corona virus btn
corona virus btn
Loading

তিরুপতি: রয়েছে ৮ টন সোনা ও ১৪,০০০ কোটি টাকার FD, তাও বেতন দিতে পারছে না কর্মীদের

তিরুপতি: রয়েছে ৮ টন সোনা ও ১৪,০০০ কোটি টাকার FD, তাও বেতন দিতে পারছে না কর্মীদের
তবে মন্দির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ভক্তদের প্রবেশ বন্ধ থাকলেও মন্দিরের পুজো চালু থাকবে৷ যে কর্মীর সংক্রমণ ঘটেছে, তিনি মন্দিরের স্বাস্থ্য বিভাগে কর্মরত ছিলেন৷
  • Share this:

#তিরুপতি: দেশের সবচেয়ে বড় ধনী মন্দির ট্রাস্ট ‘তিরুমালা তিরুপতি দেবস্থানম (TTD) জানিয়েছে লকডাউনের জেরে তাদের ৪০০ কোটি টাকা খরচ হয়ে গিয়েছে ৷ তিরুমালের শ্রী ভেঙ্কটশ্বর মন্দিরের এই ট্রাস্ট জানিয়েছে প্রতিদিনের খরচ ও কর্মচারীদের বেতন দেওয়ার জন্য তাদের কাছে ক্যাশ নেই ৷ আধিকারিকরা জানিয়েছেন  লকডাউনের সময় ট্রাস্ট প্রায় ৩০০ কোটি টাকা বেতন, পেনশন ও অন্যান্য প্রতিদিনের নিয়মে খরচ করেছে ৷

ট্রান্সের তরফে জানানো হয়েছে, সঙ্কটের এই সময়ে যা ক্যাশ ছিল তা থেকেই খরচ করা হয়েছে ৷ ট্রাস্টের কাছে প্রায় ৮ টন সোনা ও ১৪০০০ কোটি টাকার ফিক্সড ডিপোজিট রয়েছে৷ লকডাউনের জেরে প্রায় টানা ৫০ দিন বন্ধ রেয়েছে মন্দির এবং এখনও পর্যন্ত ঠিক নেই কবে মন্দির সাধারণ মানুষের জন্য খোলা হবে ৷

ট্রাস্টের চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, ‘টিটিডি তাদের কর্মীদের বেতন ও পেনশন দিতে বাধ্য ৷ লকডাউনে মন্দিরের আয় না হলেও প্রতিদিনের অন্য জিনিসে টাকা খরচ করা হয়েছে ৷ টিটিডি বিভিন্ন কাজে বছরে প্রায় ২৫০০ কোটি টাকা খরচ করে থাকে ৷ ’ প্রতিমাসে মন্দিরের প্রায় ২০০ থেকে ২২০ কোটি আয় হয় কিন্তু লকডাউনের জেরে কোনও গত কয়েকদিনে কোনও আয় হয়নি মন্দিরের ৷

মন্দিরে প্রায় প্রতিদিন ৮০০০০ থেকে ১ লক্ষ মানুষ পুজো দিতে আসেন ৷ উৎসবের সময় এই সংখ্যা আরও বেড়ে যায় ৷ ২০২০-২১ আর্থিক বছরের জন্য ৩৩০৯.৮৯ কোটি টাকা বার্ষিক বাজেট নির্ধারিত করা হয়েছে ৷ কিন্তু লকডাউনের জেরে এখনও পর্যন্ত ১৫০ থেকে ১৭০ কোটি কম কালেকশন হয়েছে ৷ ট্রাস্টের রেভিনিউ ঠাকুর দর্শনের টিকিট, প্রসাদ, থাকার ব্যবস্থা ও দান থেকে আসে, যা এখন পুরোপুরি বন্ধ রয়েছে ৷

চলতি আর্থিক বছরে কর্মচারীদের বেতনের উপর প্রায় ১৩৮৫.০৯ কোটি টাকা খরচ করার জন্য বরাদ্দ করা হয় ৷ এই মাসে কর্মীদের বেতন দেওয়ার জন্য প্রায় ১২০ কোটি টাকা খরচ হয়ে গিয়েছে ৷ এছাড়া ট্রাস্টের তরফে SYVIMS ও BIRRD কে ৪০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে ৷

Published by: Dolon Chattopadhyay
First published: May 12, 2020, 9:47 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर