corona virus btn
corona virus btn
Loading

Kanhaiya Kumar| 'দেশদ্রোহিতার মামলা এখন প্রসাদের মতো ফ্রি-তে বিলি হচ্ছে,' তীব্র কটাক্ষ কানহাইয়ার

Kanhaiya Kumar| 'দেশদ্রোহিতার মামলা এখন প্রসাদের মতো ফ্রি-তে বিলি হচ্ছে,' তীব্র কটাক্ষ কানহাইয়ার
কানহাইয়া কুমার

কানহাইয়ার অভিযোগ, সংসদ ও বিধানসভার সদস্য হলে কোনও ব্যক্তি সারা জীবন মোটা টাকা পেনশন পাচ্ছেন, আর সরকারি কর্মীরা সারা জীবন চাকরি করে পাচ্ছেন অবসর পরবর্তী টাকা অনিয়মিত ভাবে৷ এটা ঠিক নয়৷

  • Share this:

#কাটিহার: দেশদ্রোহিতার মামলা নিয়ে বিজেপি-কে আক্রমণ করলেন সিপিআই নেতা কানহাইয়া কুমার৷ শুক্রবার কাটিহারে সিএএ, এনআরসি বিরোধী জনসভায় কানহাইয়ার কটাক্ষ, 'এখন দেশদ্রোহিতার মামলা প্রসাদের মতো বিলি করা হচ্ছে৷ যাকে পারছে দেশদ্রোহিতার মামলা ঠুকে দেওয়া হচ্ছে৷'

প্রাক্তন জেএনইউ নেতা কানহাইয়ার বিরুদ্ধেও বছর চারেক আগে দেশদ্রোহিতার মামলা দায়ের করা হয়েছিল৷ সম্প্রতি জম্মু-কাশ্মীরের ডেপুটি সুপার দেবেন্দ্র সিং গ্রেফতারির প্রসঙ্গে টেনে এ দিন কানহাইয়া বলেন, 'দেশদ্রোহিতার মামলা এখন প্রসাদের মতো ফ্রি-তে বিলি করা হচ্ছে৷ সমাজকর্মীদের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার মমলা হয়েছে, একটি নাটকের আয়োজন করায় কর্নাটকে স্কুল পড়ুয়াদের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার মামলা হয়েছে৷ সম্প্রতি জঙ্গিদের সঙ্গে যে পুলিশ অফিসারকে গ্রেফতার করা হল, তাঁর বিরুদ্ধেও শীঘ্রই দেশদ্রোহিতার মামলা হবে৷'

গেরুয়া শিবিরকে কটাক্ষ করে কানহাইয়ার কথায়, 'এই গডসেবাদী দাঙ্গাবাজরা যুবকদের হাতে বন্দুক তুলে দিচ্ছে৷ আর অমিত শাহ তাঁর ছেলেকে বিসিসিআই সচিব বানিয়ে দিয়েছেন৷ গদিতে বসে থাকা নেতারা ছেলে-মেয়েদের অক্সফোর্ডে পড়াতে পাঠাচ্ছে, আর দেশের সাধারণ যুবক-যুবতীদের এমন এক সিস্টেমের মধ্যে ফেলে রাখা হয়েছে, যেখানে একটি ৩ বছরের ডিগ্রি কোর্স শেষ করতে ৫ বছর সময় নিয়ে নিচ্ছে৷'

কানহাইয়ার অভিযোগ, সংসদ ও বিধানসভার সদস্য হলে কোনও ব্যক্তি সারা জীবন মোটা টাকা পেনশন পাচ্ছেন, আর সরকারি কর্মীরা সারা জীবন চাকরি করে পাচ্ছেন অবসর পরবর্তী টাকা অনিয়মিত ভাবে৷ এটা ঠিক নয়৷ তাঁর কথায়, '৪০ বছর বয়সেও আমাকে অনেকে ছাত্র বলতে পারেন৷ বিষয়টা পরিষ্কার করি, আমি আর জেএনইউ-র ছাত্র নয়৷ পিএইচডি শেষ হয়ে গিয়েছে৷ আমার এখন বয়স ৩৫৷ কিন্তু সমস্যা হল, আমার বিজেপি সমর্থক বন্ধুরা মোদির প্রেমে পড়ে গিয়েছেন৷ আর প্রেম তো অন্ধ৷ সত্যি-মিথ্যে চোখে পড়ে না৷ অমিত শাহ বলছেন, রিফিউজিদের নাগরিকত্ব দিতেই সিএএ আনা হয়েছে৷ এটা সম্পূর্ণ মিথ্যে কথা৷ বর্তমানে যে আইন রয়েছে, তাতেও ভারতীয় নাগরিকত্ব পেতে একই কথা বলা আছে৷ আসলে এই সব এনআরসি লাগু করার ফন্দি৷ অসমে সুপ্রিম কোর্টের রায়ে এনআরসি হয়েছে৷ কিন্তু বিজেপি-র কাছে তা রাজনৈতিক ভাবে বুমেরাং হয়েছে৷'

তিনি বলেন, 'কিছু খবরের চ্যানেলও এই হিন্দু বনাম মুসলিম খেলার অংশীদার হয়ে গিয়েছে৷ আরে অযোধ্যায় রাম মন্দির হচ্ছে ঠিক আছে, কিন্তু মানুষের দৈনন্দিন সমস্যাগুলিরও তো কভারেজ দরকার৷'

Published by: Arindam Gupta
First published: February 8, 2020, 8:56 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर