• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • M Karunanidhi: লড়াই শেষ! প্রয়াত 'কলাইনর' করুণানিধি

M Karunanidhi: লড়াই শেষ! প্রয়াত 'কলাইনর' করুণানিধি

এম করুণানিধি -- ছবিটি সংগৃহীত

এম করুণানিধি -- ছবিটি সংগৃহীত

সোমবার সকাল থেকেই শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে করুণানিধির৷ চিকিত্‍‌সকরা জানিয়ে দেন, চিকিত্‍‌সায় সাড়া দিচ্ছেন না ডিএমকে সুপ্রিমো৷ মাল্টি-অর্গ্যান ফেলিওর৷

  • Share this:
    #চেন্নাই: লড়াই শেষ৷ ডাক্তারদের শত চেষ্টাতেও শেষরক্ষা হল না৷ প্রয়াত ডিএমকে সুপ্রিমো ও তামিলনাড়ুর প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী এম করুণানিধি৷ তামিলভূমের রাজনীতিতে একটা যুগের অবসান৷ বয়স হয়েছিল ৯৪ বছর৷ গত ২৯ জুলাই শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় চেন্নাইয়ের কাবেরী হাসপাতালে ভর্তি করা হয় করুণানিধিকে৷
    কলাইনর৷ এই নামেই তিনি খ্যাত সমর্থক ও অনুগামীদের মধ্যে৷ কলাইনরের অর্থ 'শিল্পী'৷ আক্ষরিক অর্থেই করুণানিধি তামিলভূমের শিল্পী ছিলেন৷ তামিল ছবির স্ক্রিপ্ট রাইটার হিসেবে জীবন শুরু৷ তামিল সাহিত্যে তাঁর অবদান আজও অবিস্মরণীয়৷ লিখেছেন একাধিক নাটক, উপন্যাস৷ মাত্র ১৪ বছর বয়স থেকে রাজনৈতিক লড়াই শুরু করেন৷ দ্রাবিড় জাতির অন্যতম মুখ হিসেবে উঠে আসেন৷ দ্রাবিড় জাতির অধিকার রক্ষার লড়াই-ই ছিল তাঁর সারা জীবনের সঙ্গী৷ যা ভারতের ইতিহাসে বিখ্যাত  'Dravidian movement'৷ টানা ১০ বার ডিএমকে-র সভাপতি নির্বাচিত হন দ্রাবিড় রাজনীতির এই বর্ষীয়ান নেতা৷ তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রীও হয়েছেন তিনি৷
    সোমবার সকাল থেকেই শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে করুণানিধির৷ চিকিত্‍‌সকরা জানিয়ে দেন, চিকিত্‍‌সায় সাড়া দিচ্ছেন না ডিএমকে সুপ্রিমো৷ মাল্টি-অর্গ্যান ফেলিওর৷ প্রিয় নেতার জন্য কাবেরী হাসপাতালের বাইরে ভিড় সকাল থেকেই ছিল৷ মৃত্যুর খবর পেতেই সেই ভিড়ে ওঠে কান্নার রোল৷ হাতে কলাইনরের ছবি নিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন সমর্থকরা৷ কোনও রকম অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে মোতায়েন করা হয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী৷ ডিএমকে-র শীর্ষ নেতৃত্ব রয়েছেন হাসপাতালে৷ রয়েছেন করুণানিধির পরিবার৷
    মাত্র ৩৩ বছর বয়সেই রাজনৈতিক ক্ষমতায় প্রভাবশালী হতে থাকেন করুণানিধি৷ ১৯৫৭ সালে বিধানসভা নির্বাচনে জয়ী হন তিনি৷ বাকিটা ইতিহাস৷ অনেক বিতর্কও হয়েছে করুণানিধিকে ঘিরে৷ একটা সময় অভিযোগ ওঠে, শ্রীলঙ্কার লিবারেশন টাইগার্স অফ তামিল এলম বা LTTE-র সঙ্গে যোগ রয়েছে তাঁর৷
    তবুও সব কিছুর ঊর্ধ্বে করুণানিধি ছিলেন জননেতা৷ তাঁর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছেন দেশের সব নেতা-নেত্রী৷ এআইএডিএমকে সুপ্রিমো জয়ললিতার মৃত্যুর পর যে কান্না ও শোকের আবহ তৈরি হয়েছিল তামিলনাড়ুতে৷ সেই স্মৃতিই ফিরল করুণানিধির মৃত্যুতে৷
    দক্ষিণী রাজনীতি বড়ই আবেগের৷ সেই কারণেই বোধ হয় একটু আলাদা৷
    কান্না ও প্রার্থনায় করুণানিধি-ভক্তদের
    First published: