Delhi Elections 2020: হিংসা উস্কানিমূলক মন্তব্য! বিজেপি-র অনুরাগ ঠাকুর ও প্রবেশ ভার্মাকে প্রচারে ব্যান করল কমিশন

Delhi Elections 2020: হিংসা উস্কানিমূলক মন্তব্য! বিজেপি-র অনুরাগ ঠাকুর ও প্রবেশ ভার্মাকে প্রচারে ব্যান করল কমিশন
কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর

নির্বাচনী সভায় 'দেশ কে গদ্দারোঁ কো, গুলি মারো শালোঁ কো...,' স্লোগানের জন্য কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুরকে মঙ্গলবারই নোটিস পাঠায় নির্বাচন কমিশন৷ কমিশন জানিয়েছে, বিজেপি নেতার সভায় ওই স্লোগান নির্বাচনী নিয়ম লঙ্ঘন করেছে৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: হিংসায় উস্কানিমূলক মন্তব্য করার অপরাধে কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর ও বিজেপি সাংসদ প্রবেশ ভার্মাকে বিজেপি-র তারকা প্রচারকের তালিকায় ব্যান করল নির্বাচন কমিশন৷ দিল্লি ভোটের প্রচারে দু জনের বিরুদ্ধেই অভিযোগ, তাঁরা হিংসায় উস্কানি দিচ্ছেন৷

নির্বাচনী সভায় 'দেশ কে গদ্দারোঁ কো, গুলি মারো শালোঁ কো...,' স্লোগানের জন্য কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুরকে মঙ্গলবারই নোটিস পাঠায় নির্বাচন কমিশন৷ কমিশন জানিয়েছে, বিজেপি নেতার সভায় ওই স্লোগান নির্বাচনী নিয়ম লঙ্ঘন করেছে৷

অনুরাগ ঠাকুর ছাড়াও কমিশনের নোটিস যায় আরেক বিজেপি সাংসদ প্রবেশ ভার্মার কাছেও৷ প্রবেশ শাহিনবাগ নিয়ে খোলাখুলি হুমকি দিয়েছেন, বিজেপি দিল্লিতে ক্ষমতায় এলে ১ ঘণ্টায় শাহিনবাগ সাফ করে দেবে৷ সরকারি জমিতে তৈরি হওয়া মসজিদগুলি সব ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হবে৷

সোমবার দিল্লিতে বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারে গিয়ে উস্কানিমূলক স্লোগান দেওয়া অভিযোগ ওঠে অনুরাগ ঠাকুরের বিরুদ্ধে৷ দিল্লির রিঠালার সভায় অনুরাগ স্লোগান তুললেন, 'দেশ কে গদ্দারোঁ কো, গোলি মারো শালোঁ কো৷' যখনই অনুরাগ স্লোগান দিচ্ছেন, 'দেশ কে গদ্দারোঁ কো...৷' তখনই সভার জনতার থেকে পাল্টা চিত্‍কার আসছে, 'গোলি মারো শালোঁ কো৷' ওই জায়গাতেই পরে অনুরাগ ঠাকুর ও আরেক কেন্দ্রীয়মন্ত্রী গিরিরাজ সিং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে সভায় যোগ দেন৷

প্রবেশ ভার্মা পশ্চিম দিল্লির বিজেপি সাংসদ৷ খোলাখুলি হুমকি দিয়েছেন, দিল্লিতে বিজেপি ক্ষমতায় এলে শাহিনবাগের বিক্ষোভ সাফ করে দিতে মাত্র ১ ঘণ্টা লাগবে৷ সরকারি জমিতে যত মসজিদ রয়েছে, সব এক মাসের মধ্যে ধ্বংস করে দেওয়া হবে বলেও হুমকি ওই বিজেপি নেতার৷

দিল্লি নির্বাচনের প্রচারে প্রবেশ বলেন, '১১ ফেব্রুয়ারি যদি বিজেপি ক্ষমতায় আসে, ১ ঘণ্টার মধ্যে শাহিনবাগের আন্দোলন সাফ করে দেব৷ একটি লোককে দেখা যাবে না৷' এখানেই থামেননি প্রবেশ৷ দিল্লির বিজেপি সাংসদের কথায়, 'কয়েক লক্ষ মানুষ শাহিনবাগে জড়ো হয়েছেন৷ দিল্লিবাসীকে খুব ভেবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে৷ ওরা কিন্তু বাড়িতে ঢুকে বাড়ির বোন, মেয়েদের ধর্ষণ করবে৷ এখনই মেরে ফেলুন৷ এটাই সময়৷ এরপর কিছু হলে, মোদিজি, অমিত শাহ কাল কিন্তু বাঁচাতে আসবেন না৷'

First published: January 29, 2020, 1:48 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर