Home /News /purba-bardhaman /
East Bardhaman news: আমের আঁটি থেকে ভাল আয়! বিক্রি করে সংসার চলছে পূর্বস্থলীর কয়েকটি পরিবারের 

East Bardhaman news: আমের আঁটি থেকে ভাল আয়! বিক্রি করে সংসার চলছে পূর্বস্থলীর কয়েকটি পরিবারের 

title=

রেল লাইন, সড়ক পথের ধারে বা অলিতে গলিতে ফেলে দেওয়া আমের আঁঠি থেকে গজানো চারা গাছ বিক্রি করে সংসার চালাচ্ছেন পূর্ব বর্ধমান জেলার পূর্বস্থলীর রেলবাজারের বেশ কিছু পরিবার।

  • Share this:

    #পূর্ব বর্ধমান: আম খাওয়ার পর আমের আঁটিও যে কাজে লাগে একটা সংসার চালাতে তা ভাবলে হয়তো অনেকেই অবাক হবেন। তবে এটাই সত্যি যে আমের আঁটি বেচেও অনেক মহিলা চালান সংসার। রেল লাইন, সড়ক পথের ধারে বা অলিতে গলিতে ফেলে দেওয়া আমের আঁটি থেকে গজানো চারা গাছ বিক্রি করে সংসার চালাচ্ছেন পূর্ব বর্ধমান জেলার পূর্বস্থলীর রেলবাজারের বেশ কিছু পরিবার।

    এই চারা গাছ বিকোচ্ছে প্রতি কেজি ৫০-৮০ টাকা দরে। আর এই আমের চারা গাছের রীতিমতো একটি পাইকারি বাজার রয়েছে পূর্বস্থলী রেলস্টেশনের চার নম্বর প্লাটফর্মের শীতলা মন্দিরের কাছে। সেখানে হাজার হাজার চারা গাছ বিক্রি করতে আসছেন এলাকার বহু পুরুষ, মহিলারা।

    আরও পড়ুন Siliguri News : প্রথম মহিলা টোটো চালক আশার আলো দেখাচ্ছেন নকশালবাড়ির আর‌ও মহিলাদের

    জানা গিয়েছে, পূর্বস্থলীর রেল বাজারের বাসিন্দা পুরুষ, মহিলা সহ ৭০০ থেকে ৮০০ জন মানুষ এই পেশার সঙ্গে যুক্ত। ভোরের আলো ফোটার আগেই তারা আমের আঁটির সন্ধানে ধাত্রীগ্রাম, জিরাট, খামারগাছি, ব্যান্ডেল, কাটোয়া, দাঁইহাট এলাকার ট্রেন লাইন ও সড়ক পথ ধরে ঘুরতে শুরু করেন। সারাদিন ঘুরে এক একজন ২০০ থেকে ৪০০ চারাগাছ সংগ্রহ করেন। দুপুরে তারা ট্রেন ধরে ফিরে আসেন পূর্বস্থলীর পাইকারি বাজারে। প্রতি একশ বান্ডিলের চারাগাছ তারা ৫০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি করেন। এভাবেই বহু মানুষ চালাচ্ছেন নিজেদের সংসার।

    আম সকলের প্রিয় ফল । বিভিন্ন জাতের পাকা আম পছন্দ করেন না এমন মানুষ বিরল । বাসে, ট্রেনে সফরের সময়ে পাকা আমে কামড় দিতে দেখা যায় যাত্রীদের । আমের শাঁস গলাদ্ধকরণের পর আঁঠিটি বাস, ট্রেনের জানালা দিয়ে ছুড়ে ফেলে দেয় যাত্রীরা। গৃহস্থরা আমের আঁটি ছুড়ে ফেলেন বাড়ির আশেপাশে। অনাদরে পড়ে থাকা ওই আঁটিগুলিই পরে বর্ষার জলে অঙ্কুরিত হয় । আর সেই চারাগাছ গুলিকেই অন্ন সংস্থানের হাতিয়ার করেছে পূর্বস্থলীর রেলবাজার এলাকার বহু পরিবার।

    Malobika Biswas
    Published by:Pooja Basu
    First published:

    Tags: East Bardhaman, Mango

    পরবর্তী খবর