বাকশক্তি নষ্ট হতে পারে! ভয়ে মস্তিষ্কে অপারেশন চলাকালীন হনুমান চল্লিশা পাঠ করলেন রোগী

অস্ত্রোপচারের সময় অজ্ঞান করা হয়নি তাঁকে ৷ বাকযন্ত্রকে সক্ষম রাখতে সে সময় হনুমান চল্লিশা পাঠ করছিলেন হুলাসমল ৷

অস্ত্রোপচারের সময় অজ্ঞান করা হয়নি তাঁকে ৷ বাকযন্ত্রকে সক্ষম রাখতে সে সময় হনুমান চল্লিশা পাঠ করছিলেন হুলাসমল ৷

  • Share this:

    #জয়পুর: অদ্ভ‌ুত ঘটনা ঘটল রাজস্থানের জয়পুরে ৷ মস্তিষ্কে টিউমরের অস্ত্রোপচার চলাকালীন হনুমান চল্লিশা পাঠ করলেন এক রোগী ৷ বছর ত্রিশের এক ব্যক্তি এপিলেপসিতে ভুগছিলেন অনেকদিন ধরেই ৷ হুলাসমল জঙ্গির নামের ওই ব্যক্তি বিকানিরের একজন কম্পিউটার অ্যাকাউন্ট্যান্ট ৷ কিন্তু এপিলেপসির সমস্যা নিয়ে চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার পর তাঁরা জানান, টিউমর রয়েছে হুলাসমলের মস্তিষ্কে ৷ যত শীঘ্র সম্ভব তা অস্ত্রোপচার করতে হবে ৷ কিন্তু মুশকিল বাঁধে অন্য জায়গায় ৷ চিকিৎসকরা জানান, এই অস্ত্রোপচারে হুলাসমলের বাকশক্তি পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যেতে পারে ৷ সে সময় পুরোপুরি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন ওই ব্যক্তি ৷ তবে চিকিৎসকরা জানান, একটা উপায় আছে ৷ যদি ওই ব্যক্তি অপরেশনের সময় কথা বলেন বা সব সময় সজাগ থাকেন তা হলে বাকযন্ত্র সচল থাকবে ৷ ডাক্তারি পরিভাষায় এই অস্ত্রোপচারকে ‘Awake Craniotomy’ বা ‘Awake Brain Surgery’ বলে ৷ শেষ পর্যন্ত নারায়ণা মাল্টিস্পেশ্যালিটি হসপিটালে ডক্টর কেকে বনসলের নেতৃত্বে ৮জন চিকিৎসকের একটি দল অপারেশন করে হুলাসমলের ৷ অস্ত্রোপচারের সময় অজ্ঞান করা হয়নি তাঁকে ৷ বাকযন্ত্রকে সক্ষম রাখতে সে সময় হনুমান চল্লিশা পাঠ করছিলেন হুলাসমল ৷

    অস্ত্রোপচার সফল হওয়ার পর এএনআই-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ডক্টর বনসল বলেন, ‘‘কাজটা খুবই কঠিন ছিল ৷ এটি একটি বিশেষ ধরনের অপারেশন ৷ যেখানে রোগীকে অজ্ঞান করা হয় ৷ তার উপর যে জায়গায় টিউমরটা ছিল তার খুব কাছাকাছি আমাদের শ্রবণ, দৃষ্টি আর শরীর নড়াচড়া করার নার্ভগুলি রয়েছে ৷’’

    First published: