corona virus btn
corona virus btn
Loading

সবথেকে গরিব ৫০ শতাংশ পরিবারকে নগদ দিক কেন্দ্র, মোদি সরকারকে পরামর্শ চিদম্বরমের

সবথেকে গরিব ৫০ শতাংশ পরিবারকে নগদ দিক কেন্দ্র, মোদি সরকারকে পরামর্শ চিদম্বরমের
পি চিদম্বরম৷ Photo-PTI

সতর্ক করে চিদম্বরম বলেছেন, অবিলম্বে সরকার পদক্ষেপ না করলে 'অন্ধকার সুড়ঙ্গের মধ্যে তলিয়ে যাবে দেশের অর্থনীতি৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: অর্থনীতিকে বৃদ্ধির পথে ফেরাতে দেশের সবথেকে গরিব পঞ্চাশ শতাংশ পরিবারের হাতে নগদ দেওয়ার পরামর্শ দিলেন কংগ্রেস নেতা এবং প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম৷ একই সঙ্গে তাঁর পরামর্শ, জিএসটি বাবদ রাজ্যের বকেয়াও মেটাক কেন্দ্র৷ সবমিলিয়ে মানুষের হাতে নগদের জোগান দিয়ে বাজারে চাহিদা বাড়ানোর সরকারকে ধার করার পরামর্শ দিয়েছেন চিদম্বরম৷ কী ভাবে দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করা যায়, সরকারকে সেই সংক্রান্ত পরামর্শ দিতে ট্যুইট করে একাধিক প্রস্তাব দিয়েছেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী৷

সোজা কথায় চিদম্বরমের পরামর্শ, অর্থনীতিতে গতি আনতে গেলেন মানুষের ক্রয়ক্ষমতা এবং বাজারে চাহিদা বাড়াতে হবে৷ এই সূত্রেই তাঁর পরামর্শ, দেশের সবথেকে গরিব পঞ্চাশ শতাংশ পরিবারের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টগুলিতে সরাসরি টাকা পাঠাক সরকার৷ একই সঙ্গে তাঁর পরামর্শ, মজুরি দেওয়ার জন্য নগদের বদলে সরকারের কাছে মজুত করে রাখা খাদ্যশস্য ব্যবহার করা হোক৷ পরিকাঠামো উন্নয়নে ব্যয় বাড়ানো হোক৷ পাশাপাশি ব্যাঙ্কগুলির ঋণ দেওয়ার ক্ষমতা বাড়াতে তাদের পুঁজির জোগান দেওয়ার জন্যও সরকারকে পরামর্শ দিয়েছেন চিদম্বরম৷

ট্যুইটারে কংগ্রেস নেতা লিখেছেন, 'এই সমস্ত পরামর্শের বাস্তবায়নের জন্য অর্থের প্রয়োজন৷ তাই কোনওরকম দ্বিধা না রেখে ঋণ নেওয়া হোক৷' অর্থনীতিকে দিশা দেখানোর জন্য সরকারকে দৃঢ় পদক্ষেপ করার দাবি জানিয়ে আসছেন চিদম্বরম৷ তাঁর দাবি, প্রতিশ্রুতি মতো কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্যগুলিকে জিএসটি বাবদ পাওনা মিটিয়ে দিক৷

সতর্ক করে চিদম্বরম বলেছেন, অবিলম্বে সরকার পদক্ষেপ না করলে 'অন্ধকার সুড়ঙ্গের মধ্যে তলিয়ে যাবে দেশের অর্থনীতি৷' প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীর অভিযোগ, অর্থনীতির সমস্ত ক্ষেত্রেই উল্লেখযোগ্য পতন ঘটেছে৷ কিন্তু তা ঠেকানোর জন্য সরকারের নির্লিপ্ত ভূমিকা এবং কোনও পদক্ষেপ না করাটাই লজ্জাজনক৷

এর আগে সর্বভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে চিদম্বরম বলেছিলেন, 'এই সময়ই বেশি করে ঋণ নিতে হবে, খরচ করতে হবে, যাতে চাহিদা এবং ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়৷'

Published by: Debamoy Ghosh
First published: September 6, 2020, 5:45 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर