• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • ৫জি নিয়ে কাজ করবে রিলায়েন্স, ট্রাম্পকে জানালেন মুকেশ আম্বানি

৫জি নিয়ে কাজ করবে রিলায়েন্স, ট্রাম্পকে জানালেন মুকেশ আম্বানি

২০১৮ এবং ২০১৯ সালে ভারতের সঙ্গে বাণিজ্য সংক্রান্ত যে বিবাদ ছিল, তা দূরে সরিয়ে এখন কীভাবে চিনকে আরও চাপে ফেলা যায়, এখন সে বিষয়েই জোর দিতে চাইছে আমেরিকা৷ মার্কিন বাণিজ্য প্রতিনিধি রবার্ট লাইটিজার এবং ভারতের বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গয়াল আলোচনার মাধ্যমেই দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য নিয়ে যে সমস্যাগুলি রয়েছে, তা মিটিয়ে ফেলতে উদ্যোগী হয়েছেন৷

২০১৮ এবং ২০১৯ সালে ভারতের সঙ্গে বাণিজ্য সংক্রান্ত যে বিবাদ ছিল, তা দূরে সরিয়ে এখন কীভাবে চিনকে আরও চাপে ফেলা যায়, এখন সে বিষয়েই জোর দিতে চাইছে আমেরিকা৷ মার্কিন বাণিজ্য প্রতিনিধি রবার্ট লাইটিজার এবং ভারতের বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গয়াল আলোচনার মাধ্যমেই দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য নিয়ে যে সমস্যাগুলি রয়েছে, তা মিটিয়ে ফেলতে উদ্যোগী হয়েছেন৷

আমেরিকাতে কতটা বিনিয়োগ করছেন তিনি ? এই প্রশ্নও আম্বানিকে করেন ট্রাম্প ৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: ভোটে জিতলে আর্থিক সংস্কারে আরও গতি। সুফল পাবেন ভারতীয় বিনিয়োগকারীরা। আর ভোটে হারলে থমকে যাবে উন্নয়নের জোয়ার। বাড়বে বেকারত্ব। ভারতীয় শিল্পপতিদের সঙ্গে বৈঠকে দাবি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের।

    ফাইভ জি প্রযুক্তি নিয়ে কী ভাবছে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ ? রিলায়েন্স চেয়ারম্যান মুকেশ আম্বানিকে প্রশ্ন করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ট্রাম্প বলেন, ‘‘ফোর জি নিয়ে আপনারা কাজ করেছেন। আপনারা কি ফাইভ জি নিয়েও কাজ করতে আগ্রহী ?’’ উত্তরে মুকেশ আম্বানি বলেন, হ্যাঁ, আমরা ফাইভ জি নিয়েও কাজ শুরু করব ৷

    মুকেশ আম্বানি এদিন কথা বলতে উঠলেই শুরুতেই ট্রাম্প বলেন, তিনি আম্বানির উপর নজর রাখেন ৷ আমেরিকাতে কতটা বিনিয়োগ করছেন তিনি ? এই প্রশ্নও আম্বানিকে করেন ট্রাম্প ৷ জবাবে মুকেশ আম্বানি বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এখনও পর্যন্ত ৭ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে রিলায়েন্স ৷ তা শুনে খুশিই হন ট্রাম্প ৷

    মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠকে ছিলেন বিড়লা গ্রপ চেয়ারম্যান কুমারমঙ্গলম বিড়লা, আদানি গ্রপ চেয়ারম্যান গৌতম আদানি, টাটা সন্স চেয়ারম্যান এন চন্দ্রশেখরনের বহু কর্পোরেট সংস্থার সিইও’রা। সেখানেই ট্রাম্পের বার্তা, ফের প্রেসিডেন্ট হলে সংস্কারের কাজে আরও গতি আসবে। তবে ভোটে হারলে তৈরি হবে অনিশ্চয়তা। তার মূল্য চোকাতে হবে ভারতীয় সংস্থাগুলিকেও।

    ট্রাম্প বলেন, ‘‘আমি যতদিন ক্ষমতায় আছি, ততক্ষণ সব ঠিকই থাকবে। সংস্কার চলবে। কিন্তু ভুল মানুষকে নির্বাচিত করা হলে সবকিছুই শেষ হয়ে যাবে। সব কাজ থেমে যাবে। বেকারত্বের হার ১০ শতাংশের ওপরে চলে যাবে ৷’’

    শুল্ক কমানো, ভারতীয় পণ্য রফতানির দরজা খোলার আবেদন - মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে এমনই সব আবেদন জানান ভারতীয় বহুজাতিক সংস্থার সিইও-রা। যদিও ট্রাম্প বুঝিয়ে দিয়েছেন, আমেরিকার স্বার্থ সুরক্ষিত করেই ভারতীয় লগ্নি চাইছে মার্কিন প্রশাসন।

    মার্কিন দূতাবাসে শিল্পপতিদের সঙ্গে বৈঠক। সেখানেও ব্যবসায় দ্রুত অনুমোদনের বিষয়টি ওঠে। মার্কিন প্রেসিডেন্টের দাবি, এখন আমেরিকাতে সবচেয়ে দ্রুত ব্যবসার অনুমোদন মেলে।

    Published by:Siddhartha Sarkar
    First published: