Home /News /life-style /
Dehydration: আপনার শরীরে প্রয়োজনীয় জলের অভাব আছে? বলে দেবে এই লক্ষণগুলিই!

Dehydration: আপনার শরীরে প্রয়োজনীয় জলের অভাব আছে? বলে দেবে এই লক্ষণগুলিই!

শরীরে জলের অভাব?

শরীরে জলের অভাব?

Dehydration: যদি এই লক্ষণগুলি চিনতে পারি, তবে সেগুলি দেখে আমরা বুঝতে পারি যে এখন শরীরে জলের অভাব মারাত্মক পর্যায়ে পৌঁছেছে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: আমাদের শরীরের বেশির ভাগই জল দিয়ে তৈরি। বিজ্ঞানীদের মতে, মানবদেহের সত্তর শতাংশেরও বেশি জল। তাই জলকে জীবন বলা হয়। শরীরে জলের অভাব অনেক সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে। যাই হোক, যখন জলের অভাব হয়, তখন আমাদের শরীর আমাদের সতর্ক করে। আমরা যদি এই লক্ষণগুলি চিনতে পারি, তবে সেগুলি দেখে আমরা বুঝতে পারি যে এখন শরীরে জলের অভাব মারাত্মক পর্যায়ে পৌঁছেছে।

শীতকালে অনেকেই জল কম পান করেন। তাঁরা মনে করেন, তৃষ্ণার অভাবে শরীরে জলের প্রয়োজন হয় না। তবে এমন নয় যে শুধু গ্রীষ্মকালে বা তেষ্টা পেলেই শরীরের জলের প্রয়োজন হয়। যেহেতু আমাদের শরীরের অভ্যন্তরে সংঘটিত সমস্ত জৈব-রাসায়নিক প্রক্রিয়ায় জল একটি মাধ্যম হিসাবে কাজ করে, তাই এর অভাবে সমগ্র জীবন-প্রক্রিয়া ব্যাহত হয়। জল শুধু শরীরে আর্দ্রতা বজায় রাখে না, পরিপাকতন্ত্র ও শ্বাসতন্ত্রকে সুসংগঠিত রাখতেও এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আরও পড়ন: করোনা-কালে এই প্রথম, ৩ ফেব্রুয়ারি নিয়ে জরুরি নির্দেশ গেল নবান্ন থেকে! প্রস্তুতি শুরু...

জলের ঘাটতি দেখা দিলেই শরীর সঙ্কেত দিতে শুরু করে। জেনে নেওয়া যাক কী কী উপসর্গ দ্বারা বোঝা যায় যে শরীরে জলের অভাব হচ্ছে।

শরীরে ডিহাইড্রেশনের লক্ষণ

শুষ্ক ত্বক

শরীরে জলের অভাবে ত্বক শুষ্ক হতে থাকে এবং ঠোঁট ফেটে যায়। ত্বক হঠাৎ করে শুষ্ক ও রুক্ষ বোধ করতে শুরু করলে এবং ফুসকুড়ি ও চুলকানির সমস্যাও দেখা দিলে বুঝতে হবে শরীরে জলের অভাব রয়েছে।

প্রস্রাবের সমস্যা

যদি প্রস্রাবের রঙ ঘন বা হলুদ হয়ে যায়, তাহলে বুঝতে হবে শরীরে জলের অভাব রয়েছে। এছাড়া জলশূন্যতার ক্ষেত্রে প্রস্রাবের পরিমাণ কমে যায় এবং এতে জ্বালাপোড়ার সমস্যা হতে পারে।

আরও পড়ন: কলকাতায় আসছিল একটি কন্টেনার, হঠাৎ গায়েব মাঝপথে! ভিতরে কী ছিল জানেন?

মুখে দুর্গন্ধ

শরীরে জল কম থাকায় মুখে ও গলায় শুষ্কতা আসে, যার কারণে শ্বাসকষ্টের পাশাপাশি দুর্গন্ধও হয়। কারণ জলের অভাবে মুখে পর্যাপ্ত পরিমাণে লালা উৎপন্ন হয় না। যা নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধের জন্য দায়ী ব্যাকটেরিয়া নিয়ন্ত্রণে কাজ করে।

তৃষ্ণা বৃদ্ধি

ডিহাইড্রেশন অবস্থায়, জল পান করা সত্ত্বেও, বারবার তৃষ্ণা অনুভব হয়। কারণ শরীরে জল জমে না। এ থেকে মুক্তি পেতে সাধারণ জল পানের পরিবর্তে লেবু-জল বা ইলেকট্রল দ্রবণযুক্ত জল পান করতে হবে। এর পাশাপাশি ডিহাইড্রেশনের সমস্যায় খিদেও বেশি অনুভূত হয়।

মাথাব্যথা এবং ক্লান্তি

শরীরে জলের অভাব হলে রক্তের মোট আয়তন অর্থাৎ টোটাল ভলিউম কমে যায়। যার কারণে নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা দেখা দিতে পারে। এর ফলে নার্ভাসনেস বা মাথাব্যথাও হতে পারে। এছাড়া জলের অভাবে একজন ব্যক্তি সারাক্ষণ অলসতা ও ক্লান্তি অনুভব করেন। কারণ জলের অভাব মেটাবলিজমেও প্রভাব ফেলে।

হৃদয়ের উপর প্রভাব

জলেরঅভাবে শরীরে রক্তের পরিমাণও কমে যায়, তাই সমস্ত অঙ্গে পর্যাপ্ত রক্ত পাম্প করতে হার্টকে আরও বেশি পরিশ্রম করতে হয়। যার কারণে তার উপর চাপ পড়ে এবং তাকে অতিরিক্ত বোঝা বহন করতে হয়। এই কারণে, একজন ব্যক্তি হার্ট ভারীভাব অনুভব করতে পারেন এবং তাঁর হৃদস্পন্দন এবং শ্বাস-প্রশ্বাসের হার বৃদ্ধি পায়।

First published:

Tags: Dehydration, Health Tips

পরবর্তী খবর