করোনা সর্তকতা, পুলিশ নামিয়ে সাপ্তাহিক হাট বন্ধ চাঁচলে

প্রতি বুধবার এই হাটে জমায়েত হন সব মিলিয়ে কয়েক হাজার ক্রেতা বিক্রেতা। হাটের নিয়ন্ত্রণ কৃষি বিপনন দপ্তরের অধীন নিয়ন্ত্রিত বাজার কমিটির হাতে।

প্রতি বুধবার এই হাটে জমায়েত হন সব মিলিয়ে কয়েক হাজার ক্রেতা বিক্রেতা। হাটের নিয়ন্ত্রণ কৃষি বিপনন দপ্তরের অধীন নিয়ন্ত্রিত বাজার কমিটির হাতে।

  • Share this:

#মালদহ:-করোনার সর্তকতায় পুলিশ নামিয়ে বন্ধ করতে হল মালদহের চাঁচল হাট। বুধবার সকালে জেলা প্রশাসনের নির্দেশে পুলিশ গিয়ে বন্ধ করে দেয় এই সাপ্তাহিক হাট। প্রতি বুধবার মালদহের চাঁচলের খেলানপুরে এই হাট বসে। উত্তর মালদহের বিভিন্ন ব্লক থেকে চাষীরা  এবং নানা ধরনের ব্যবসায়ীরা মালপত্র বিক্রির জন্য আসেন এই হাটে।

প্রতি বুধবার এই হাটে জমায়েত হন সব মিলিয়ে কয়েক হাজার ক্রেতা বিক্রেতা। হাটের নিয়ন্ত্রণ কৃষি বিপনন দপ্তরের অধীন নিয়ন্ত্রিত বাজার কমিটির হাতে। এদিন সকালে অন্যান্য দিনের মতোই লক্ষ লক্ষ টাকার মালপত্র নিয়ে হাজির হন প্রচুর ব্যবসায়ী। কিন্তু আচমকাই হাজির হয়ে যায় চাঁচল থানার পুলিশ। জানিয়ে দেওয়া হয় জমায়েত এড়াতে আপাতত অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ থাকবে হাট। আচমকা বন্ধের ফলে ব্যবসায়ীদের অনেকেই সমস্যার মধ্যে পড়েন। মালপত্র নিয়ে অনেককে ফিরে যেত হয়। নিয়ন্ত্রিত বাজার কমিটির পক্ষে বাজারের ভারপ্রাপ্ত আধিকারিক মহম্মদ আব্দুল বারিক জানান, জমায়েত এড়াতে প্রশাসন হাট বন্ধের নির্দেশ দেয়। আচমকাই নির্দেশ আসায় আগে থেকে প্রচার করা যায়নি। এদিন হাটে আসা ব্যবসায়ীদের সমস্যার কথা বুঝিয়ে বলা হয়। বেশীর ভাগ ব্যবসায়ী সমস্যা বুঝে দোকান না করে ফেরেন। কিছু ব্যবসায়ী আর্থিক লোকসানের কথা বলায় পরে পুলিশী সহযোগিতায় তাঁদেরকে ফেরত পাঠানো হয়। আপাতত পরবর্তি নির্দেশ না আসা পর্যন্ত হাট বন্ধ থাকবে বলেও জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এদিকে এই হাট থেকে চাঁচল এবং আশপাশের বেশ কিছু  এলাকায় সবজি থেকে বিভিন্ন পন্য সরবরাহ হয়। আচমকা হাট বন্ধের ফলে জোগানে সমস্যার সম্ভবনা রয়েছে।

Sebak Deb Sharma

Published by:Elina Datta
First published: