• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • UP Assembly Election: ভয়ংকর হচ্ছে ওমিক্রন, পিছিয়ে যাবে উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা নির্বাচন? খোদ আদালতের আর্জি!

UP Assembly Election: ভয়ংকর হচ্ছে ওমিক্রন, পিছিয়ে যাবে উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা নির্বাচন? খোদ আদালতের আর্জি!

পিছিয়ে যাবে নির্বাচন?

পিছিয়ে যাবে নির্বাচন?

UP Assembly Election: ওমিক্রন আবহে করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার আশঙ্কায় বিশেষজ্ঞরা। উল্টোপিঠে আসন্ন উত্তরপ্রদেশ নির্বাচনকে ঘিরে জোর কদমে চলছে প্রচার। সেই সূত্রেই এবার নড়েচড়ে বসল এলাহাবাদ হাই কোর্ট।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: চলতি বছর করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় দেশের বিভিন্ন রাজ্যে নির্বাচনকে ঘিরে বিভিন্ন আদালতের রোষানলে পড়তে হয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার ও জাতীয় নির্বাচন কমিশনকে। করোনার প্রবল দাপটের মধ্যে কেন প্রচার, সভা করে ভোট করার প্রয়োজন হল, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এবার দেশে থাবা বসিয়েছে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট। দেশে ইতিমধ্যেই সাড়ে ৩০০-র গণ্ডি পার করেছে ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা৷ এই আবহে করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার আশঙ্কায় বিশেষজ্ঞরা। উল্টোপিঠে আসন্ন উত্তরপ্রদেশ নির্বাচনকে ঘিরে জোর কদমে চলছে প্রচার। সেই সূত্রেই এবার নড়েচড়ে বসল এলাহাবাদ হাই কোর্ট।

    ইতিমধ্যেই উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা নির্বাচনকে ঘিরে চলা প্রচার সভার উপর নিষেধাজ্ঞার আবেদন জানিয়েছে এলাহাবাদ হাইকোর্ট৷ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও জাতীয় নির্বাচন কমিশনের কাছে আদালতের আবেদন, এখনই জনসভা, মিছিল নিষিদ্ধ করা হোক উত্তরপ্রদেশে৷ এমনকী সে রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়ার আর্জিও জানিয়েছে আদালত৷

    আরও পড়ুন: বড়দিনে দার্জিলিংয়ে ঠাসা ভিড়, হঠাৎ পুলিশি হানায় যা মিলল, চক্ষু চড়কগাছ সকলের!

    প্রসঙ্গত, ২০২৪-এর লোকসভা নির্বাচনের দিকে নজর দিয়ে উত্তরপ্রদেশ জিততে কোমর বেধে নেমেছে বিজেপি। নির্বাচনের আগে জনকল্যাণমূলক নানা প্রকল্প উদ্বোধন বা সেগুলির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করতে বারবার উত্তরপ্রদেশে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেই উপলক্ষ্যে প্রচুর মানুষের সমাগম হচ্ছে। যেখানে কোনও রকম কোভিড বিধি মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগ। এমনকী খুব অল্প সংখ্যক মানুষের মুখেই দেখা মিলেছে মাস্কের৷ এই আবহে দেশে ওমিক্রনের সংখ্যা বাড়ছে। যা দেখে রীতিমতো আশঙ্কায় বিশেষজ্ঞরা।

    আরও পড়ুন: ওমিক্রনের বিপদ! আতঙ্ক নয়, মোদির মন্ত্র সাবধানতা ও সতর্কতা

    বৃহস্পতিবারই ওমিক্রন সংক্রান্ত এক জরুরি বৈঠকে বসেছিলেন নরেন্দ্র মোদি। সেই বৈঠকেই সরকারি আধিকারিকদের কোমর বেধে কাজে নামার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। এই পরিস্থিতিতে মোদির সরকার ও জাতীয় নির্বাচন কমিশনের কাছেই আর্জি জানাল এলাহাবাদ হাইকোর্ট। বিচারপতি শেখর যাদব এই প্রসঙ্গে বলেছেন, ''যদি ভোটের জন্য মিছিল বন্ধ না করা হয়, তাহলে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের থেকেও খারাপ অবস্থা হবে৷ জীবন থাকলে, পৃথিবীও থাকবে৷'' এই পরিস্থিতিতে উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা নির্বাচন কি পিছিয়ে যাবে? আশা-আশঙ্কার দোলাচলে অনেকেই।

    Published by:Suman Biswas
    First published: