বয়স ১৬ বছর, ৫০০ টাকা পেলেই বোমা মারতে তৈরি! এক গুলিতে শেষ ভাটপাড়ার রাজা

বয়স ১৬ বছর, ৫০০ টাকা পেলেই বোমা মারতে তৈরি! এক গুলিতে শেষ ভাটপাড়ার রাজা

প্রতীকী ছবি৷

পুলিশ সূত্রে খবর, মাত্র পাঁচশো টাকার জন্যও বিভিন্ন সময় বোমা মারতে চলে যেতে রাজা নামে ওই কিশোর৷

  • Share this:

#কলকাতা: বয়স মাত্র ১৬ বছর৷ আর এর মধ্যেই এলাকার দাগী দুষ্কৃতী হয়ে উঠেছিল সে৷ বৃহস্পতিবার রাতে নিজের বাড়ির সামনে সেই কিশোরেরই গুলিবিদ্ধ দেহ উদ্ধার হওয়াকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়াল ভাটপাড়ায়৷ নিহত কিশোরের নাম রাজা চৌধুরী৷ তার পরিবারের অভিযোগ, বাইকে করে এসে রাজাকে গুলি করে খুন করেছে দুই দুষ্কৃতী৷ তবে প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিশ আত্মহত্যার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দিচ্ছে না৷

পুলিশ সূত্রে খবর, মাত্র পাঁচশো টাকার জন্যও বিভিন্ন সময় বোমা মারতে চলে যেতে রাজা নামে ওই কিশোর৷ তার নামে চারটি এফআইআর রয়েছে৷ বোমা মারার অভিযোগ সহ সমাজবিরোধী কার্যকলাপে যুক্ত থাকার অভিযোগে, বেশ কয়েকবার তাকে গ্রেফতার করে জুভেনাইল হোমেও পাঠিয়েছে পুলিশ৷ তার চরিত্র সংশোধনের জন্য ভাটপাড়া থানায় ডেকে বার বার বোঝানোও হয়েছে৷ দেওয়া হয় জামাকাপড়, পড়াশোনার বইও৷ কিন্তু পথে আসেনি রাজা৷ এমন কি, ভোটের আগে গত ২৮ মার্চ তাকে গ্রেফতারও করেছিল পুলিশ৷ পরে জামিনে ছাড়া পায় সে৷

রাজার পরিবারের অভিযোগ, বৃহস্পতিবার রাতে নিজের বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে এক বন্ধুর সঙ্গে গল্প করছিল রাজা৷ অভিযোগ, তখনই সেখানে বাইকে চেপে আসে দুই দুষ্কৃতী৷ একজন রাজার হাত মাথার পিছন দিকে চেপে ধরে৷ অন্যজন পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক রেঞ্জ থেকে রাজার মাথায় গুলি করে৷ কিন্তু সত্যিই এটি খুনের ঘটনা কি না, তা নিয়েই তৈরি হয়েছে সংশয়৷ কারণ, পুলিশের দাবি, থানার খুব কাছে হওয়ায় গুলির শব্দে ছুটে আসেন পুলিশকর্মীরা৷ কিন্তু সেখানে কাউকে পাওয়া যায়নি৷ বরং দেহের পাশে পড়েছিল আগ্নেয়াস্ত্র৷ তদন্তকারী অফিসারদের প্রশ্ন, দুষ্কৃতীরা কেন এ ভাবে খুনের প্রমাণ ফেলে যাবে? পাশাপাশি, সংকীর্ণ এলাকার মধ্যে অত দ্রুত পুলিশ এবং অন্য সবার চোখ এড়িয়ে দুই অপরাধীর বাইকে চেপে পালানো সম্ভব না বলেও দাবি পুলিশের৷ আরও দাবি করা হচ্ছে, নিহত কিশোরের হাতে তার মাথার ঘিলুর অংশ লেগেছিল৷ এ থেকে তদন্তকারীদের অনুমান, নিজেই গুলি চালিয়ে আত্মহত্যা করেছে রাজা৷ রাজার পরিবারের অবশ্য দাবি, ওই কিশোরের হাত এমন ভাবে চেপে ধরে খুনিরা, যে মাথা থেকে ঘিলু ছিটকে এসে তার হাতে লাগে৷ ঘটনাস্থলের সিসিটিভি ফুটেজও খতিয়ে দেখছে পুলিশ৷

এই খুনের ঘটনার পর পুলিশের বিরুদ্ধেও অভিযোগ করেছে নিহত কিশোরের পরিবার৷ অভিযোগ, রাতে থানায় গেলে পুলিশ এফআইআর নিতে চায়নি৷ এমন কি, পাঁচ হাজার টাকা দিয়ে পুলিশ ঘটনার মিটমাট করে নিতে রাজার পরিবারকে চাপ দেয় বলে দাবি করেছেন নিহত কিশোরের কাকা বিজয় চৌধুরী৷ ভাটপাড়া থানার তরফে অবশ্য এই সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে৷ তবে পরিবারের অভিযোগ অনুযায়ী, ৩০২ ধারায় খুন, ৩৪ ধারায় সংগঠিত অপরাধ এবং অস্ত্র আইনের ২৫ এবং ২৭ নম্বর ধারায় মামলা দায়ের করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ৷ নিহত কিশোরের ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এলে খুন নাকি আত্মহত্যা- তা স্পষ্ট হবে বলে ধারণা পুলিশকর্মীদের৷

Arpita Hazra

Published by:Debamoy Ghosh
First published: