‘‌মেয়ের ছবি জড়িয়ে কেঁদে বলেছি, মেয়ে, আজ তুই ন্যায়বিচার পেলি’, বললেন নির্ভয়ার মা

‘‌মেয়ের ছবি জড়িয়ে কেঁদে বলেছি, মেয়ে, আজ তুই ন্যায়বিচার পেলি’, বললেন নির্ভয়ার মা
Image: ANI

আমার মেয়ের মৃত্যুর পর যে লড়াই শুরু করেছিলাম, আজ সেই লড়াইয়ের বৃত্ত সম্পূর্ণ হল।

  • Share this:

#‌নয়া দিল্লি:‌ নির্ভয়া কাণ্ডের চার দণ্ডিতের ফাঁসি কার্যকরের কিছু ঘণ্টা আগে পর্যন্তও দোলাচল ছিল। কিন্ত শেষ পর্যন্ত ফাঁসি হয়ে গেল নির্ভয়া ধর্ষণে চার অপরাধীরা। এদিন রাত তিনটের পর থেকেই তিহার জেলের সামনে ব্যানার, পোস্টার নিয়ে হাজির হয়েছিলেন বেশ কিছু মানুষ। তাঁরা ব্যানার পোস্টার নিয়ে জেলের বাইরেই আওয়াজ তুলতে শুরু করেন। কিন্তু ঠিক ৫.‌৩৭ মিনিটে চূড়ান্ত খবর আসে, ফাঁসি হয়ে গিয়েছে। আজ এতদিন পরে, মানে সেই ২০১২ সাল থেকে ২০২০, আট বছর পর ফাঁসির সাজা কার্যকর হওয়া যেন এক ইতিহাসের সমাপতন। এদিন ফাঁসি কার্যকর হওয়ার পরেই বেরিয়ে আসেন নির্ভয়ার মা। তিনি এই কাকভোরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন। আর সেখানেই আবেগে চোখে জল আসে তাঁর।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে তিনি জানালেন, ‍‌‘‌আমার মেয়ের মৃত্যুর পর যে লড়াই শুরু করেছিলাম, আজ সেই লড়াইয়ের বৃত্ত সম্পূর্ণ হল। আমি মনে করে, এতদিন ধরে ভারতের বিচার ব্যবস্থার নানা ধাপ পেরিয়ে একসময মনে হচ্ছিল আমার মেয়েটা বুঝি বিচার পাবে না। কিন্তু আজ আবার বিচার ব্যবস্থার প্রতি আস্থা ফিরে এল। আমার মনে হচ্ছে এমনই হওয়া উচিত ছিল। আগেই হওয়া উচিত ছিল। কিন্তু যাই হোক, এতদিন পরেও আমার মেয়েটা ন্যায়বিচার পেল। সেটা ভেবে আমার ভাল লাগছে। আমার মেয়ের জন্য আমার গর্ব হয়। আমি ওকে বাঁচাতে পারিনি। ও বেঁচে থাকলে আজ হয়ত আমাকে লোকে একজন চিকিৎসকের মা হিসাবে চিনত। কিন্তু আজ পৃথিবীর লোক আমাকে নির্ভয়ার মা হিসাবে চেনে। তাই লড়াই আমি করবই। আগামী দিনেও করব। আজ আমি নির্ভয়াকে বলেছি, ওর ছবি জড়িয়ে ধরে বলেছি অনেক কথা। ওর ছবি জড়িয়ে ধরে কেঁদে বলেছি, মেয়ে আজ তুই ন্যায় বিচার পেলি। আজ আমি দেশের সমস্ত মহিলা ও নারীদের বলব, যাঁরা এই লড়াইয়ে আমাদের পাশে ছিলেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় সঙ্গে ছিলেন, তাঁদের সবাইকে আমি ধন্যবাদ জানাই।’‌

একই কথা বললেন নির্ভয়ার বাবা। তিনি বললেন, ‘‌এত লড়াই থেকে আমরা কখনও পিছিয়ে আসিনি। আমরা লড়াই করেছি। সেই লড়াই আজ বৃত্ত সম্পূর্ণ হল। আজ সবাই বলবে, নির্ভয়ার ধর্ষকদের ফাঁসি হওয়াতে আমরা খুশি হয়েছি। কেউ বলবে না, ফাঁসিতে কেউ দুঃখ পেয়েছেন।’‌

First published: March 20, 2020, 6:04 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर