Home /News /local-18 /
Bangla News: কফিনবন্দি হয়ে ফিরল পর্যটকদের দেহ, ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার কথা শোনালেন বেঁচে ফেরা যাত্রীরা

Bangla News: কফিনবন্দি হয়ে ফিরল পর্যটকদের দেহ, ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার কথা শোনালেন বেঁচে ফেরা যাত্রীরা

দুর্ঘটনার কবলে থেকে বেঁচে ফেরা পর্যটক দীপান্বিতা ঘটক।

দুর্ঘটনার কবলে থেকে বেঁচে ফেরা পর্যটক দীপান্বিতা ঘটক।

দুর্ঘটনার কবলে পড়ে পর্যটকদের তৃতীয় গাড়িটি৷ এরপরেই গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গভীর খাদে পড়ে যায়৷

  • Share this:

    #দুর্গাপুর: উত্তরাখণ্ডে ঘুরতে গিয়ে মৃত্যু হয়েছে পাঁচ পর্যটকের। দুর্গাপুর - আসানসোল - রাণীগঞ্জ মিলিয়ে মোট পাঁচ যাত্রীর মৃত্যু হয়েছে দুর্ঘটনার জেরে। গাড়ি গভীর খাদে পড়ে যাওয়ার ফলে আহত হয়েছেন অনেকে (Uttarakhand accident)। গুরুতর আহত অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন এখনও সাত জন। শনিবার বিকেলে রাজ্যে নিয়ে আসা হয়েছে সেই দেহগুলি। রাজ্যের দুই মন্ত্রী মলয় ঘটক এবং অরূপ বিশ্বাসের সহযোগিতায় মরদেহগুলি তুলে দেওয়া হয়েছে পরিবারের হাতে।

    মৃতদেহগুলি আসার পর ফের কান্নার রোল উঠেছে তাদের আত্মীয় পরিজনদের মধ্যে। এলাকায় গভীর শোকের ছায়া। দুর্ঘটনার (Uttarakhand accident) হাত থেকে বেঁচে ফেরা পর্যটকরা জানিয়েছেন ভয়াবহ দুর্ঘটনার অভিজ্ঞতা। যা শুনলে গা শিউরে উঠবে। দুর্ঘটনার হাত থেকে বেঁচে ফেরা পর্যটকরা কার্যত নতুন জীবন পেয়েছেন। কিন্তু পরিজনদের হারিয়ে তারাও গভীর শোকে আচ্ছন্ন।

    দুর্ঘটনার হাত থেকে বেঁচে ফেরা পর্যটকদের থেকে জানা যাচ্ছে, ঘটনাটি ঘটে বুধবার বেলা ১ টা নাগাদ। উত্তরাখণ্ড রাজ্যের বাগেশ্বর জেলার কাপকোট থানার শ্যামা গ্রাম লাগোয়া এলাকায় হয় দুর্ঘটনাটি (Uttarakhand accident)৷ বুধবার ওই পর্যটকদের দলটি তিনটি গাড়িতে করে মুন্সিয়ারি থেকে কৌশানীর দিকে যাত্রা করেছিল ৷ পথে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে পর্যটকদের তৃতীয় গাড়িটি৷ এরপরেই গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গভীর খাদে পড়ে যায়৷ ওই গাড়িটিতে চালক সহ মোট ১২ জন আরোহী ছিলেন ৷ ঘটনাস্থলেই ৫ জনের মৃত্যু হয়। ৭ জন গুরুতর জখম অবস্থায় বাগেশ্বর জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন৷ তবে বাগেশ্বরের জেলা প্রশাসন ও পুলিশ সূত্রে খবর, খাদে পড়ে যাওয়া গাড়িটি থেকে ১২ জনকেই উদ্ধার করা হয়েছে৷ জানা যাচ্ছে, বাগেশ্বর জেলা হাসপাতালে ভর্তি ৪ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

    সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে রাজ্যের মন্ত্রী তথা আসানসোলের বিধায়ক মলয় ঘটক জানিয়েছেন, উত্তরাখণ্ডের দুর্ঘটনায় মৃতদেহগুলি ফিরিয়ে আনার বিষয়ে রাজ্য সরকার পুরোপুরি সচেষ্ট হয়েছিল। দুর্ঘটনাগ্রস্ত জায়গা থেকে দেহগুলি রাজ্য সরকারের প্রচেষ্টায় ফিরিয়ে আনা হয়েছে। কলকাতায় দেহগুলি নিয়ে আসা হয় প্রথমে। তারপর দুর্গাপুর, রানীগঞ্জ এবং আসানসোলের বাড়িতে, তাদের পরিজনদের হাতে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে দেহগুলি।

    যদিও পর্যটকদলটির আগামী ৩০ অক্টোবর ফেরার টিকিট রয়েছে। অন্যদিকে প্রত্যক্ষদর্শী হিসাবে পর্যটকদের মধ্যে থাকা আসানসোল জেলা হাসপাতালের অতিরিক্ত সুপার কঙ্কন রায় টেলিফোনে জানিয়েছেন , প্রকৃতি ও পাহাড়ের কোলে কয়েকটা দিন কাটাবো বলে, হইহই করে রওনা দিয়েছিলাম। ভ্রমণে বেরিয়ে এমন ঘটনা ঘটে যাবে স্বপ্নেও ভাবিনি। দুর্ঘটনায় ৫ জন সঙ্গী হারিয়েছি। ৭ জন গুরুতর জখম অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছে৷

    দুর্ঘটনার কবলে থেকে বেঁচে ফেরা অপর এক পর্যটক দীপান্বিতা ঘটক জানিয়েছেন, বেটোপোগন্ধারার বাঁকে পর্যটকদের তৃতীয় গাড়িটি সামনে থাকা দ্বিতীয় গাড়িটিকে ধাক্কা মারে। তারপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায়। ঘটনার আকস্মিকতা কাটিয়ে সবাই মিলে উদ্ধার কার্যে নামি। স্থানীয়রাও সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়৷ পরে পুলিশ প্রশাসন এসে পৌঁছায়৷ জখমদের বাগেশ্বর জেলা হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এরপর রাজ্য সরকারের তত্ত্বাবধানে শনিবার শিল্পাঞ্চলের মৃত পর্যটকদের ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করা হয়৷

    বরাতজোরে প্রাণ রক্ষা পেলেও, এখনও সেই দুর্ঘটনার কথা ভুলতে পারছেন না বেঁচে ফেরা পর্যটকরা। বারবার চোখের সামনে ঘোরাফেরা করছে সেই ভয়ঙ্কর ঘটনার ছবি। ঘটনার কথা বলতে গিয়ে চোখ বেয়ে নেমে আসছে জল। নিজেরা বেঁচে ফিরতে পারলেও, পরিজনদের পাহাড়ের কোলে হারানোর ব্যথা ভুলতে পারছেন না কেউ।

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published:

    Tags: Uttrakhand

    পরবর্তী খবর