পুজোর আগে এক্কেবারে ঘরোয়া উপায়ে পুরনো কাঠের ফার্নিচারে দিন নতুনের চমক--

পুজোর আগে এক্কেবারে ঘরোয়া উপায়ে পুরনো কাঠের ফার্নিচারে দিন নতুনের চমক--

দরজায় কড়া নাড়ছে পুজো! এইবেলা বাড়ির কাঠের ফার্নিচারগুলো ঝকঝকে তকতকে করে তুলুন! সহজ ঘরোয়া উপায়ে পুরনো আসবাবকে দিন এক্কেবারে নতুন লুক--

  • Share this:

#কলকাতা: দরজায় টোকা নাড়ছে পুজো! এইবেলা বাড়ির কাঠের ফার্নিচারগুলো ঝকঝকে তকতকে করে তুলুন! সহজ ঘরোয়া উপায়ে পুরনো আসবাবকে দিন এক্কেবারে নতুন লুক--

এবছর দেরীতে বর্ষা এসেছে! কাজেই শরৎকালেও বৃষ্টির ঘনঘটা! আর কাঠের যম জল! কাঠের দেওয়াল থেকে আর্দ্রতা টানার প্রবণতা থাকে। তাই দেওয়াল থেকে কম করে ছয় ইঞ্চি দূরে কাঠের আসবাব পত্র রাখুন। বৃষ্টির ভয়ে ভুলেও সারাদিন ঘর বন্ধ রাখবেন না! তা হলে আদ্রতে বাইরে বেরতে পারবে না! বৃষ্টি পড়া বন্ধ হলে জানলা খুলে দিন! এতে ঘরে আলো বাতাস প্রবেশ করবে এবং ঘর আদ্রতা মুক্ত থাকবে।

কর্পুর বা ন্যাপথেলিন আদ্রতা শুষে নেয়। কাজেই ফার্নিচারের কোণে কর্পুর বা ন্যাপথেলিন দিয়ে রাখুন। শুধু মাত্র আদ্রতে শোষন নয়, কর্পুর, ন্যাপথেলিন পোকামাকড়ের হাত থেকেও আসবাব পত্রকে বাঁচায়। তবে বাড়িতে ছোট বাচ্চা থাকলে ন্যাপথেলিন ব্যবহার করবেন না! ন্যাপথেলিন বিষাক্ত! সেক্ষেত্রে নিমপাতা বা বড় এলাচ ব্যবহার করুন।

আসবাব পরিষ্কার করতে ভেজা কাপড় ব্যবহার করবেন না। শুকনো ও পরিষ্কার কাপড় দিয়ে কাঠের আসবাব মুছতে হবে। কাঠের আসবাব ভালো রাখতে বছরে দু-একবার বার্নিশ বা ল্যাকোয়ার-এর পালিশ করান। এতে কাঠের ছিদ্র বন্ধ হয়, আসবাব অনেকদিন পর্যন্ত এক্কেবারে নতুনের মতো থাকে, কাঠ ফুলেও ওঠে না!

First published: 04:04:55 PM Sep 27, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर