Nirbhaya Case: আসামিদের ফাঁসির তোড়জোড়, রাষ্ট্রপতির কাছেও আর্জি জানাল না ওরা

Nirbhaya Case:  আসামিদের ফাঁসির তোড়জোড়, রাষ্ট্রপতির কাছেও আর্জি জানাল না ওরা
নির্ভয়া কাণ্ড

রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আর্জি না-জানালে নির্ভয়া কাণ্ডে দোষী ওই ৪ আসামির ফাঁসির তোড়জোড় শুরু করে দেবে জেল কর্তৃপক্ষ৷ নির্ভয়া কাণ্ডের প্রধান দোষী রাম সিং কারাগারেই গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছিল।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: নির্ভয়া গণধর্ষণ মামলায় নতুন মোড়৷ ২০১২ সালের ডিসেম্বরে দিল্লির সেই নৃশংস গণধর্ষণ ও খুনের মামলায় আসামিদের ফাঁসি এ বার শুধু সময়ের অপেক্ষা? তিহার জেল ও মাণ্ডোলি জেলে বন্দি আসামিরা রাষ্ট্রপতির কাছেও প্রাণভিক্ষার আর্জি জানাল না৷ সুপ্রিম কোর্টেও তারা ফাঁসির সাজা মকুবের আর্জি জানাতে রাজি হয়নি৷ সূত্রের খবর, প্রাণভিক্ষার আর্জি জানানোর সময়সীমা এ বার শেষের পথে৷

রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আর্জি না-জানালে নির্ভয়া কাণ্ডে দোষী ওই ৪ আসামির ফাঁসির তোড়জোড় শুরু করে দেবে জেল কর্তৃপক্ষ৷ নির্ভয়া কাণ্ডের প্রধান দোষী রাম সিং কারাগারেই গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছিল। নির্ভয়া-কাণ্ডে দোষীরা মৃত্যুদণ্ডের রায়ের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ জানাতে পারত সুপ্রিম কোর্টে৷ প্রাণভিক্ষার আর্জি জানাতে পারত সরাসরি রাষ্ট্রপতির কাছে। কিন্তু কেউই কোনও পদক্ষেপই নেয়নি।

তিহাড় জেলের ডিরেক্টর জেনারেল সন্দীপ গোয়েল জানিয়েছেন, নির্ভয়া কাণ্ডে ফাঁসির সাজা পাওয়া চার জনের মধ্যে তিন জন তিহাড় জেলে রয়েছে। চতুর্থ জন রয়েছে মাণ্ডোলি জেলে৷ চার জনকেই নিম্ন আদালত ফাঁসির সাজা দিয়েছে। হাইকোর্ট এবং সুপ্রিম কোর্টও সিলমোহর দিয়েছে সেই সিদ্ধান্তে। এই অবস্থায় চার জনই ফাঁসির সাজা রদ করার আবেদন করতে পারত৷ জেল তাদের এ বিষয়ে জানিয়েছিল৷ কিন্তু তারা মৃত্যুদণ্ডের সাজা মকুবের আবেদন করেনি৷

২০১২ সালের ১৬ ডিসেম্বর রাতে দিল্লিতে মুনিরকা এলাকায় চলন্ত বাসের ভিতরে ২৩ বছর বয়সি প্যারামেডিক্যাল ছাত্রীকে গণধর্ষণ করে ছয় দুষ্কৃতী। মারা যান ওই ছাত্রী। বিচারে দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পরে অভিযুক্তদের মধ্যে পাঁচ জনের ফাঁসির আদেশ দেয় আদালত। এক দুষ্কৃতী নাবালক হওয়ার কারণে জুভেনাইল হোমে বন্দি থাকার পরে মুক্তি পায়। বাকি পাঁচ জনের মধ্যে প্রধান অভিযুক্ত রাম সিং জেলের ভিতরে আত্মহত্যা করে।

আরও ভিডিও: একনজরে নির্মম 'নির্ভয়া' কাণ্ডের টাইমলাইন

First published: November 5, 2019, 10:54 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर