অভিনব! পাহাড়ী গ্রাম লোধামায় কোয়ারেন্টাইন সেন্টার তৈরী করলেন স্থানীয়রাই

গ্রামবাসীরা জানিয়েছে, বাইরে থেকে আসা কাউকেই তাঁদের বাড়িতে যেতে দেওয়া হবে না। সরাসরি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার হবে প্রথম ঠিকানা। ১৪ দিন এখানে কাটিয়ে তারপর ঘরে ফেরা।

গ্রামবাসীরা জানিয়েছে, বাইরে থেকে আসা কাউকেই তাঁদের বাড়িতে যেতে দেওয়া হবে না। সরাসরি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার হবে প্রথম ঠিকানা। ১৪ দিন এখানে কাটিয়ে তারপর ঘরে ফেরা।

  • Share this:

Partha Sarkar

#সান্দাকফু:  দার্জিলিংয়ের সান্দাকফু'র নীচে ছোট্ট গ্রাম লোধামা। করোনা আতঙ্ক তাড়া করেছে প্রত্যন্ত এই পাহাড়ী গ্রামকেও। তবে বেশ সতর্ক স্থানীয়রা। গ্রামের অনেকেই বাইরে থাকেন। একে একে ফিরছেন নিজের বস্তিতে। আবার পাশেই রামমাম জল বিদ্যুৎ প্রকল্প। সেখানকার শ্রমিকেরাও বহিরাগত। আর তাই সতর্ক লোধামাবাসী নিজেরাই তৈরী করে ফেলেছেন কোয়ারেন্টাইন সেন্টার। একেবারে গ্রামীন সামগ্রী দিয়ে।

জেলা স্বাস্থ্য দফতর বা গোর্খাল্যাণ্ড টেরিটোরিয়াল এডমিনিস্ট্রেশনের সহযোগিতায় নয়। গ্রামবাসীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে নিজেরাই লোধামা ফুটবল মাঠে তৈরী করা করেছেন এই কোরেন্টাইন সেন্টার। বাঁশ আর ত্রিপল দিয়ে তৈরী এক একটা ঘর। প্রতিটি ঘরের মধ্যে রয়েছে ৪ ফুটের দূরত্ব। সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে রামমাম জল বিদ্যুৎ প্রকল্পের অধিকর্তারা। বাথরুম থেকে পানীয় জল সবেরই ব্যবস্থা থাকছে। সেইসঙ্গে অস্থায়ী সেপটিক ট্যাঙ্কও বানিয়ে ফেলেছেন। যাতে নোংরা জল সরাসরি গিয়ে নদীতে না পড়ে। এতে দূষণ ছড়াতে পারে। এক অভিনব ভাবনায় তৈরী কোয়ারেন্টাইন সেন্টার। বাইরে থেকে যাঁরা আসবেন প্রত্যেককেই প্রয়োজনীয় সামগ্রী আগে হাতে তুলে দেওয়া হবে। পাশাপাশি খাবারও সরবরাহ করা হবে। বাড়ির রান্না করা খাবার তুলে দেওয়া হবে। গ্রামবাসীরাই থাকবেন স্বেচ্ছাসেবকের ভূমিকায়।

আলাদা আলাদা প্যাকেটে খাবার দেওয়া হবে। তারপর মাঠের মাঝখানে "মিল শেড" তৈরী থাকবে। প্রতিটি প্যাকেটেই কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যক্তিদের নামের উল্লেখ থাকবে। "মিল শেড" থেকে যে যাঁর খাবার সংগ্রহ করবেন। এতে একের সঙ্গে অন্যের সরাসরি ধরা বা ছোঁয়ার কোনও সম্পর্কই থাকবে না। একেবারে ভিন্ন চিন্তা ধারায় পাহাড়ী গ্রামে তৈরী কোয়ারেন্টাইন সেন্টার। গ্রামবাসীরা জানিয়েছে, বাইরে থেকে আসা কাউকেই তাঁদের বাড়িতে যেতে দেওয়া হবে না। সরাসরি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার হবে প্রথম ঠিকানা। ১৪ দিন এখানে কাটিয়ে তারপর ঘরে ফেরা। এমনকী রামমাম জল বিদ্যুৎ প্রকল্পের ভিন রাজ্যের শ্রমিকদের ক্ষেত্রেও একই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Published by:Simli Raha
First published: