Home /News /local-18 /
East Medinipur News: তীব্র গরমে শুকিয়ে যাচ্ছে ফুলের গাছ ও ফুল, কপালে চিন্তার ভাঁজ ফুল চাষিদের

East Medinipur News: তীব্র গরমে শুকিয়ে যাচ্ছে ফুলের গাছ ও ফুল, কপালে চিন্তার ভাঁজ ফুল চাষিদের

পাঁশকুড়া

পাঁশকুড়া ব্লক প্রশাসনিক কার্যালয়

গরমের কারণে ফুল চাষের জমি শুকিয়ে যাচ্ছে। শুকিয়ে যাচ্ছে ফুলের গাছ এবং ফুল। এমনকি দীর্ঘদিন বৃষ্টি না হওয়ার কারণে ফুলের বাগানে বিভিন্ন পোকার উপদ্রবে নষ্ট হচ্ছে ফুল ও গাছ। তাই বাজারে দাম থাকলেও ফুলের বাগান থেকে ফুল পাওয়া যাচ্ছে না

আরও পড়ুন...
  • Share this:

    #পাঁশকুড়া: তীব্র গরমে শুকিয়ে যাচ্ছে ফুলের গাছ ও ফুল। মাথায় হাত চাষিদের। দক্ষিণবঙ্গ জুড়ে চলছে তাপপ্রবাহ। তীব্র গরমে নাজেহাল মানুষজন। শুকিয়ে যাচ্ছে খাল-বিল নদী-নালা, এমনকি গাছপালাও। শুকিয়ে যাচ্ছে চাষের ক্ষেত। ক্ষেতের ফসল গরমের কারণে  শুকিয়ে কাঠ। বৃষ্টির দেখা নেই প্রায় দুমাস। তীব্র গরমে নাজেহাল চাষিরা। পূর্ব মেদিনীপুর জেলা, কৃষি প্রধান জেলা। পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় ধান,পান, শাক, সবজির পাশাপাশি ফুলের চাষ হয়। এই জেলায় প্রায় তিন হাজার হেক্টর জমিতে বিভিন্ন মরশুমে ফুলের চাষ হয়। পূর্ব মেদিনীপুর জেলার এই ফুল চাষের তিন হাজার হেক্টর জমির বেশিরভাগটাই পাঁশকুড়া ব্লকের।

    পাঁশকুড়া ব্লকের চাষিরা ধান, শাক সবজি চাষের পাশাপাশি প্রচুর পরিমাণে ফুল চাষ করেন। বিভিন্ন মরশুমে বিভিন্ন ফুলের চাষ হয় পাঁশকুড়া ব্লকে। গ্রীষ্মকালে পাঁশকুড়া ব্লকে মূলত রজনীগন্ধা, গোলাপ, গাঁদা সহ বিভিন্ন ফুলের চাষ হয়। পাঁশকুড়া ব্লকের ফুল, রাজ্যের বিভিন্ন জেলা, হাওড়া, হুগলি, কলকাতা সহ দেশের বিভিন্ন রাজ্য ছাড়াও বিদেশে রফতানি করা হয়। ফলে, ফুল চাষ থেকে ভালই লাভ পান পাঁশকুড়ার ফুল চাষিরা। কিন্তু তীব্র গরম এবং বৃষ্টি না হওয়ায় চিন্তায় পড়েছে পাঁশকুড়ার ফুল চাষিরা।

    গরমের কারণে চাষিরা লাভের মুখ দেখতে পাচ্ছেন না। বাজারে ফুলের দাম ভালো থাকলেও চাষিরা সেই লাভ ঘরে তুলতে পারছেন না। গরমের কারণে ফুল চাষের জমি শুকিয়ে যাচ্ছে। শুকিয়ে যাচ্ছে ফুলের গাছ এবং ফুল। এমনকি দীর্ঘদিন বৃষ্টি না হওয়ার কারণে ফুলের বাগানে বিভিন্ন পোকার উপদ্রবে নষ্ট হচ্ছে ফুল ও গাছ। তাই বাজারে দাম থাকলেও ফুলের বাগান থেকে ফুল পাওয়া যাচ্ছে না। চাষিদের সাধের ফুলের বাগান চোখের সামনেই শুকিয়ে কাঠ হয়ে যাচ্ছে। চাতক পাখির মতোই, পাঁশকুড়ার ফুলচাষিরা এখন  রয়েছে বৃষ্টির অপেক্ষায়।

    Saikat Shee

    First published:

    Tags: East Medinipur, Farmers, Panskura

    পরবর্তী খবর