প্রতি পাঁচজনের একজন মহিলা ফোনে অশ্লীল যৌন উস্কানিমূলক শব্দ শুনতে বাধ্য হন! রিপোর্ট

প্রতি পাঁচজনের একজন মহিলা ফোনে অশ্লীল যৌন উস্কানিমূলক শব্দ শুনতে বাধ্য হন! রিপোর্ট
Photo- Representive

রিপোর্ট দেখে শিউড়ে উঠছেন সকলেই

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: প্রতি পাঁচ জন ভারতীয় মহিলার একজন যৌন উস্কানিমূলক অশ্লীল এসএমএস ও ফোন পান - এমনই চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট দিল ট্রু কলার (Truecaller) এরমধ্যে ৮৫ শতাংশ মহিলাই সেই নম্বর ব্লক করে দেন , তবে মাত্র ১২ শতাংশ মানুষ এই বিষয়ে আইনি পদক্ষেপ নিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন ৷ ট্রু কলারের ম্যানেজিং ডিরেক্টর সন্দীপ পাতিল জানিয়েছেন এই পরিসংখ্যান ৷ একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে নিজেদের সার্ভের সম্পর্কে বলতে গিয়ে এরকম চাঞ্চল্যকর তথ্যই তুলে ধরেছেন তিনি ৷

মহিলারা কল করার ক্ষেত্রে এই অসুবিধা থেকে যাতে বাঁচতে পারেন তাই নতুন ভাবনা নিয়ে এগিয়ে আসতে চলেছে এই সংস্থা ৷ এই মুহূর্তে ভারত -ব্রাজিল-কলোম্বিয়া-ইজিপ্ট ও কেনিয়াতেও  পরিষেবা রয়েছে ট্রু কলারের ৷ সেই জায়গাতেও ছবিটা আলাদা নয় ৷ ব্রাজিলে প্রতি ১০ জন মহিলার ৯ জন এরকম হ্যারাশিং কল পান ৷ ইজিপ্ট কেনিয়াতেও পরিসংখ্যানটা একই ৷ ভারতে প্রতি ১০ জনের ৮ জন মহিলা এই রকম বাজে ফোনকল পান ৷ আর কলম্বিয়াতে এই সংখ্যাটা প্রতি ১০ জনে ৬ জন এই ধরণের ফোন কল পান ৷

আরও পড়ুন - নক্কারজনক : চার বন্ধু মিলে পালা করে একে অপরের বউকে করছিল রেপ, লোক জানাজানি হওয়ায় নিজের বউদের তাদের হাতেও তুলে দেয়!

এই পরিসংখ্যান যেমন শিউড়ে দিচ্ছে, ঠিক তেমনিই আরও একটা চমকে দেওয়ার মতো রয়েছে ৷ ভারতের ৪২ শতাংশ মহিলা এই ধরণের অসুবিধাকে অসুবিধা বলেই মনে করেন না ৷ আর ব্রাজিলে প্রতি ২জনে ১ জন এই অশ্লীলতার শিকার হলেও তার দুই তৃতীয়াংশ মহিলাও একে হ্যারাসমেন্ট বলে মানতে রাজি নন ৷

এই সংস্থার রিপোর্ট ও তার রিসার্চের ভিত্তিতে আরও জানানো হয়েছে , ‘যদি একজন ব্যক্তি পাঁচজন মহিলাকেও হেনস্তা করে তাহলেও সংখ্যাটা এতটাই কম যে অ্যালগোরিদম দিয়ে তার বিরুদ্ধে কোনওরকম ব্যবস্থা নেওয়া যায় না ৷ ফলে এক একটি বিশেষ কেসের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক কোনও ব্যবস্থা নেওয়া যাচ্ছে না ৷ ’ স্প্যাম কলের জন্য লাল ব্যাকগ্রাউন্ড ইতিমধ্যেই আছে , পাশাপাশি আরও কিছু বিশেষ ব্যবস্থার ভাবনায় তারা ৷

First published: March 6, 2020, 3:40 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर