শীতালকুচি গুলিকান্ড নিন্দনীয়, পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট চাইছি, দাবি অধীর চৌধুরীর

শীতালকুচি গুলিকান্ড নিন্দনীয়, পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট চাইছি, দাবি অধীর চৌধুরীর

কেন গুলি কেন মৃত্যু তার পুর্নাঙ্গ তদন্ত হওয়া উচিত, দাবি অধীরের

কেন গুলি কেন মৃত্যু তার পুর্নাঙ্গ তদন্ত হওয়া উচিত, দাবি অধীরের

  • Share this:

#বহরমপুর: শনিবার বহরমপুরে জেলা কংগ্রেস কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠকে অধীর চৌধুরী বলেন, "বাংলায় এবারে নির্বাচনে দুটো দানব শক্তি নিজেদের মধ্যে যে সংঘাত রাজনীতি করছে তারই পরিণাম সারা বাংলা জুড়ে নির্বাচন৷ প্রতিদিন খুন, মারামারি, আগুন, হিংসা চলছে, আর দোষারোপ গালিগালাজ নিয়ে প্রতিযোগিতা চলছে। বাংলার বেকার যুবক যুবতীদের রোজগার ব্যবস্থা নিয়ে কোন আলোচনা নেই। আট দফা নির্বাচন হওয়া সত্ত্বেও এই বাংলাতে নির্বাচন শান্তিতে হচ্ছে না, সারা ভারতবর্ষের কাছে বাংলার ভাবমুর্তি কলুশিত হচ্ছে। কেন গুলি কেন মৃত্যু তার পুর্নাঙ্গ তদন্ত হওয়া উচিত," দাবি অধীরের। তিনি বলছেন যে, নির্বাচন কমিশন কেন্দ্রীয় বাহিনী পাঠানো মানে এটা নয় যে গুলি চালাতে হবে, রাজ্য পুলিশ যেন সরকারী দলের কথাতে প্রভাবিত না হয় সেটাও দেখা দরকার।

অধীর চৌধূরীর মতে, পশ্চিমবঙ্গে এক অদ্ভূত রাজনীতি চলছে এবং রাজ্য পুলিশ ও কেন্দ্রীয় পুলিশের মধ্যে সংঘাত লাগানোর জন্য মুখ্যমন্ত্রী নিজে প্ররোচনা উস্কানি দিচ্ছেন৷ এই প্রবণতা  বড় ভয়ঙ্কর, বলছেন প্রবীণ কংগ্রেস নেতা। বিজেপি দলের নেতারা বলছেন এ জেলে যাবে, সে মরবে এ এক অদ্ভুত ব্যাপার। এই যে সংঘাতের রাজনীতি, খুন-খুনির রাজনীতি এই রাজনীতি নির্বাচন মুখে বাংলার সাধারণ মানুষকে আতঙ্কিত করছে, দাবি তাঁর। গুলি চলবে, মানুষের মৃত্যু হবে এটা কখনও শান্তিপূর্ণ ভোট নয়৷ নির্বাচনের চতুর্থ দফা হয়েছে, বাকি দফাগলিতেও আরও কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে, দাবি করেছেন অধীর।

"রাজ্য সরকার ও কেন্দ্রীয় সরকার উভয় সরকারের যে প্রশাসন তাদের হাতে নির্বাচনের দায় দায়িত্ব ছেড়ে দেওয়া হোক। নির্বাচনের বাংলায় আগামী দিনে আরও রক্তাক্ত হওয়ার প্রবল আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে। কংগ্রেস দলের পক্ষ থেকে এই ধরনের ঘটনার নিন্দা করছি। এই ধরনের ঘটনায় ভোট প্রক্রিয়া ব্যাহত হবে বলে মনে করি। কার দোষ কার গুন পরের বিষয়, কিন্তু বাংলার নির্বাচনে রক্তাক্ত হওয়া গনতন্ত্রের পক্ষে ক্ষতিকারক বলে আমরা মনে করি," বলে মন্তব্য করেন অধীর চৌধুরী।

Published by:Pooja Basu
First published:

লেটেস্ট খবর