Home /News /national /
Tripura Politics: ত্রিপুরায় ভোট প্রচারে তৃণমূলের নয়া অস্ত্র ‘ত্রিপুরা ফাইলস’

Tripura Politics: ত্রিপুরায় ভোট প্রচারে তৃণমূলের নয়া অস্ত্র ‘ত্রিপুরা ফাইলস’

ত্রিপুরায় ভোট প্রচারে তৃণমূলের নয়া অস্ত্র ‘ত্রিপুরা ফাইলস’

ত্রিপুরায় ভোট প্রচারে তৃণমূলের নয়া অস্ত্র ‘ত্রিপুরা ফাইলস’

পরিকাঠামো থেকে চাকরি, আইন শৃঙ্খলা থেকে বেহাল স্বাস্থ্য তুলে ধরা হচ্ছে এই ডিজিটাল প্রচারে ৷

  • Share this:

আবীর ঘোষাল, কলকাতা: ত্রিপুরা বিধানসভা উপনির্বাচনে ডিজিটাল প্রচারেও জোর দিচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেস। আর সেই কারণেই ডিজিটাল মাধ্যমে এবার ‘ত্রিপুরা ফাইলস’ (Tripura Files) রিলিজ করল তৃণমূল কংগ্রেস (Tripura Politics)।

দায়িত্বপ্রাপ্ত দলের নেতা রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ‘‘স্বাধীনতা আন্দোলনের পর থেকে ত্রিপুরার জনগণের দুর্ভোগকে তুলে ধরতে আমরা ত্রিপুরা ফাইলস নামে একটি ডিজিটাল প্রচারও শুরু করছি। ইতিমধ্যেই প্রথম পর্ব শুরু হচ্ছে। প্রতিদিন, আমরা এগিয়ে আসব এবং স্থানীয়দের মুখোমুখি সমস্যাগুলি উত্থাপন করব। এটি নির্বাচনী প্রচার নয়, রাজ্যের বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের উদ্যোগ।’’

আরও পড়ুন-মাত্র ১৫০ টাকায় ভাগ্য বদল ! লটারিতে কোটি টাকা জিতে পুলিশের দ্বারস্থ রামপুরহাটের যুবক

তিনি আবারও মনে করিয়ে দিয়েছেন,  শুধুমাত্র অন্য দলগুলিকে দুর্বল করতে চায় ৷ কিন্তু তৃণমূলই একমাত্র দল যারা বিজেপিকে পরাজিত করতে সক্ষম এবং আমরা তা দেখেছি ২০২১ সালের বাংলা নির্বাচনে। কংগ্রেস এবং বামফ্রন্ট ২০২১ সালে বাংলায় বিজেপিকে শক্তিশালী করেছে। রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথায়, কংগ্রেস ক্রমাগত মাটি হারিয়েছে। পঞ্জাবে তৃণমূল কংগ্রেস ছিল না। সেখানে একটি আঞ্চলিক দলের কাছে দল হেরে গেল কেন? উত্তরপ্রদেশ ও অন্যান্য রাজ্যে কংগ্রেস দুর্বল কেন? মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমাণ করেছেন যে তিনি ৩৪ বছরের সিপিআই(এম)-এর অপশাসনের বিরুদ্ধে লড়তে পারেন এবং বিজেপিকেও আটকাতে পারেন।

আরও পড়ুন-নিউটাউনে 'দুয়ারে চা', সাইকেলে রাতপাখিদের তৃষ্ণা মেটাচ্ছেন জাহাঙ্গির

অন্যদিকে, সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের জাতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় প্রার্থীদের প্রচারে আসবেন ৷ উপনির্বাচনের সময় প্রচার চালাবেন, এমনকি তারকা প্রচারকদের তালিকাও প্রকাশ করবে দল। টাউন বড়দোয়ালীতে প্রার্থীর নাম পরিবর্তন করা হয়েছিল কারণ আমরা আমাদের সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের চেয়ারপার্সন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ অনুসারে কমপক্ষে দু’জন মহিলা প্রার্থী দিতে চেয়েছিলাম। এটি কোনও বড় বিষয় নয়। অতীতে আরও অনেক রাজনৈতিক দল এরকম সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অন্যান্য দলগুলি প্রায়শই বাংলার মডেল থেকে অনুকরণ করার চেষ্টা করেছে। উদাহরণস্বরূপ, আমরা কন্যাশ্রী প্রকল্প নিয়ে এসেছি এবং এর পরেই বিজেপি সরকার অসফল প্রকল্প নিয়ে এসেছিল — “বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও”।

রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, ‘‘গত নির্বাচনের সময় আমাদের ওপর সবচেয়ে বেশি হামলা হয়েছে এবং আমাদের নেতাদের বাড়িঘর ধ্বংস করা হয়েছে। তবে আমাদের লড়াই মাঠে আছে এবং থাকবে। আমরা মার খাব কিন্তু এই রাজনৈতিক লড়াই থেকে পিছপা হব না। ’’

Published by:Siddhartha Sarkar
First published:

Tags: Tripura Politics

পরবর্তী খবর