• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • সাংঘাতিক! দিনের আলোয় গাজিয়াবাদের রাস্তায় বহালতবিয়তে ঘুরছে চিতাবাঘ, ভাইরাল CCTV ফুটেজ...

সাংঘাতিক! দিনের আলোয় গাজিয়াবাদের রাস্তায় বহালতবিয়তে ঘুরছে চিতাবাঘ, ভাইরাল CCTV ফুটেজ...

দিনের আলোয় শহরের রাস্তায় বহালতবিয়তে ঘুরে বেড়াচ্ছে চিতাবাঘ। এমনই ঘটনায় এখন ঘুম উড়েছে এলাকাবাসীর। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে চিতাবাঘ ঘুরে বেড়ানোর ফুটেজ।

দিনের আলোয় শহরের রাস্তায় বহালতবিয়তে ঘুরে বেড়াচ্ছে চিতাবাঘ। এমনই ঘটনায় এখন ঘুম উড়েছে এলাকাবাসীর। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে চিতাবাঘ ঘুরে বেড়ানোর ফুটেজ।

দিনের আলোয় শহরের রাস্তায় বহালতবিয়তে ঘুরে বেড়াচ্ছে চিতাবাঘ। এমনই ঘটনায় এখন ঘুম উড়েছে এলাকাবাসীর। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে চিতাবাঘ ঘুরে বেড়ানোর ফুটেজ।

  • Share this:

    #গাজিয়াবাদ: দিনের আলোয় শহরের রাস্তায় বহালতবিয়তে ঘুরে বেড়াচ্ছে চিতাবাঘ। এমনই ঘটনায় এখন ঘুম উড়েছে এলাকাবাসীর। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে চিতাবাঘ ঘুরে বেড়ানোর ভিডিও ফুটেজ। যা দেখে কপালে চোখ তুলেছেন অনেকেই।

    গাজিয়াবাদের রাজনগরে মঙ্গলবার দুপুরে চিতাবাঘটিকে দেখতে পাওয়া যায়। অভিষেক প্রসাদ নামে এক ট্যুইটার ব্যবহারকারী এলাকার একটি CCTV ফুটেজ সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন। সেই পোষ্ট ঝড়ের গতিতে ভাইরাল হয়ে যায়। সংবাদ সংস্থা PTI-র কাছে সংবাদের সত্যতা স্বীকার করেছে শহরের প্রশাসন।

    সংবাদ সংস্থা সূত্রে জানা গিয়েছে, চিতাবাঘটি শুধু রাস্তায় ঘুরেছে তা নয়। সে গাজিয়াবাদ ডেভেলপমেন্ট অথরিটির চেয়ারপার্সনের অফিসের জেনারেটর রুমে ঢুকে পড়েছিল। এরপর এক সুইপার সেখানে জেনারেটর চালাতে গেলে, বাঘটি প্রথমে তাঁর ওপরে ঝাঁপিয়ে পরে। কোনও মতে প্রাণ বাঁচিয়ে সে বাইরে বেরিয়ে এসে চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করলে অফিসের অন্যান্যরা লাঠি নিয়ে বাঘটিকে তাড়া করে। তবে চিতাবাঘটির নাগাল পায়নি কর্মী এবং আধিকারিকরা। কারণ ততক্ষণে বাঘ বাবাজি অফিস সংলগ্ন একটি বড় গাছ বেয়ে উঠে পাশের একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে লাফ দিয়েছে।

    এ দিকে, ঘটনার পরেই খবর দেওয়া হয় বনদফতরে। কিছুক্ষণের মধ্যেই ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছয় বনদফতরের পাঁচটি দল। তবে বাঘটিকে এখনও ধরা যায়নি। জেলাশাসক শঙ্কর পাণ্ডে জানিয়েছে, সরবতভাবে বাঘটিকে ধরার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। তবে যতক্ষণ না চিতাবাঘটিকে ধরা যাচ্ছে, ততক্ষণ এলাকার বাসিন্দাদের বাইরে বেরতে নিষেধ করা হয়েছে।

    Published by:Shubhagata Dey
    First published: