Home /News /national /
SpiceJet || ১৮ দিনে ৮ বার বিমান বিভ্রাট, স্পাইসজেটকে নোটিশ পাঠাল ডিজিসিএ

SpiceJet || ১৮ দিনে ৮ বার বিমান বিভ্রাট, স্পাইসজেটকে নোটিশ পাঠাল ডিজিসিএ

SpiceJet || কেন্দ্রীয় অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রী জ্যোতিরাদিত্য এম সিন্ধিয়াও (Civil Aviation Minister Jyotiraditya M Scindia) ডিজিসিএ বিজ্ঞপ্তির একটি কপি ট্যুইট করেছেন। তিনি লিখেছেন, "যাত্রীদের নিরাপত্তা সর্বাগ্রে। নিরাপত্তাকে বাধা দেওয়া ক্ষুদ্রতম ত্রুটিটিও পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে তদন্ত করা হবে এবং অবশ্যই সংশোধন করা হবে।"

আরও পড়ুন...
  • Share this:

বেশ কয়েকদিন ধরেই যান্ত্রিক গোলযোগের সম্মুখীন হচ্ছে স্পাইসজেটের (SpiceJet) বিমান। গত ১৮ দিনে ৮টি গোলযোগের ঘটনা ঘটেছে বেসরকারি বিমান পরিবহণ সংস্থা স্পাইসজেটের উড়ানে। আর সেই কারণে তাদের কারণ দর্শানোর নোটিশ (Show Cause Notice) পাঠাল ডিরেক্টরেট জেনারেল অফ সিভিল এভিয়েশন (Directorate General of Civil Aviation) বা ডিজিসিএ (DGCA)। প্রাথমিকভাবে ডিজিসি মনে করছে, বিমানের রক্ষণাবেক্ষণে গাফিলতি থাকছে। নিরাপত্তার দিকটিতেও অসতর্কতা রয়েছে। যার জন্যই বার বার বিভ্রাটের মুখে পড়ছে স্পাইসজেটের বিমান। এই এয়ারলাইন কীভাবে কাজ করছে সে সম্পর্কে বড় ফাঁক খুঁজে পেয়েছে ডিজিসিএ। তার মধ্যে রয়েছে সুরক্ষায় ফাঁক (Degraded Safety Margins), ভেন্ডরদের সময়মতো অর্থ প্রদান না করা, স্পাইসজেট ফ্লিটের খুচরা যন্ত্রাংশের ঘাটতি ইত্যাদি।

আরও পড়ুন- শিয়ালদহ মেট্রো স্টেশন চালুর জন্য ফের মিলল কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটির অনুমতি 

সরকারের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে যে স্পাইসজেট তার বিমানবহর এমইএল (MEL) বা ন্যূনতম সরঞ্জাম তালিকায় (Minimum Equipment List) চালাচ্ছে, যার অর্থ বিমানগুলিকে উড়তে নিরাপদ বলে মনে করা হচ্ছে ঠিকই, তবে সমস্ত সিস্টেম কার্যকর হয় না সেখানে। মঙ্গলবার চিনের (China) পথে রওনা হওয়ার পর স্পাইসজেটের কার্গো বিমান (SpiceJet Cargo Plane) কলকাতা বিমানবন্দরে ফিরে আসে। জানা গিয়েছে, বিমানের ওয়েদার রাডার কাজ করছিল না। সেই কারণেই বিমানটিকে ফিরিয়ে আনা হয়। ডিজিসিএ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে, "এটি লক্ষ্য করা গিয়েছে যে বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে বিমান ওড়ার পর বিমানবন্দরে ফিরে এসেছে বা নিরাপত্তার ঘাটতি নিয়েই গন্তব্যে অবতরণ করেছে। পর্যালোচনায় দুর্বল অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা তদারকি এবং অপর্যাপ্ত রক্ষণাবেক্ষণের (যেহেতু বেশিরভাগ ঘটনা যন্ত্রাংশ বা সিস্টেম সম্পর্কিত সমস্যার সঙ্গে সম্পর্কিত) বিষয়টি সামনে এসেছে।"

ডিজিসিএ আরও বলেছে, "এছাড়াও ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে আর্থিক মূল্যায়ন (Financial Assessment) থেকে আরও জানা গিয়েছে যে এয়ারলাইন ক্যাশ অ্যান্ড ক্যারিতে কাজ করছে। সরবরাহকারী/অনুমোদিত ভেন্ডারদের নিয়মিতভাবে পেমেন্ট করা হচ্ছে না, যার ফলে অতিরিক্ত জিনিসপত্রের ঘাটতি দেখা দিয়েছে। এটি অনুমান করা যেতে পারে যে স্পাইসজেট লিমিটেড একটি নিরাপদ, দক্ষ এবং নির্ভরযোগ্য বিমান পরিষেবা দিতে ব্যর্থ হয়েছে।"

কেন্দ্রীয় অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রী জ্যোতিরাদিত্য এম সিন্ধিয়াও (Civil Aviation Minister Jyotiraditya M Scindia) ডিজিসিএ বিজ্ঞপ্তির একটি কপি ট্যুইট করেছেন। তিনি লিখেছেন, "যাত্রীদের নিরাপত্তা সর্বাগ্রে। নিরাপত্তাকে বাধা দেওয়া ক্ষুদ্রতম ত্রুটিটিও পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে তদন্ত করা হবে এবং অবশ্যই সংশোধন করা হবে।"

Published by:Rachana Majumder
First published:

Tags: SpiceJet

পরবর্তী খবর