• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • NATIONAL NUTRITION WEEK 2021 HEALTHY EATING HABITS DURING CORONA PANDEMIC SMJ

National Nutrition Week 2021: মহামারীতে সুস্থ থাকাই শেষ কথা, কী খাবেন, কী খাবেন না, দেখে নিন

সঠিক খাদ্যাভ্যাসই কোভিডকালের এই কঠিন সময়ে আমাদের শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে পারে!

সঠিক খাদ্যাভ্যাসই কোভিডকালের এই কঠিন সময়ে আমাদের শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে পারে!

  • Share this:

    #কলকাতা: গত বছর করোনা ছড়িয়ে পড়ার সময় থেকেই বিশ্ব জুড়ে বহু মানুষ স্বাস্থ্য সম্পর্কে আগের চেয়ে অনেক বেশি সচেতন হয়েছেন। একটি স্বাস্থ্যকর রুটিনের সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদানগুলির মধ্যে একটি হল পর্যাপ্ত পুষ্টি গ্রহণ যা প্রধানত আমাদের সারা দিনের খাবার থেকে আসে। সঠিক খাদ্যাভ্যাসই কোভিডকালের এই কঠিন সময়ে আমাদের শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং এটি পুনরুদ্ধারের প্রক্রিয়ায় সাহায্য করতে পারে। একটি শক্তিশালী ইমিউন সিস্টেম গঠনের জন্য সুষম খাদ্য এবং ব্যায়াম গুরুত্বপূর্ণ।

    চলতি বছরের ন্যাশনাল নিউট্রিশন উইক (National Nutrition Week), যা কি না ১ থেকে ৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পড়ে, সেই উপলক্ষ্যে কোভিডকালে কী কী খাবার খাওয়া উচিত সেটা দেখে নেওয়া যাক। তাহলেই গড়ে উঠবে এক সুস্থ দেশ, আর কিছু না হোক, নিজেদের অন্তত সুরক্ষিত রাখা যাবে।

    তাজা ফল এবং শাকসবজি খেতে হবে

    ফল এবং শাকসবজি ভিটামিন এবং খনিজগুলির সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উৎস। প্রচুর পরিমাণে সবুজ শাকসবজি প্রতি দিনের ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করলে শরীরে আয়রনের অভাব হবে না । এছাড়া তাজা ফল এবং শাকসবজিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার যা পরিপাকতন্ত্র বা আমাদের হজমের শক্তি ভালো রাখতে এবং শক্তিশালী করতে সাহায্য করে।

    প্রোটিন-সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে

    ডাল, মাছ এবং দুধের মতো জিনিস প্রোটিনের খুব ভালো উৎস। প্রোটিন হাড় মজবুত করতে সাহায্য করে এবং আমাদের শরীরের পেশি শক্তিশালী করতেও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। উপরন্তু, দৈনন্দিন খাবারে প্রোটিন অন্তর্ভুক্ত করলে অল্প খাবারেই পেট ভরে যায়, ফলে জাঙ্ক ফুড খাওয়ার প্রবণতা অনেকটাই কমে যায়। ফলে, এমনিতেই আমাদের শরীর সুস্থ থাকে।

    বাদাম এবং বীজজাতীয় খাবার খেতে হবে

    বাদাম এবং বীজে স্বাস্থ্যকর চর্বি, ফাইবার, ভিটামিন, প্রোটিন এবং খনিজ থাকে। এদের মধ্যে যে অসম্পৃক্ত চর্বি বা আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং অন্যান্য পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে, সেগুলো হৃদরোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে।

    ভিতরে ও বাইরে আর্দ্র থাকতে হবে

    স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল পানীয় জল। জল রক্তে পুষ্টি এবং যৌগ পরিবহন করে, একই সঙ্গে শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। তাই প্রতি দিন নিয়ম করে প্রচুর পরিমাণে জল পান করতে হবে। যদি পর্যাপ্ত জল পান না সম্ভব হয়, তাহলে কিছু সাইট্রাস বা রসালো ফল, যেমন লেবু এবং কমলালেবু রস করে বা এমনি রোজ খেতে হবে। এটি শুধু আমাদের জিভে স্বাদই যোগ করবে না, পুষ্টিগুণও বাড়াবে।

    Published by:Suman Majumder
    First published: