Home /News /life-style /
Excessive Yawning : সারাদিন অনবরত হাই ওঠে? এই মারণ রোগগুলি শরীরে গোপনে বাসা বাঁধেনি তো?

Excessive Yawning : সারাদিন অনবরত হাই ওঠে? এই মারণ রোগগুলি শরীরে গোপনে বাসা বাঁধেনি তো?

সারাদিন অনবরত হাই ওঠে? এই মারণ রোগগুলি শরীরে গোপনে বাসা বাঁধেনি তো?

সারাদিন অনবরত হাই ওঠে? এই মারণ রোগগুলি শরীরে গোপনে বাসা বাঁধেনি তো?

Excessive Yawning :মাত্রাতিরিক্ত হাই উঠলে সাবধান হওয়া প্রয়োজন। এর পিছনে থাকতে পারে বেশ কয়েকটি কারণ।

  • Share this:

    #কলকাতা: হাই তোলার মধ্য়ে কোনও অস্বাভিকতা নেই। ঘুম পেলে বা খুব ক্লান্তি বোধ হলে হাই ওঠেই। কিন্তু আপনার কি প্রায়ই হাই উঠছে? মাত্রাতিরিক্ত হাই উঠলে সাবধান হওয়া প্রয়োজন। এর পিছনে থাকতে পারে বেশ কয়েকটি কারণ। দেখে নেওয়া যাক হাই তোলার পিছনে কী কী কারণ থাকতে পারে-

    ১) প্রচণ্ড ক্লান্তিবোধ বা ঘুমঘুম ভাবের জন্য হাই ওঠা স্বাভাবিক ব্যাপার।

    ২) ঘুমের ব্যাঘাত ঘটলে এই ধরনের সমস্যা হতে পারে। যেমন স্লিপ অ্যাপনিয়ায় যারা আক্রান্ত তাদের অধিক পরিমাণে হাই তোলার প্রবণতা থাকে।

    ৩) কিছু ওষুধ থাকে যেগুলির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে ক্লান্তি বোধ হয়। এর ফলে বেশি হাই উঠতে থাকে। বিশেষ করে অবসাদ, উদ্বেগ এই ধরনের সমস্যার ওষুধ খেলে হাই বেশি ওঠে।

    তবে এই সাধারণ সমস্যা গুলি ছাড়াও বেশ কিছু বিপজ্জনক রোগ লুকিয়ে থাকে এর পিছনে। দেখে নেওয়া যাক অনবরত হাই তোলার পিছনে কী কী মারণ রোগের ইঙ্গিত থাকতে পারে।

    ১) ব্রেন টিউমরের একটি উপসর্গ হতে পারে হাই তোলা। সারা দিন যদি ভাল ঘুম হওয়ার পরেও হাই তুললে অবশ্যই সাবধান হোন।

    ২) হার্ট অ্যাটাক অনেক সময়ে নিঃশব্দেও হয়। হঠাৎ হাই উঠতে থাকলে সতর্ক হোন। হার্ট অ্যাটাকেরও লক্ষণ হতে পারে।

    আরও পড়ুন- একটি চামচ মুখে রাখুন! গন্ধ আর রং বলে দেবে কোন রোগ শরীরে বাসা বেঁধেছে

    ৩) মৃগীরোগের অন্যতম লক্ষণ হাই তোলা। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

    ৪) স্ক্লেরোসিস হলেও অনবরত হাই তোলার প্রবণতা থাকে।

    ৫) লিভার ফেলিয়োর মানেই প্রাণ সংশয়। কিন্তু জানেন কি সারা দিনে অনবরত হাই তোলা লিভার ফেলিয়োরের লক্ষণ হতে পারে।

    ৬) শরীরের তাপমাত্রা যখন অনিয়ন্ত্রিত থাকে তখনওএই ধরনের সমস্যা হতে পারে।

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published:

    Tags: Yawning

    পরবর্তী খবর