• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • Viral: Helping Poor Students: জলপানিতে উচ্চপাঠ , আজ প্রবাসী ইঞ্জিনিয়ার নিজে দরিদ্র মেধাবীদের সমস্যার মরূদ্যান

Viral: Helping Poor Students: জলপানিতে উচ্চপাঠ , আজ প্রবাসী ইঞ্জিনিয়ার নিজে দরিদ্র মেধাবীদের সমস্যার মরূদ্যান

কীর্তি জয়াদেবান (Keerthi Jayadevan ), ছবি-টুইটার

কীর্তি জয়াদেবান (Keerthi Jayadevan ), ছবি-টুইটার

Viral: Helping Poor Students:জার্মানিতে কর্মরত কীর্তিও এখন অন্যের জীবনে হয়ে উঠতে চান ‘অজ্ঞাতপরিচয় সুহৃদ’৷ তাঁর পোস্ট এখন ভাইরাল নেট মাধ্যমে৷

  • Share this:

    নয়াদিল্লি : কীর্তি জয়াদেবান (Keerthi Jayadevan ) কলেজের পাঠ শেষ করতে পেরেছিলেন কোনও এক অজ্ঞাতপরিচয় সহৃদয়ের জন্য৷ জার্মানিতে কর্মরত কীর্তিও এখন অন্যের জীবনে হয়ে উঠতে চান ‘অজ্ঞাতপরিচয় সুহৃদ’৷ তাঁর পোস্ট এখন ভাইরাল নেট মাধ্যমে৷

    ট্যুইটারে তিনি জানিয়েছেন অতীত সংগ্রামের কথা৷ বলেছেন, তাঁদের চার জনের সংসারে সর্বসাকুল্যে প্রতি মাসে উপার্জন ছিল ১৪ হাজার টাকা৷ কোনও এক অজ্ঞাতপরিচয় তাঁর দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন৷ তাঁর সৌজন্য ও সাহায্যেই কলেজের উচ্চপাঠ শেষ করেছিলেন তিনি৷

    আরও পড়ুন : হৃদয়চিহ্ন পেটে, মাথায় ৪ কান, নেটমাধ্যমে জনপ্রিয় বিড়ালছানা অবশেষে পেল তার নিজের বাড়ি

    এখন তিনিও সাহায্য করেন দরিদ্র অথচ মেধাবী পড়ুয়াদের৷ তিনি শেয়ার করেছেন একটি আন্তর্জাতিক চ্যারিটেবল ট্রাস্টের পাঠানো চিঠি৷ সংস্থার পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানানো হয়েছে কীর্তিকে৷ তাঁর অবদানের জন্য৷

    আরও পড়ুন : হিমাঙ্কের নীচে থাকা গ্রামে পথের পাশে অমূল্য সম্পদ! ঠাকুমা-নাতনির আনন্দ ছুঁয়ে গেল নেটিজেনদেরও

    দরিদ্র অথচ মেধাবী পড়ুয়াদের পড়াশোনার ক্ষেত্রে স্কলারশিপ বা জলপানির রূপে অর্থসাহায্য করে থাকে এই সংস্থা৷ তাদের কর্মকাণ্ডের শরিক কীর্তিও৷ এই উদ্যোগে সামিল হওয়ার জন্য তাঁকে ধন্যবাদ জানিয়েছে সংস্থাটি৷ ট্যুইটারে কীর্তির পোস্টে ‘লাইক’ এসেছে ২০ হাজারের বেশি৷ কয়েকশো নেটিজেন তাঁকে কুর্নিশ জানিয়েছেন৷

    আরও পড়ুন : কৃষিকাজ বন্ধ করিয়ে বনবিড়ালের ‘ওভারটাইম’! এক এক করে ছানাদের নিয়ে গেল বনের গভীরে

    বর্তমানে ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কীর্তি কর্মরত বার্লিনে৷ এর আগে তিনি অনগ্রসর পরিবারের মেধাবী পড়ুয়াদের ল্যাপটপ দেওয়ার জন্য স্কলারশিপ ঘোষণা করেছিলেন৷ ‘‘শিক্ষার মাধ্যমে কারও জীবন উন্নত করা এমনই একটি বিষয়, যেটির আমরা যত্ন করি৷ কিন্তু অনলাইন সব প্রচেষ্টাই অর্থহীন, যখন অধিকাংশ যোগ্য ছাত্রছাত্রীর বাড়িতে ল্যাপটপ বা ইন্টারনেটের ন্যূনতম সুবিধেটুকুও নেই৷’’ জুলাইয়ে নিজের স্বপ্নের প্রজেক্টের কথা ঘোষণা করে এই কথাগুলোই লিখেছিলেন তিনি৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: