গুপ্তধনের খোঁজ ! তামিলনাড়ুর মন্দির চত্বর খুঁড়তেই মিলল রাশি রাশি সোনার কয়েন, চোখ কপালে স্থানীয়দের

গুপ্তধনের খোঁজ ! তামিলনাড়ুর মন্দির চত্বর খুঁড়তেই মিলল রাশি রাশি সোনার কয়েন, চোখ কপালে স্থানীয়দের
representative image

মন্দির চত্বরের মাটি খুড়তেই মিলল গুপ্তধন! পিতলের পাত্রে রাশি রাশি সোনার মুদ্রা

  • Share this:

#তিরুচিরুপল্লি: মন্দির চত্বরের মাটি খুড়তেই মিলল গুপ্তধন! পিতলের পাত্রে রাশি রাশি সোনার মুদ্রা! চোখ কপালে খনন কর্মী থেকে শুরু করে মন্দির কর্তৃপক্ষের! তামিলনাড়ুর তিরুচিরুপল্লিতে জাতিরুভানাইকাভালের জম্বুকেশ্বর মন্দির চত্বরে খানিকাটা ফাকা জমিতে চলছিল সাফাইয়ের কাজ। খনন কার্জের সময় কর্মীদের লাঙলে কী একটা যেন এসে লাগে। খানিকতা মাটি খুঁড়তেই উদ্ধার হয় একটি পিতলের পাত্র। ভিতরে ঝকঝক করছে কী যেন... ভাল করে দেখতেই সবার চক্ষু চড়কগাছ! পিতলের পাত্রে শয়ে শয়ে সোনার মুদ্রা। মন্দির কর্তৃপক্ষ জানায়, মুদ্রা সমেত পাত্রটি মাটির প্রায় সাত ফুট নিচে পাওয়া গিয়েছে। আপাতত পাত্র সমেত স্বর্ণমুদ্রা তুলে দেওয়া হয়েছে স্থানীয় প্রশাসনের হাতে।

মন্দির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে পাত্রে ছিল ১.৭১৬ কিলোগ্রাম ওজনের ৫০৫টি সোনার মুদ্রা। আবিষ্কৃত মুদ্রাগুলির মধ্যে ৫০৪টি ছোট, একটি বড়। বড় মুদ্রাটির পিঠে আরবি হরফে কিছু খোদাই করা আছে। অনুমান, খ্রিস্টপূর্ব এক হাজার থেকে বারোশো শতকের পুরনো এই মুদ্রাগুলি। সেই আরবি হরফে কী লেখা আছে জানতে তলব করা হয়েছে এক ভাষাবিদকে। পাত্র এবং মুদ্রাগুলি কোন সালের, কত বয়স... এসমস্ত জানতে পরীক্ষা চালাচ্ছেন প্রত্নতাত্ত্বিকদদের একটি দল। আপাতত সেই পাত্র ও সোনার মুদ্রাগুলিকে ল্যাবরেটরিতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে ।

সোনার মুদ্রা উদ্ধারের খবর পেয়ে দূর দূরান্ত থেকে উৎসাহি মানুষ মন্দির প্রাঙ্গনে ভিড় জমান।স্থানীয়দের অনুমান, জম্বুকেশ্বর মন্দিরের কাছে আগে রাজ পরিবারের বাস ছিল। শত্রুদের হাত থেকে সোনার ভাঙহডার রক্ষা করতেই তা মাটির নীচে পুঁতে রাখা নহয়েছিল।

First published: February 28, 2020, 9:11 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर