corona virus btn
corona virus btn
Loading

দিল্লিতে কংগ্রেস শূন্য কেন? প্রয়াত শীলা দীক্ষিতকেই দায়ী করলেন চাকো

দিল্লিতে কংগ্রেস শূন্য কেন? প্রয়াত শীলা দীক্ষিতকেই দায়ী করলেন চাকো
পিসি চাকো ও প্রয়াত শীলা দীক্ষিত

টানা প্রায় দু দশক দিল্লি শাসন করার পরেও এ বারের দিল্লি বিধানসভায় খাতাই খুলতে পারেনি কংগ্রেস৷ ৬৭টি আসনে জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে কংগ্রেসের৷ ভোট শতাংশের হিসেবেও কংগ্রেসের অবস্থা আরও শোচনীয়৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ২০১৫-র পরে ২০২০ সালেও দিল্লিতে একটি আসনও পেল না কংগ্রেস৷ ৭০ আসনের দিল্লি বিধানসভায় ৬৭ জন প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে৷ এ হেন পরিস্থিতিতে বিধানসভা ভোটে ভরাডুবির দায় নিয়ে দিল্লি কংগ্রেসের সভাপতি পদে ইস্তফা দিলেন পিসি চাকো৷ দিল্লিতে কংগ্রেসের এই অবস্থার জন্য দায়ী করলেন দিল্লির প্রয়াত মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিতকে৷

চাকোর কথায়, 'দিল্লিতে কংগ্রেসের পতন শুরু হয় ২০১৩ সালে, যখন মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন শীলা দীক্ষিত৷ কংগ্রেসের ভোটব্যাঙ্ক পুরোটা চলে আপ-এর দিকে৷ সেই ভোট আমরা আর ফিরে পাইনি৷ এখনও তা আপ-এর দিকেই রয়েছে৷'

পিসি চাকোর এই মন্তব্যের নিন্দা শুরু হয়েছে দলেরই অন্দরে৷ মুম্বই কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি মিলিন্দ দেওরার বক্তব্য, প্রয়াত শীলা দীক্ষিতকে হারের জন্য কাঠগড়ায় দাঁড় করানো অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক৷

টানা প্রায় দু দশক দিল্লি শাসন করার পরেও এ বারের দিল্লি বিধানসভায় খাতাই খুলতে পারেনি কংগ্রেস৷ ৬৭টি আসনে জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে কংগ্রেসের৷ ভোট শতাংশের হিসেবেও কংগ্রেসের অবস্থা আরও শোচনীয়৷

দিল্লি নির্বাচনের প্রচারেই বোঝা গিয়েছিল লড়াইটা মূলত হতে চলেছে আপ বনাম বিজেপি-র৷ কিন্তু কংগ্রেসও চেষ্টা করেছিল৷ মনমোহন সিং, রাহুল গান্ধি, প্রিয়াঙ্কা গান্ধি থেকে শুরু করে কংগ্রেসের তারকা নেতা-নেত্রীরা৷ কিন্তু শেষরক্ষা হল না৷ ২০১৫ সালে দিল্লিতে ভোট কংগ্রেস ১০ শতাংশ ভোট পেয়েছিল৷ ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে পেয়েছিল ২২.৫ শতাংশ৷ ২০২০ সালের বিধানসভায় তা কমে মাত্র ৪ শতাংশ৷

Published by: Arindam Gupta
First published: February 12, 2020, 1:49 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर