‘ও আমার একমাত্র বন্ধু ছিল, যে যখন খুশি বাড়িতে আসতে পারত’, সিন্ধিয়ার দল ছাড়ার পর আবেগতাড়িত রাহুল

‘ও আমার একমাত্র বন্ধু ছিল, যে যখন খুশি বাড়িতে আসতে পারত’, সিন্ধিয়ার দল ছাড়ার পর আবেগতাড়িত রাহুল

সংবাদ মাধ্যমের সামনে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে স্পষ্টতই দলের এক সম্ভাবনাময় নেতাকে হারানোর হতাশা ঝরে পড়ল কংগ্রেসের প্রাক্তন অধ্যক্ষ রাহুলের গলায়৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: কংগ্রেসের হাত ছাড়িয়ে বিজেপিতে সামিল জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া ৷ কংগ্রেসের তরুণ ব্রিগেডের অন্যতম বিশ্বস্ত মুখ সিন্ধিয়া দল ছাড়ায় হতাশা কংগ্রেশ শিবিরে ৷ কংগ্রেসের লম্বা রেসের ঘোড়া বলে মানা হত জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়াকে ৷ রাহুল গান্ধি অন্যতম কাছের নেতা ছিলেন সিন্ধিয়া ৷ তাঁর পদত্যাগ করার প্রায় একদিন পর সংবাদ মাধ্যমের সামনে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে স্পষ্টতই দলের এক সম্ভাবনাময় নেতাকে হারানোর হতাশা ঝরে পড়ল কংগ্রেসের প্রাক্তন অধ্যক্ষ রাহুলের গলায়৷ পদত্যাগের পরে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার তরফে অভিযোগ উঠেছিল, তিনি বহুবার রাহুলের সঙ্গে দেখা করতে চাইলেও সাক্ষাৎ হয়নি ৷ এদিন সাংবাদিকদের সঙ্গে সেই প্রসঙ্গে কথা বলার সময়ই এই অভিযোগ অস্বীকার করেন রাহুল ৷ বলেন, ‘আমরা একসঙ্গে কলেজে ছিলাম ৷ কখনও সিন্ধিয়ার প্রশ্ন অবজ্ঞা করিনি ৷ সিন্ধিয়ার জন্য আমার বাড়িতে বরাবরই ছিল অবারিত দ্বার৷ যখন খুশি আসতে যেতে পারত ৷’ মঙ্গলবারই কংগ্রেসে ইস্তফা দেন৷ বুধবার দুপুরে আনুষ্ঠানিক ভাবে বিজেপি-তে যোগ দিলেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া ৷ সোমবার রাত থেকেই জ্যোতিরাদিত্যর সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেনি কংগ্রেস৷ হোলির দিনই জ্যোতিরাদিত্যকে সঙ্গে নিয়ে সকালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাসভবনে যান কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ৷ বৈঠক শেষ করেই কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধিকে ইস্তফাপত্র পাঠিয়ে দেন সিন্ধিয়া ৷ জ্যোতিরাদিত্যের দল ছাড়ার সঙ্গেই টালমাটাল অবস্থা মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস সরকারের৷

First published: March 11, 2020, 7:23 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर