Home /News /national /
JNU tension over non veg food: আমিষ-নিরামিষ বিতর্ক পৌঁছে গেল জেএনইউ-তে, এবিভিপি-র বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ

JNU tension over non veg food: আমিষ-নিরামিষ বিতর্ক পৌঁছে গেল জেএনইউ-তে, এবিভিপি-র বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ

জেএনইউ কাণ্ডের প্রতিবাদে পড়ুয়াদের বিক্ষোভ৷

জেএনইউ কাণ্ডের প্রতিবাদে পড়ুয়াদের বিক্ষোভ৷

জেএনইউ ছাত্র সংসদের তরফে বলা হয়েছে, "আমরা বসন্তকুঞ্জে গিয়ে এসিপির সঙ্গে দেখা করেছি। আমাদের আশ্বাস দিয়েছেন, দোষীদের গ্রেপ্তার করা হবে। যদিও কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। আমাদের শুধুই আশ্বাস দেওয়া হচ্ছে।"

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: জেএনইউ ক্যাম্পাসে রবিবার রাতে এবিভিপির তাণ্ডবের ঘটনায় সোমবারও উত্তপ্ত রইল রাজধানীর রাজনীতি। আজ সকালে বসন্ত বিহারে দিল্লি পুলিশের সদর দপ্তরের সামনে বিক্ষোভ মিছিল করেন জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের সদস্যরা। সেখানে বেশ কয়েকজনকে আটক করে পুলিশ।

পড়ুয়া ও ছাত্র সংসদের সদস্যদের অভিযোগ, ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে থেকে নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে পুলিশ। তাঁদের আরও অভিযোগ, একাধিকবার পুলিশের দ্বারস্থ হলেও এগিয়ে আসেনি তারা। বসন্ত বিহারে দিল্লি পুলিশের সদর দপ্তরের সামনে পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তোলেন ছাত্র সংসদের কর্মী, সমর্থকরা।

আরও পড়ুন: হিন্দুত্ব বিজেপি'র পেটেন্ট নাকি, বিজেপিকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ উদ্ধব ঠাকরের

 

জেএনইউ ছাত্র সংসদের তরফে বলা হয়েছে, "আমরা বসন্তকুঞ্জে গিয়ে দিল্লি পুলিশের এসিপির সঙ্গে দেখা করেছি। তিনি আমাদের আশ্বাস দিয়েছেন, দোষীদের গ্রেপ্তার করা হবে। যদিও কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। আমাদের শুধুই আশ্বাস দেওয়া হচ্ছে।"

যদিও জেএনইউএসইউ, এসএফআই, ডিএসএফ এবং আইসার তরফে অভিযোগ জানানোর পর অজ্ঞাতপরিচয় এবিভিপি সমর্থকদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করে দিল্লি পুলিশ। একই সঙ্গে জেএনইউ ক্যাম্পাসের বাইরে অতিরিক্ত পুলিশ কর্মী মোতায়েন করা হয়েছে। দিল্লি পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, এখনও পর্যন্ত ক্যাম্পাসের বাইরেই পুলিশকর্মী মোতায়েন করা হলেও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আবেদন করলে ক্যাম্পাসের ভিতরেও পুলিশকর্মী মোতায়েন করা হবে।

আরও পড়ুন: পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রীর থেকে কী প্রত্যাশা? অভিনন্দন জানিয়ে বার্তা মোদির

এ দিকে, গতকাল রাতে কাবেরি হোস্টেলের ঘটনার নিন্দা করেছে জেএনইউয়ের শিক্ষকদের সংগঠন। একটি বিবৃতিতে শিক্ষকদের সংগঠনের তরফে বলা হয়েছে, "পড়ুয়া এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মীদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে হবে।"

ঘটনার সূত্রপাত গতকাল সন্ধ্যায়। কাবেরি হোস্টেলে রবিবার সন্ধ্যায় নৈশভোজে মুরগির মাংস দেওয়া হয়। সেই খবর পেয়ে কাবেরি হোস্টেলে ঢুকে হামলা চালায় এবিভিপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। পড়ুয়াদের পাশাপাশি হোস্টেলের ক্যান্টিনের কর্মীকেও মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। ছাত্র সংসদের সদস্যদের অভিযোগ, পাথর ছোড়ার পাশাপাশি লোহার রড দিয়ে মারধর করা হয়েছে। তাঁদের বেশ কয়েকজন কর্মী, সমর্থক রক্তাক্ত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি বলে জানানো হয়েছে ছাত্র সংসদের তরফে।

জেএনইউ কর্তৃপক্ষের তরফে বিজ্ঞপ্তি জারি করে পড়ুয়াদের শান্তি বজায় রাখার আবেদন করা হয়েছে। একই সঙ্গে জানানো হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে অমিষ খাবার নিষিদ্ধ করা হয়নি।

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

Tags: Delhi, JNU

পরবর্তী খবর