BJP সমর্থকদের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে TMC কর্মীদের বিক্ষোভের মুখে পড়লেন বিজেপি প্রতিনিধি দল

  • Share this:

#চোপড়া:  দার্জিলিং-এর সাংসদ রাজু বিস্তা এবং শিলিগুড়ির বিজেপি বিধায়ক শঙ্কর ঘোষকে বিক্ষোভের মুখে পড়তে হল। তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থকরা বিজেপি নেতাদের কালো পতাকা দেখায়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে চোপড়া থানা চত্বরে ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। কেন্দ্রীয় বাহিনী এবং পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বিজেপি নেতারা এদিন চোপড়ার ঘটনায় পুলিশের সঙ্গে মিলিত হন।

ভোট পরবর্তী হিংসার ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে দাঁড়াতে মঙ্গলবার দার্জিলিং জেলার বিজেপি সাংসদ রাজু বিস্তা এবং শিলিগুড়ির বিধায়ক শঙ্কর ঘোষ চোপড়ায় আসেন। চোপড়া থানার সামনে এদিন তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থকরা জড়ো হয়েছিলেন। বিজেপি নেতারা সেখানে পৌঁছতে তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থকরা বিক্ষোভ শুরু করেন। বিজেপি নেতাদের গো ব্যাক শ্লোগান এবং কালো পতাকা দেখানো হয়।এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়ন করা হয়।

সাংসদ রাজু বিস্তা জানান, ভোট পরবর্তী হিংসায় ৪২ টি ঘটনা ঘটেছে। বহু বাড়ি ঘর ভেঙে দেওয়া হয়েছে। বহু মানুষকে মারধোর করা হয়েছে, বহু মানুষ ঘরছাড়া, বাড়ি থেকে জিনিসপত্র লুঠপাটের ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ এখন পর্যন্ত পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে। পুলিশকে লিখিতভাবে সবিস্তরে অভিযোগ জানানো হয়েছে। পুলিশকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, রাজ্যের  মন্ত্রীরা শপথ গ্রহণ করলেন।  মন্ত্রীদের উদ্দেশ্যে তাঁর আবেদন রাজনৈতিক রঙ না দেখে সাধারণ মানুষ যাতে শান্তিতে থাকতে পারেন সেব্যাপারে সরকারকে নিশ্চিয়তা করতে হবে।

তাঁকে কালো দেখানো প্রসঙ্গে সাংসদের অভিযোদ তৃণমূল কংগ্রেস হতাশার থেকে এই কাজ করছেন। শিলিগুড়ির বিধায়ক শঙ্কর ঘোষ জানান, চোপড়ায় বিজেপি কর্মীদের উপর লাগাতর হামলার ঘটনা ঘটছে।অবিলম্বে এই হামলা থামানোর জন্য চোপড়া থানা পুলিশের কাছে দাবি জানানো হয়েছে। যদি হামলার ঘটনা জারি থাকে তার মাশুল সরকারকে গুনতে হবে বলে শঙ্করবাবু হুশিয়ারি দিয়েছেন। তৃণমূল কংগ্রেস নেতা ফতিবুল রহমানের অভিযোগ, লোকসভা নির্বাচনের পর  থেকে সাংসদকে চোপড়া  এলাকায় দেখা যায়নি।

Published by:Pooja Basu
First published: