয়ে মানুষের হিতসাধনে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে প্রতিটি পার্টিকর্মীকে। নরমে-গরমে এদিন সেই বার্তাই দিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী। মানুষের পাশে থেকে কাজ করার বার্তা দিয়ে অভিষেক যেন তাঁরই বার্তার সম্প্রসারণ করলেন।

    Published by:Suman Majumder
    First published: