Home /News /national /
Engineer Becomes Cycle Thief: করোনা কেড়েছে বাবাকে, চাকরিও নেই, সময়ের ফেরে ইঞ্জিনিয়ার এখন বাইসাইকেল চোর

Engineer Becomes Cycle Thief: করোনা কেড়েছে বাবাকে, চাকরিও নেই, সময়ের ফেরে ইঞ্জিনিয়ার এখন বাইসাইকেল চোর

পুলিশ তদন্তে নেমে জানতে পারে যে তিনি আর্মি ক্যান্টনমেন্টেও সেই চোরাই সাইকেল বিক্রি করেছেন।

  • Share this:

#আহমেদাবাদ: করোনাতে নিজের বাবাকে হারিয়ে ও চাকরি খুইয়ে আহমেদাবাদের তরুণ ইঞ্জিনিয়ার হলেন সাইকেল চোর। করোনা মহামারী শতাধিক মানুষের প্রাণ কেড়েছে, এক লক্ষেরও বেশি মানুষ তাদের চাকরি খুইয়েছে। করোনা মহামারী সকলকে ঠেলে দিয়েছে এক গভীর অনিশ্চয়তার সামনে। কেউ নিজের আপনজনকে হারিয়েছে, আবার কেউ নিজের চাকরি হারিয়েছে। বর্তমান পরিস্তিতিতে সর্বত্র এই একই চিত্র। এর মধ্যেই একটি অতি আশ্চর্যজনক ঘটনা সকলের সামনে এসেছে। আহমেদাবাদের এক তরুণ ইঞ্জিনিয়ার করোনা মহামারীতে তাঁর বাবাকে হারিয়েছেন। এর পর সেই তরুণ তাঁর চাকরিটিও হারিয়েছেন। এর ফলে সংসার চালানোর জন্য তিনি বেছে নিয়েছে সাইকেল চুরির পেশা। তিনি দামী দামী সব বাইসাইকেল চুরি করে তার পর সেগুলো কম দামে বিক্রি করে দিতেন। পুলিশ তদন্তে নেমে জানতে পারে যে তিনি আর্মি ক্যান্টনমেন্টেও সেই চোরাই সাইকেল বিক্রি করেছেন।

আনমোল দুগাল (Anmol Duggal) নামের সেই ইঞ্জিনিয়ারকে পুলিশ ইতিমধ্যেই গ্রেপ্তার করেছে। পুলিশের কাছে সেই তরুণ স্বীকার করেছেন যে বাবা করোনাতে মারা যাওয়ার পর তাঁর চাকরিটাও চলে গেলে তিনি চুরির এই পথ বেছে নেন। সংসার চালানোর জন্য তিনি বেশি দামের সাইকেল চুরি করে কম দামে বিক্রি করে দিতেন। ২০ হাজার টাকার সাইকেল তিনি ৫ থেকে ৭ হাজার টাকায় বিক্রি করে দিতেন।

পুলিশ জানতে পেরেছে যে সেই তরুণ আদতে দিল্লির বাসিন্দা, পেশায় আইটি ইঞ্জিনিয়ার। বাবা করোনাতে মারা যাওয়ার পর তাঁর পরিবারে একমাত্র তিনিই ছিলেন ভরসা। তাই চাকরি হারিয়ে সেই তরুণ এই চুরির পথই বেছে নেন। এই তরুণ ইঞ্জিনিয়ারের দলে আর কেউ আছে কি না, পুলিশ তার তদন্ত করছে। এর সঙ্গে অন্য কোনও পাচার চক্রের যোগ রয়েছে কি না পুলিশ সেই বিষয়েও তদন্ত শুরু করেছে।

আরও পড়ুন-  লাগবে না ড্রাইভিং লাইসেন্স, মাত্র ৭ টাকায় ১০০ কিমি ছুটবে সাধের বাইক! কিনবেন নাকি

প্রসঙ্গত কিছু দিন আগে এমনই একটা ঘটনা ঘটেছিল ম্যাঙ্গালুরুতে। ২৯ অগাস্ট সেখানকার পুলিশ ৩ জন বাইসাইকেল চোরকে গ্রেপ্তার করে। তাঁরা একজন পুলিশ ইন্সপেক্টরের বাড়ি থেকে বাইসাইকেল চুরি করেন। পুলিশ সিসিটিভি ফুটেজ দেখে তাঁদের গ্রেপ্তার করে। সেই ৩ জন হলেন ৩০ বছরের হনুমন্ত (Hanumantha), ২৯ বছরের মঞ্জুরাজ (Manjuraj), ৬৬ বছরের শঙ্কর শেঠি (Shankar Shetty)। তাঁদের বাড়ি থেকে ৯টি বাইসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে, যার বাজারদর প্রায় ১.৫ লক্ষ টাকার মতো।

Published by:Suman Majumder
First published:

Tags: COVID-19, Engineer, Thief