৩৬ ঘণ্টা পর অবশেষে খোঁজ মিলল CCD-র কর্ণধার ‘কফি কিং’ ভিজি সিদ্ধার্থের

সোমবার সন্ধে থেকেই রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ ছিলেন সিদ্ধার্থ ৷ ভারতের প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী এসএম কৃষ্ণর জামাই সিদ্ধার্থকে শেষবার দেখা গিয়েছিল বেঙ্গালুরু থেকে ৩৭৫ কিমি দূরে ম্যাঙ্গালোরের নেত্রবতী নদীর ব্রিজে৷

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Jul 31, 2019 09:10 AM IST
৩৬ ঘণ্টা পর অবশেষে খোঁজ মিলল CCD-র কর্ণধার ‘কফি কিং’ ভিজি সিদ্ধার্থের
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Jul 31, 2019 09:10 AM IST

#বেঙ্গালুরু: নিখোঁজ হওয়ার ৩৬ ঘণ্টা কেটে যাওয়ার পর অবশেষে খোঁজ পাওয়া গেল ক্যাফে কফি ডে-র কর্ণধার ‘কফি কিং’ ভিডি সিদ্ধার্থের ৷ বুধবার সকালে নেত্রাবতী নদী থেকে উদ্ধার হয় তাঁর নিথর দেহ ৷

সোমবার সন্ধে থেকেই রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ ছিলেন সিদ্ধার্থ ৷ ভারতের প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী এসএম কৃষ্ণর জামাই সিদ্ধার্থকে শেষবার দেখা গিয়েছিল বেঙ্গালুরু থেকে ৩৭৫ কিমি দূরে ম্যাঙ্গালোরের নেত্রবতী নদীর ব্রিজে৷ সিদ্ধার্থর গাড়ির চালক পুলিশকে জানান, ব্রিজে গাড়ি থামাতে বলে সিদ্ধার্থ নেমে যান৷ তারপর আর ফেরেননি৷ তাঁর হদিশও পাওয়া যায়নি৷ ফোনও সুইচড অফ ছিল৷ গাড়ি থেকে নামার সময় তিনি ফোনে কথা বলছিলেন ৷ ঘণ্টা দেড়েক কেটে যাওয়ার পরেও তিনি না ফিরে আসায় চালক খোঁজাখুঁজি শুরু করেন ৷ কিন্তু খুঁজে পাননি ৷

এরপরেই নেত্রবতী নদীতে ডুবুরি নামিয়ে ও হেলিকপ্টারের মাধ্যমে শুরু হয় জোরদার তল্লাশি ৷ ৩৬ ঘণ্টা পর অবশেষে উদ্ধার হয় দেহ ৷

সিদ্ধার্থের সঙ্গে এসএম কৃষ্ণর বড় মেয়ে মালবিকার বিয়ে হয়েছিল৷ তাঁদের দু’টি ছেলেও আছে৷ ক্যাফে কফি ডে ছাড়াও একটি হসপিটালিটি চেন রয়েছে তাঁর৷ ১৯৯০ সালে ক্যাফে কফি ডে নামে একটি ছোট ক্যাফে খোলেন তিনি৷ বর্তমানে যা আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড৷ ১০ হাজার কর্মী সারা দেশে কাজ করেন ক্যাফে কফি ডে-তে৷ কেন হঠাৎ প্রতিষ্ঠিত, সফল ব্যবসায়ী বলে পরিচিত সিদ্ধার্থ আত্মহত্যা করতে গেলেন ৷ তদন্ত করতে নেমে সিদ্ধার্থর গাড়ি থেকে একটি সুইসাইড নোট পায় পুলিশ ৷ তাতে লেখা, ‘‘অনেক চেষ্টা করেও লাভজনক একটি ব্যবসার মডেল তৈরি করতে পারলাম না৷ আমি ব্যর্থ৷ অনেক মানুষের বিশ্বাস ভঙ্গ করার জন্য আমায় ক্ষমা করবেন৷’’ চিঠিতে আরও লেখা, ‘‘আমি আমার সর্বস্ব দিয়ে চেষ্টা করেছি৷ অনেক দিন ধরে লড়াই করেছি৷ কিন্তু আজ আমি ছেড়ে দিলাম৷ আমার প্রাইভেট ইক্যুইটি পার্টনারদের মধ্যে একজন আমায় ক্রমাগত শেয়ার বিক্রির জন্য চাপ দিচ্ছে৷ সেই চাপ আর নিতে পারছি না৷ আপনাদের প্রত্যেকের কাছে আমার অনুরোধ, নতুন ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে এই ব্যবসাকে এগিয়ে নিয়ে যান৷ শক্ত থাকুন৷ আমার টিম, অডিটর ও সিনিয়র ম্যানেজমেন্ট আমার আর্থিক লেনদেনের বিষয়ে কিছু জানেন না৷ এই তথ্যগুলি আমি কারও সঙ্গে কোনও দিনও শেয়ার করিনি, এমনকী পরিবারের সঙ্গেও নয়৷ কিন্তু কাউকে ঠকানোর কোনও ইচ্ছে বা উদ্দেশ্য আমার ছিল না৷ একজন উদ্যোগপতি হিসেবে আমি ব্যর্থ৷’’

First published: 09:10:00 AM Jul 31, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर