তৃণমূলে যোগ মালদহের মিম নেতার, মুখ্যমন্ত্রীর সফরের আগে মাটি মজবুত করতে তৎপর তৃণমূল

তৃণমূলে যোগ মালদহের মিম নেতার, মুখ্যমন্ত্রীর সফরের আগে মাটি মজবুত করতে তৎপর তৃণমূল
রাজ্যে বিজেপির উত্থান ঠেকাতে সংখ্যালঘু ভোট বিভাজিত না করার আর্জি জানান তৃণমূলে যোগ দেওয়া নেতা।

রাজ্যে বিজেপির উত্থান ঠেকাতে সংখ্যালঘু ভোট বিভাজিত না করার আর্জি জানান তৃণমূলে যোগ দেওয়া নেতা।

  • Share this:

#মালদহ: মুখ্যমন্ত্রীর সফরের আগে মালদহে মিম ছেড়ে তৃণমূলে। মঙ্গলবার মালদহ টাউন হলে যোগদান কর্মসূচিতে তৃণমূলে যোগ দিলেন মালদহের মিম নেতা সাবির আহমেদ। তাঁর বেশকিছু অনুগামীও এদিন তৃণমূলে যোগ দেওয়ার কথা জানান। দলত্যাগী মিম নেতার হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন তৃণমূলের মালদহ জেলা সভাপতি মৌসম বেনজির নূর, জেলা চেয়ারম্যান কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী সহ অন্যান্য জেলা নেতৃত্ব। দলে যোগ দেওয়ার পরেই সাবির আহমেদকে মালদা জেলা তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক পদে নিযুক্তির কথা জানান মৌসম। তিনি বলেন, এদিন মিমের জেলা নেতারা যোগদান করেছেন। পরবর্তীতে বিভিন্ন ব্লক পর্যায়ে আরও যোগদান হবে। এই যোগদানের ফলে বিধানসভা ভোটের আগে মালদহের তৃণমূল আরও শক্তিশালী হল বলে দাবি নেতৃত্বের।

আসাদউদ্দিন ওয়াইসির ধর্মীয় ভেদাভেদের রাজনীতির জন্যই মিম ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন বলে দাবি করেন দলত্যাগী নেতা সাবির আহমেদ। রাজ্যে বিজেপির উত্থান ঠেকাতে সংখ্যালঘু ভোট বিভাজিত না করার আর্জি জানান তৃণমূলে যোগ দেওয়া নেতা। বিধানসভা ভোটে এবার মালদহে ফোকাস মিমের। ইতিমধ্যেই জেলায় বড় সমাবেশ করেছে মিম নেতৃত্ব। জেলায় একাধিক আসনে প্রার্থী দেওয়ার কথাও জানিয়েছে মিম। ফলে অবিজেপি দলগুলির কাছে এবার মালদহের মত জেলায় মিমকে নিয়ে চিন্তা বাড়ছিল। এদিন মিম নেতার দলে যোগদানকে তাই বাড়তি গুরুত্ব দিচ্ছে ঘাসফুল শিবির। সাবির আহমেদের অনুগামী নেতাদেরও তৃণমূলের ব্লক কমিটিতে জায়গা দেওয়ার কথা জানিয়েছে জেলা নেতৃত্ব।

আরও পড়ুন'মমতাদি বাংলার মা', নেত্রীর সামনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে আবেগপ্রবণ মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ


যদিও নেতার দল পরিবর্তনকে বাড়তি গুরুত্ব দিতে নারাজ মিমের মালদহ জেলা আহ্বায়ক মতিউর রহমান। তিনি পাল্টা বলেন, সাবির আগে মিমের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। কিন্তু তাঁর সম্পর্কে নানান অভিযোগ আসছিল। তাই , সম্প্রতি সংগঠনের সঙ্গে তাঁর দূরত্ব বাড়ে। ওদের সঙ্গে লোক নেই ।তাই সাবিরের দলত্যাগের ফলে সংগঠনে কোনও প্রভাব পড়বে না বলেও পাল্টা দাবি করেছেন মতিউর রহমান।

Published by:Pooja Basu
First published: