মুখ্যমন্ত্রীর সভাকে ঘিরে জোর প্রস্তুতি রায়গঞ্জ ষ্টেডিয়ামে

মুখ্যমন্ত্রীর সভাকে ঘিরে জোর প্রস্তুতি রায়গঞ্জ ষ্টেডিয়ামে
মাঝে আর একদিন। আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রায়গঞ্জ ষ্টেডিয়াম ময়দানে কর্মীসভা করতে আসছেন

মাঝে আর একদিন। আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রায়গঞ্জ ষ্টেডিয়াম ময়দানে কর্মীসভা করতে আসছেন

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: মাঝে আর একদিন।  আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভানেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রায়গঞ্জ ষ্টেডিয়াম ময়দানে কর্মীসভা করতে আসছেন। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে বিধানসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণা করতে চলেছে নির্বাচন কমিশন।  উত্তর দিনাজপুর জেলার ৯টি বিধানসভা কেন্দ্রের মধ্যে ৬টি তৃণমূল কংগ্রেসের দখলে আছে, ১টি কংগ্রেস এবং ১টি ফরওয়ার্ড ব্লকের দখলে।হেমতাবাদ বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্র নাথ রায়ের অস্বাভাবিক মৃত্যুতে এই আসনটি ফাঁকা আছে।

মুখ্যমন্ত্রী জেলা সফলে জেলা নেতা কর্মীদের কী বার্তা দেন, সেদিকেই তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল। রায়গঞ্জ ষ্টেডিয়ামে আপাতত চলছে শেষ পর্যায়ের প্রস্তুতি। তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল শেষ পর্যায়ের কাজ তদারকি করছেন।সভাপতির আশা, আজকের মধ্যে সভাস্থলের কাজ সম্পন্ন হয়ে যাবে। সভায় রেকর্ড সংখ্যক কর্মী সমর্থক উপস্থিত থাকবেন বলে আশা করছে তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব। গত লোকসভা নির্বাচনে রাজবংশী সম্প্রদায়ের মানুষ  বিজেপিকে সমর্থন করেছিল। লোকসভা নির্বাচনের কিছু পড়েই বিধানসভা উপনির্বাচনে কালিয়াগঞ্জ থেকে রাজবংশী সম্প্রদায়ের মানুষ মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী প্রতি আস্থা রেখে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী তপন দেব সিংহকে জয়ী করেছিলেন।

অন্যদিকে উত্তর দিনাজপুর জেলার একটা বড় অংশে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের বাস।  এই জেলায় কংগ্রেস রাজনীতিতে দুর্বল হয়ে যাওয়ার পর সেই জায়গা দখল করে তৃণমূল কংগ্রেস। জেলার চোপড়া, গোয়ালপোখর,ইসলামপুর, ইটাহার এবং করণদিঘিতে সংখ্যালঘু ভোটার-রা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি আস্থা রেখে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থীদের জয়ী করেছিলেন। তৃণমূল কংগ্রেসের উত্তর দিনাজপুর জেলা তৃনমূল কংগ্রেস সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল জানিয়েছেন, উত্তর দিনাজপুর জেলায় একাধিক উন্নয়নমূলক কাজ ইতিমধ্যেই করেছেন। জেলার আরও উন্নয়ন করতে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানাবেন।


Published by:Rukmini Mazumder
First published: