• Home
  • »
  • News
  • »
  • local-18
  • »
  • CAR SANITIZATION BESIDES AFFECTED CORONA PATIENTS HOME AT HABRA

করোনা আক্রান্তদের বাড়ি স্যানিটাইজ এর পাশাপাশি রাস্তায় দাঁড়িয়ে গাড়িতেও স্যানিটাইজ করে নজির

করোনা আক্রান্তদের বাড়ি ঘর স্যানিটাইজ এর কাজ করছে সরকার থেকে শুরু করে বিভিন্ন সংগঠন থেকে সংস্থা

করোনা আক্রান্তদের বাড়ি ঘর স্যানিটাইজ এর কাজ করছে সরকার থেকে শুরু করে বিভিন্ন সংগঠন থেকে সংস্থা

  • Share this:

    #উত্তর ২৪ পরগনা:  করোনা মহামারিতে যখন বিভিন্ন সংস্থা বিভিন্ন সংগঠন এগিয়ে এসেছে মানুষের সাহায্যে ঠিক তেমনি করোনা আক্রান্তদের বাড়ি ঘর স্যানিটাইজ এর কাজ করছে সরকার থেকে শুরু করে বিভিন্ন সংগঠন থেকে সংস্থা। কিন্তু এবার দেখা গেল ঠিক অন্য চিত্র। হাবরার এক সংগঠনের মাধ্যমে রাস্তায় দাঁড়িয়ে গাড়ি স্যানিটাইজ করতে দেখা গেল তাদের। করোনা আক্রান্তদের ঘরে ঘরে স্যানিটাইজ এর পাশাপাশি রাস্তায় দাঁড়িয়ে গাড়িতেও স্যানিটাইজ করে নজির গড়ল টুনিঘাটা পিপলস মুভমেন্ট অফ হিউম্যান রাইটস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন এর সদস্যরা। লকডাউনে যখন কাজ কর্ম হারিয়ে দিশে হারা সাধারণ মানুষ, পেটে রুটিরুজির টান পড়েছে। ঠিক সেই সময়ে পুষ্টি জাতীয় খাদ্যসামগ্রী বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিতরণ করাই শুধু নয়, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনা আক্রান্তদের ঘরে ঘরে স্যানিটাইজ করতে দেখা গেল হাবড়ার এই সংগঠনের সদস্যদের। করোনা আক্রান্তদের বাড়ি স্যানিটাইজের কথা শোনা যায়। কিন্তু করোনা আক্রান্তদের বাড়ির ভিতরে ঢুকে গোটা ঘরটাকে স্যানিটাইজ করার বিষয় ব্যতিক্রমী। শুধু তাই নয়, স্থানীয় ডাক্তার, নার্স, পুলিশ কর্মী, আশাকর্মী এবং সাংবাদিকদের একাংশ ঘরের ভিতরে স্যানিটাইজ করা চলছে এই সংস্থার নিজস্ব উদ্যোগে। কিন্তু হঠাৎ করোনা আক্রান্তের বাড়ি ছাড়া অন্যদের স্যানিটাইজ করার উদ্দ্যোগ কেন? সংস্থার সূত্রে জানা যায়, করোনা আবহে যারা সাধারণ মানুষকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পরিষেবা দিয়ে চলেছেন। কিন্তু ওনাদের ঘরে জীবাণু মুক্ত করছে কে? অনেকেই ঘরের ভিতর অল্প এসি চালিয়ে দিয়ে দেশ বিদেশের করোনা খবর দেখছেন। দিনে দুপুরে করোনার মধ্যে কখনো মাইক,কখনো বা বাজারে, অলিগলিতে টহল দিয়ে চলেছেন পুলিশ কর্মীরা। যখন অনেকেই ঘরের মধ্যে পরিবার নিয়ে আবদ্ধআছেন, আনন্দে দিন কাটাচ্ছেন তখন ডাক্তার নার্সদের শত সমস্যা থাকলেও ছুটতে হচ্ছে হাসপাতাল বা নার্সিং হোমে, রুগীকে দেখতে। সাইকেলে চেপে হোক বা পায়ে হেঁটেবাড়ি বাড়ি গরমের মধ্যে খোঁজ নিতে ছুটেছেন ওই আশা কর্মীরা। ওনাদের কথা ভাবছে কে ? তাই একটু কষ্ট হলেও ওই সংস্থা তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে একটু পাশে থাকতে, স্যানিটাইজ করে করোনাকে হারাতে ঘর জীবাণু মুক্ত করতে এগিয়ে এসেছে। এমনই বললেন সংস্থার সভাপতি সঞ্জীব কাঞ্জিলাল। এমন বিকল্প ভাবনা চিন্তা আগামীদিনে করোনার তৃতীয় ঢেউয়ে রাজ্য থেকে জেলা সমস্ত জায়গায় মানুষের সেবায় নিয়োজিত থাকবে বলে জানান সংস্থার সদস্যরা।

    রাতুল ব্যানার্জি
    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: