• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • বড়দিনে হিন্দুরা গির্জায় ঢুকলে মার খেতে হবে, সতর্কবার্তা বজরং দলের

বড়দিনে হিন্দুরা গির্জায় ঢুকলে মার খেতে হবে, সতর্কবার্তা বজরং দলের

বক্তব্য রাখছেন মিঠু নাথ। ছবি ভিডিও থেকে নেওয়া।

বক্তব্য রাখছেন মিঠু নাথ। ছবি ভিডিও থেকে নেওয়া।

এবার ২৫ ডিসেম্বর গির্জায় হিন্দুদের প্রবেশ নিয়ে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন দক্ষিণপন্থী বজরং দলের নেতা মিঠু নাথ।

  • Share this:

    দুর্গাপুজো হোক ক্রিসমাস, সবেতেই মাতেন হিন্দুরা। কিন্তু এই নিয়েও বিভেদের বীজ সামনে আসছে। এবার ২৫ ডিসেম্বর গির্জায় হিন্দুদের প্রবেশ নিয়ে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন দক্ষিণপন্থী বজরং দলের নেতা মিঠু নাথ। আসামের শিলচরে একটি অনুষ্ঠানে গিয়ে সাফ জানালেন ক্রিসমাস পালনের দিন কোনও হিন্দু গির্জায় প্রবেশ করলে তাঁকে ‘মারধর’ করা হবে।

    অনুষ্ঠানের একটি ভিডিও সামনে আসায় তাঁর এই মন্তব্যের নিন্দা করেছেন অনেকেই। কিন্তু কেন তিনি এই কথা বললেন? বিশ্ব হিন্দু পরিষদ ( বজরং দলের প্রধান সংগঠন )-এর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মিঠু নাথ বলেন, ‌কিছু দিন আগে খ্রিস্টান- সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজ্য মেঘালয়ের রাজধানী শিলং-এ বিবেকানন্দ কেন্দ্র তালা দেওয়ায় তিনি ক্ষুদ্ধ হয়েছেন।

    নাথের মতে, ‘’‌শিলং-এ ক্রিসমাস চলাকালীন হিন্দুরা তাঁদের মন্দিরের দরজা বন্ধ করে রাখেন। আবার তাঁরাই নাকি ক্রিসমাসে গির্জায় গিয়ে ফূর্তি করবেন, সেটি কিছুতেই মেনে নেব না আমরা। এ বছর কোনও হিন্দু যদি গির্জায় ঢোকার চেষ্টা করেন তাহলে তাঁর উপর হামলা চলবে’’।

    ধর্ম নিয়ে রাজনীতি এই দেশে নতুন কিছু নয়। সেই প্রেক্ষিতেই তিনি বলেন যে, ‘’খাসি ইউনিয়নের এক জন হিন্দু ছাত্র নেতা আমাদের মন্দিরের দরজায় তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন। সেখানে হিন্দু ছাড়া অন্যের প্রবেশ মানা। তাহলে বড়দিন নিয়ে হিন্দুরা কেন মাতামাতি করবেন?’’।

    যদিও তাঁর এই দাবিটি খারিজ করেছেন মেঘালয় রাজ্যের একজন সরকারি আধিকারিক। তিনি অভিযোগটি উড়িয়ে দিয়ে বলেন, ‘’ বিষয়টি একেবারেই তা নয়। ওই অঞ্চলে ছুটি থাকার দরুণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্রটি তাৎক্ষণিক বন্ধ রয়েছে, তালাবদ্ধ নয়। এবং রামকৃষ্ণ মিশনের কোনও মন্দির বন্ধ করা হয়নি।‘’

    বজরং দলের নেতা লাভ জিহাদ-এর বিরুদ্ধেও প্রশ্ন রেখেছেন। ‘মা ও বোনেদের’ নিয়ে কটাক্ষ তাঁরা কখনই মেনে নেবে না বলে স্পষ্ট জানিয়েছেন।

    Written by: Somosree Das

    Published by:Arka Deb
    First published: