• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • 24 PARGANAS WATER PROBLEM INCREASING IN BARASAT DUE TO HEAVY INDUSTRY LOCATED AT THAT AREA SB

Water Problem: বাড়ির পাশেই জল কারখানা, শুকিয়ে যাচ্ছে টিউবওয়েলও! ভয় দেখাচ্ছে বারাসাত...

এই সেই কারখানা...

Water Problem: জল সমস্যার জন্য চিন্তিত বাসিন্দাদের নজরে আসে পাড়ার একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের কাজ কারবারের দিকে।

  • Share this:

#বারাসাত: আশেপাশের বাড়ি জল পাচ্ছে না। ক্ষুব্ধ নাগরিকরা দ্বারস্থ হয়েছে বারাসত পুরসভায়। এই পুরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের ডিপ টিউবওয়েল এলাকায় বাসিন্দাদের দাবী তাদের বাড়ির  হ্যান্ড পাম্পেও জল উঠছে না।কল চাপলে ক্যাঁচর-ক্যাঁচর শব্দ আর দু'চার ফোঁটা জল উঠে পড়ছে বালতিতে। নিদারুন জলের সমস্যায় তারা। এই ভরা বর্ষায় এলাকায় জলের সমস্যা। চিন্তিত বাসিন্দাদের নজরে আসে পাড়ার একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের কাজ কারবারের দিকে। সটান তারা হাজির হন বারাসাত পুরসভায়। গঙ্গা আর বিদ্যাধরী নদীর অবাহিকায় এমন তো হওয়ার কথা নয়। তার উপর শহরের বেশীর ভাগ ওয়ার্ডে গঙ্গার পরিশুদ্ধ জল পৌঁছানো শুরু হয়েছে। আতান্তরে পড়েন বারাসত পুরসভার প্রশাসক সুনীল মুখোপাধ্যায়।

নাগরিকদের কাছেই জানতে পারেন এক মহিলা এলাকায় সাব মার্সিবেল কল বসিয়ে জল তুলেছেন।আর সেই জল বোতল বন্দীও করছেন।তাঁদের অভিযোগ এলাকার একটি পরিবার সাব মার্সিবেল কল বসিয়ে জল তুলে বোতল বন্দী করেন। আর সেই সব বোতল বন্দী জল গাড়ি গাড়ি করে বিক্রি করে দেওয়া হচ্ছে অন্যত্র। এই এলাকার বাসিন্দা শান্তি মণ্ডলের  অভিযোগ এই ভাবে মাটির তলা থেকে যন্ত্র বসিয়ে প্রচুর জল তুলে নেওয়ার জন্য তাদের বাড়ির কলে আর জল পাওয়া যাচ্ছে না। তাঁর দাবী এই জলের কারখানার বিরুদ্ধে তাঁরা বারাসতের পুর প্রশাসক এর দারস্থ হয়েছেন।

বারাসত পুরসভার প্রশাসক সুনীল মুখোপাধ্যায়  নির্দেশ মত পুর কর্মীরা এসে দেখেন কোন প্রকার অনুমতি ছাড়াই জল বোতল বন্দী করার ব্যবসা চালাচ্ছেন বৃস্টি কর্মকার।আজ সেই জলে কারখানা বন্ধের নির্দেশ দেয় পুরসভা।  চঞ্চল গাঙ্গুলীর দাবী  জলের কোন ধরনের প্রক্রিয়া করন ছাড়াই বোতল বন্দী করা হচ্ছে এই কারখানায়। আর পুরো টাই বেআইনি। স্থানীয় দের দাবী জলের মত গুরুত্বপূর্ণ জিনিস কোন পরীক্ষা নিরিক্ষা ছাড়া এমন ব্যবসা চালাচ্ছে কি করে এরা।আর তার জেরে তাদের বাড়ির জলের কল গুলিও অকেজ হয়ে যাচ্ছে। অভিযুক্ত সংস্থার মালিক বৃষ্টি কর্মকারের দাবী অল্পদিনের মধ্যেই তারা কারখানা অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাবেন।পুরসভার তরফ থেকে বিষয়টি বারাসত থানাকে জানানো হয়েছে বলে জানান বারাসাত পুরসভার প্রশাসক সুনীল মুখোপাধ্যায়।

Published by:Suman Biswas
First published: