• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • Skin Care: ত্বক পরিচর্যায় কাজ করে মন্ত্রের মত, কীভাবে ব্যবহার করবেন ভিটামিন E ক্যাপসুল?

Skin Care: ত্বক পরিচর্যায় কাজ করে মন্ত্রের মত, কীভাবে ব্যবহার করবেন ভিটামিন E ক্যাপসুল?

Skin Care:  ভিটামিন E তেল বিভিন্নভাবে আমাদের শরীরের উপকারে লাগে।

Skin Care: ভিটামিন E তেল বিভিন্নভাবে আমাদের শরীরের উপকারে লাগে।

Skin Care: ভিটামিন E তেল বিভিন্নভাবে আমাদের শরীরের উপকারে লাগে।

  • Share this:
    #কলকাতা: ইভিওন (Evion) vecs পরিচিত ভিটামিন E ক্যাপসুলের বহুবিধ স্বাস্থ্যের উপকারিতা রয়েছে। মাথা থেকে শুরু করে পায়ের পাতা পর্যন্ত আমাদের শরীরের বিভিন্ন অংশে এই ভিটামিনের তেল ব্যবহার যায়। ভিটামিন E তেল বিভিন্নভাবে আমাদের শরীরের উপকারে লাগে। তাই এখানে সর্বাধিক উপকারিতা কাজে লাগিয়ে কী ভাবে ভিটামিন E ক্যাপসুল ব্যবহার করা যায় সেই বিষয়ে কয়েকটি উপায় জানানো হচ্ছে। নখ বৃদ্ধি আমাদের হাত সারা দিন রান্না হোক বা বাসন মাজা বা কাপড় কাচা বা বাগান করার কাজে ব্যবহৃত হয়। আর হাত দিয়ে করা প্রতিটি কাজের প্রভাব আমাদের নখের উপর এসে পড়ে। তাই নখের গঠন ঠিক মতো না হলে ধীরে ধীরে নখগুলি ভঙ্গুর ও হলদেটে হতে শুরু করে। আর এই সমস্যা সমাধানেই প্রয়োজন ভিটামিন E ক্যাপসুল। যার জন্য শুধু ভিটামিন E তেল নখে, কিউটিকলে এবং নখের চারদিকের ত্বকে ধীরে ধীরে মালিশ করতে হবে। এক্ষেত্রে ঘুমাতে যাওয়ার আগে নখে মাসাজ করলেই ভালো কারণ তাতে সারা রাত নখ ঠিক মতো ময়েশ্চারাইজড থাকবে৷ রাতের ক্রিম ভিটামিন E ক্যাপসুলে ময়েশ্চারাইজিং উপাদান থাকায় এটি খুব ভালো রাতের ক্রিম হিসাবে কাজ করে। ফেস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধোয়ার পরে রোজকার নাইট ক্রিমের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা ভিটামিন E তেল মিশিয়ে লাগালে কয়েক দিনের মধ্যে ত্বকের জেল্লা নজরে আসবে। আসলে এই তেলটি সিরামের মতো কাজ করে এবং সারা রাত ধরে মুখে পর্যাপ্ত ময়েশ্চারাইজারের জোগান দেয়। তবে শুতে যাওয়ার অন্তত ৩০ মিনিট আগে এটি মুখে লাগানো উচিত, নচেৎ বিছানার চাদর কিংবা বালিশে মুখের অতিরিক্ত তেল শুষে যাবে। চুল বৃদ্ধি ভিটামিন E-র একাধিক উপকারিতার জন্য এটি চুলের পক্ষে খুবই ভালো। আমাদের রোজজার হেয়ার অয়েলের সঙ্গে ভিটামিন E তেল মিশিয়ে ভালো করে মাথায় মাসাজ করতে হবে। এর পর ২-৩ ঘন্টা রেখে শ্যাম্পু করলেই চুলের স্বাস্থ্যের উন্নতি হবে৷ সপ্তাহে দু'দিন এই হেয়ার অয়েল মাসাজ করাই যায়। ২-৩ বার ব্যবহার করার পরই পার্থক্য নজরে আসবে। অ্যান্টিরিঙ্কল ক্রিম ত্বকে বলিরেখা এবং রিঙ্কলের ছাপ থাকলে ভিটামিন E তেল অ্যান্টিএজিং ক্রিম হিসাবে ব্যবহার করা যায়। কারণ ভিটামিন E অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টে ভরপুর এবং রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। ভিটামিন E তেল মাসাজ করলে শুধু ত্বকের গঠনের উন্নতি হবে না, একই সঙ্গে ত্বক আরও সুন্দর ও উজ্জ্বল হয়ে ওঠে। রোদে পোড়াভাব প্রতিরোধ ত্বক যদি সংবেদনশীল হয় এবং রোদে পোড়ার প্রবণতা থাকে, তাহলে ভিটামিন E তেল অনেকটাই স্বস্তি দেবে। ভিটামিন E তেলের ময়েশ্চারাইজিং ক্ষমতা থাকায় এটি শুষ্ক ত্বকেও ভালো কাজ করে। যদি রোদে ত্বক পুড়ে যায় বা চুলকায়, তাহলে ভিটামিন E তেলকে কুলিং ক্রিমের সঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করলে উপকার পাওয়া যাবে। যদিও এক্ষেত্রে রোদে বের হওয়ার আগে সব সময় সানস্ক্রিন লাগানোই ভালো হবে৷
    First published: