Unnao: এক মাসে ৩০০ মৃতদেহ পোঁতা হয়েছে গঙ্গার চরের বালিতে, 'অন্য রোগ' বলছে স্থানীয়রা

স্থানীয়দের অনেকেই বলছেন, গত এক মাসে রোজ গড়ে ১০-১২টি করে মৃতদেহ ওই বালির চরে এনে পোঁতা হয়েছে।

স্থানীয়দের অনেকেই বলছেন, গত এক মাসে রোজ গড়ে ১০-১২টি করে মৃতদেহ ওই বালির চরে এনে পোঁতা হয়েছে।

  • Share this:

    #উন্নাও:

    রোজ সারা দেশে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। প্রায় রোজই নতুন করে সংক্রমিত হচ্ছেন চার লাখের বেশি মানুষ। সংক্রমণের হার কবে কমবে, তা নিয়ে কোনও স্পষ্ট ধারণা দিতে পারছেন না বিশেষজ্ঞরা। এমন পরিস্থিতিতে নতুন করে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে কিছু দায়িত্বজ্ঞানহীন মানুষের জন্য। গঙ্গার জলে ভাসিয়ে দেওয়া হচ্ছে করোনা আক্রান্তদের মৃতদেহ। যা নিয়ে সারা দেশে প্রবল আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গঙ্গার জল থেকে করোনা সংক্রমণের সম্ভাবনা খুবই কম। তবুও যেন আতঙ্ক কাটছে না। জানা গিয়েছে, উত্তরপ্রদেশের উন্নাওতে গঙ্গার চরের বালিতে গত এক মাসে তিনশো মৃতদেহ পুঁতেছে স্থানীয়রা। যার জেরে নতুন করে আর মৃতদেহ পোঁতার জায়গা সেখানে নেই। বৃহস্পতিবার সকালে গঙ্গার চরে পুঁতে রাখা মৃতদেহগুলির একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে।

    বক্সার ও রাউতপুরের গঙ্গার চরের বালিতে লাইন দিয়ে পোঁতা হয়েছে মৃতদেহ। সেখান থেকে কয়েকটি মৃতদেহ খুবলে খেয়েছে শিয়াল, কুকুর। বেশ কয়েকটি মৃতদেহ বালির চর থেকে টেনে নিয়ে গিয়েছে কুকুর, শিয়ালের দল। জলের তোড়়ে বেশ কয়েকটি মৃতদেহের অংশাবশেষ বেরিয়ে পড়েছে। আর তার পর থেকেই আতঙ্ক ছড়িয়েছে। এক মাসে তিনশোটি মৃতদেহ। সংখ্যাটি ভয় ধরিয়ে দেওয়ার মতোই। স্থানীয়দের অনেকেই বলছেন, গত এক মাসে রোজ গড়ে ১০-১২টি করে মৃতদেহ ওই বালির চরে এনে পোঁতা হয়েছে। ওই এলাকার শ্মশানে রোজ দুই থেকে তিনটি মৃতদেহ দাহ করার মতো পরিকাঠামো রয়েছে। ফলে এত মৃতদেহ স্থানীয়রা গঙ্গার চরে এনে পুঁতে দিয়েছিল। কেউ কেউ বলছেন, ওই এলাকায় অনেকেরই এখন কাঠ কেনার মতো সামর্থ নেই। তাই প্রিয়জনদের দেহ দাহ না করে মাটিতে পুঁতেছে তাঁরা।

    ফতেপুর, রায়বেরেলি ও উন্নাও জেলায় গত এক মাসে বহু মানুষের মৃত্যু হয়েছে। বেশিরভাগ মৃতের শরীরের কোভিডের উপসর্গ ছিল। জ্বর, শ্বাসকষ্ট, কাশি ও ঠাণ্ডা লাগার মতো সমস্যা নিয়ে অসুস্থ ছিলেন অনেকেই। তবু স্থানীয়রা করোনার অস্তিত্ব সেখানে মানতে নারাজ। তাঁরা বলছেন, অন্য কোনও রহস্যজনক রোগে গ্রামের পর গ্রাম উজাড় হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসনের অবশ্য দাবি, কোনও অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে কেউ প্রাণ হারায়নি। প্রত্যেকের শরীরে করোনার উপসর্গ ছিল।

    Published by:Suman Majumder
    First published: