হোম /খবর /দেশ /
প্রথম দিনেই TET-এ আবেদন জমা পড়ল ১৫০০! ৩রা নভেম্বর পর্যন্ত চলবে আবেদন প্রক্রিয়া

প্রথম দিনেই TET-এ আবেদন জমা পড়ল ১৫০০! ৩রা নভেম্বর পর্যন্ত চলবে আবেদন প্রক্রিয়া

আবেদন জমা পড়ল ১৫০০

আবেদন জমা পড়ল ১৫০০

Primary TET Recruitment: আগামী ১১ ডিসেম্বর প্রাথমিকের টেট। শুক্রবার বিকেল চারটে থেকে শুরু হয়েছে টেট এর আবেদন পত্র দেওয়ার প্রক্রিয়া।

  • Share this:

#কলকাতা: শুক্রবার থেকেই শুরু হয়েছে প্রাথমিকের টেটের আবেদন পত্র দেওয়ার প্রক্রিয়া। আর প্রথম দিনেই ১৫০০-ও বেশি আবেদন জমা পড়েছে বলেই প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ সূত্রে খবর।পর্ষদ সূত্রে জানা গিয়েছে প্রথম দিন কিছু টেকনিক্যাল সমস্যার জন্য অনেকেই আবেদন জমা দিতে পারিনি। তবে সেই সমস্যা ইতিমধ্যেই কাটিয়ে উঠেছে পর্ষদ। সে ক্ষেত্রে আবেদনপত্র জমা পড়ার গতি আরও বাড়বে বলেই মনে করছেন পর্ষদের আধিকারিকরা।

অন্যদিকে ইতিমধ্যেই প্রাথমিকের টেটের ক্ষেত্রে ফের নিয়মে বড়সড় বদল আনল প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। সংরক্ষণ তালিকাভুক্ত প্রার্থীরা এই বদলের সুবিধা পাবেন। শুক্রবার থেকেই টেটের জন্য প্রার্থীরা অনলাইনে আবেদন পত্র পূরণ করতে পারবেন। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে প্রার্থীদের মধ্যে যারা তপশিলি জাতি, উপজাতি এবং অন্যান্য অনগ্রসর শ্রেণীর তাদের জন্য বিশেষ ছাড় দেওয়া হয়েছে।

দ্বাদশ স্তরের পরীক্ষা বা স্নাতক স্তরে ৫ শতাংশ কম নম্বর পেলেও এই শ্রেণীভুক্তরা আবেদন করতে পারবেন। অর্থাৎ সাধারণদের জন্য যেখানে ৫০ শতাংশ নম্বর থাকা বাধ্যতামূলক সেখানে সংরক্ষিত প্রার্থীদের ক্ষেত্রে নম্বরের উর্ধ্বসীমা ৪৫ শতাংশ। সংরক্ষণ তালিকাভুক্তদের পাশাপাশি শারীরিক দিক থেকে বিশেষভাবে অক্ষম প্রাক্তন সেনা কর্মী ছাড়াও আরো বেশ কয়েকটি শ্রেণীর প্রার্থীরা এর সুবিধা পাবেন। এই মর্মে বৃহস্পতিবারই প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে।

আরও পড়ুন : শিক্ষক নিয়োগে নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত! 'প্রাথমিকে' ইন্টারভিউ হবে 'ক্যামেরাবন্দি'! যা জানালেন পর্ষদ সভাপতি

প্রসঙ্গত ইতিমধ্যেই প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের তরফে বুধবার জারি করা নির্দেশিকায় বলা হয়েছে শুধুমাত্র ২০২০-২২ শিক্ষাবর্ষই নয়, এর পরবর্তী শিক্ষাবর্ষ গুলিকেও যারা ডি এল এড বা বিএডে ভর্তি হয়েছেন তারাও প্রাথমিকের টেট দিতে পারবেন। অর্থাৎ যারা চলতি শিক্ষা বর্ষ ভর্তি হয়েছেন তারাও দিতে পারবেন প্রাথমিকের টেট। আধিকারিকদের একাংশের দাবি ন্যাশনাল কাউন্সিল ফর টিচার্স এডুকেশনের যাবতীয় নিয়ম মেনে চলতে চায় টেটকে কেন্দ্র করে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। যাতে এই পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে নতুন করে কোনও আইনি জটিলতা তৈরি না হয়। লক্ষাধিক পরীক্ষার্থী আবেদন করবে তেমনটাই অনুমান করে ইতিমধ্যেই পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ।

বিভিন্ন জেলা থেকে আনুমানিক পরীক্ষার্থীর হিসাব ধরে তালিকা চাওয়া হয়েছিল পরীক্ষা কেন্দ্রের। সেই তালিকা ইতিমধ্যেই পেয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। পর্ষদ সূত্রে খবর সেইসব পরীক্ষা কেন্দ্র ধরে ধরে ইতিমধ্যেই তার প্রস্তুতি ও চূড়ান্ত হয়ে গেছে। কালীপুজো ছুটি মিটলে ই রাজ্য প্রশাসনের সঙ্গেও পরীক্ষার যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়ে বৈঠকে বসবে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। প্রসঙ্গত চলতি সপ্তাহেই পর্ষদ সভাপতি গৌতম পাল সাংবাদিক বৈঠক করে স্পষ্ট জানিয়েছেন স্বচ্ছতার সঙ্গেই নেওয়া হবে প্রাথমিকের টেট।

আরও পড়ুন : সেই নাকি 'কালপ্রিট'! কে এই চণ্ডী? বৌবাজারের বিপর্যয়ের নেপথ্যে ২০১৯ সালের ঘটনা!

নিয়ম মেনে বছরে দুবার টেট নেওয়া হবে বলেও আগেই দাবি করেছিলেন পর্ষদ সভাপতি। চলতি সপ্তাহে অবশ্য সাংবাদিক বৈঠক করে তিনি দাবি করেন বছরে দুবার নিয়োগ হবে। কোন টেট পরীক্ষার্থী বসে থাকবেন না। পাশাপাশি ২০১৪,২০১৭ টেট উত্তীর্ণদেরও নিয়োগের জন্য আবেদন করার বার্তা রাখেন পর্ষদ সভাপতি। শুক্রবার থেকে প্রাথমিকের টেট আবেদনপত্র দেওয়ার পাশাপাশি আগামী ২১শে অক্টোবর থেকেও নিয়োগের জন্য আবেদন পত্র দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করবে পর্ষদ। ইতিমধ্যেই তার জন্য প্রস্তুতি ও শুরু করে দিয়েছে পর্ষদ।

চলতি সপ্তাহে সাংবাদিক সম্মেলন করে পর্ষদ সভাপতি দাবি করেছিলেন ১১ হাজারেরও বেশি শূন্য পদ স্কুল শিক্ষা দফতর থেকে তারা পেয়েছেন। দ্রুত এই পদ গুলিতে নিয়োগ করা হবে বলেও দাবি করেন পর্ষদ সভাপতি। তবে টেটের নিয়মে সরলীকরণ আনার জন্য আরও পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দিতে পারবে বলেই মনে করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা লক্ষাধিক বেড়ে যেতে পারে বলেই অনুমান করছে পর্ষদের আধিকারিকরা।

সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by:Sanjukta Sarkar
First published:

Tags: Primary Teachers Recruitment, TET