• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • WILL TRIPURA STATE BJP TAKE ACTION AGAINST MUKUL ROY LOYALIST SUDIP ROY BARMAN SPECULATION IS ON AKD

Sudip Roy Barman VS Biplab Deb: এবার কি মুকুল ঘনিষ্ঠ সুদীপ শিবিরের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা? ত্রিপুরায় চরম জল্পনা

ত্রিপুরায় মহানাটক। বিজেপি কি ব্যবস্থা নেবে সুদীপ রায় বর্মনের বিরুদ্ধে?

ত্রিপুরার বিক্ষুব্ধ বিধায়ক সুদীপ রায়বর্মনের ( (Sudip Roy Barman) বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডার দ্বারস্থ হতে চলেছে ত্রিপুরার রাজ্য বিজেপি, ত্রিপুরার স্থানীয় দৈনিক প্রচার এমনই।

  • Share this:

    #আগরতলা: মুখ্যমন্ত্রীর ডাকা বৈঠকে আসেননি। পদে পদে বুঝিয়ে দিচ্ছেন বিপ্লব দেবের উপর তাঁর এতটুকুও আস্থা নেই। এবার মুকুল ঘনিষ্ঠ ত্রিপুরার বিক্ষুব্ধ বিধায়ক সুদীপ রায়বর্মনের (Sudip Roy Barman) বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডার দ্বারস্থ হতে চলেছে ত্রিপুরার রাজ্য বিজেপি, ত্রিপুরার স্থানীয় দৈনিকে প্রচার এমনই। এক দৈনিকে দাবি করা হয়েছে,  বিজেপির প্রদেশ কার্যালয় থেকে রবিবারের মধ্যেই জে পি নাড্ডার কাছে রাজ্য বিজেপির সুপারিশ পৌঁছে যেতে পারে। শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে সুদীপ ব্রিগেডের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য অনুরোধ করা হবে এই সুপারিশে।

    ঘটনার সূত্রপাত শুক্রবার বিকেলে। ওই দিন বিকেল চারটে পঞ্চাশ মিনিট নাগাদ পূর্বনির্ধারিত পরিষদীয় দলের বৈঠক ডাকা হয়। প্রায় দুই ঘণ্টার বৈঠক  ৩৬ জন বিধায়কের মধ্যে গরহাজির ছিলেন ১০ জন। আসেননি সুদীপ রায় বর্মন এবং তাঁর শিবিরের অনেকেই। রাজনৈতিক মহলের জল্পনা ক্ষোভ বিক্ষোভের আবহে  এই বৈঠক ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব  ডেকেছিলেন আসলে শক্তি বুঝে নিতে। এই বৈঠকে কী ভাবে উন্নয়নমুখী কাজের প্রচার আরও বাড়ানো যায় এই নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। সুদীপ শিবিরের অনেকেই এই বৈঠক এড়িয়ে গিয়েছেন।  পাশাপাশি শোনা যাচ্ছে, অসম সফরে গিয়ে অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মার কাছে সুদীপ নিজের বিপ্লব বিরোধী মনোভাব ব্যাখ্যা করেছেন। তিনি দিল্লিও ঘুরে এসেছেন সম্প্রতি।

    শুক্রবারের বৈঠকে যে ২৬ জন এসেছিলেন তাদের নিয়েও যথেষ্ট জল্পনা রয়েছে। ত্রিপুরার নানা দৈনিকে চর্চা এই বৈঠকের আগে-পরে নাকি জনাকয়েক বিধায়ক যীষ্ণু দেববর্মাকে মুখ্যমন্ত্রী করার দাবি নিয়েও কিছুক্ষণ আলোচনা করেন। যদিও এ খবরের সত্যতা যাচাই করা যায়নি। তবে একথা পরিষ্কার, সুদীপ শিবির এটাই চাইছে।

    রাজনৈতিক মহল বলছে, সুদীপ চাইছেন বিপ্লব শিবিরকে চাপে রাখতে। এই কারণেই খোলাখুলি পদক্ষেপ নিচ্ছেন তিনি। পর্যবেক্ষকরা বলছেন, এ ভাবে সুদীপ শিবির ধীরে ধীরে দলে ঘুণ ধরালে বিজেপির সংকট আসন্ন। সুদীপ যদি দলবল নিয়ে বিজেপি থেকে বেরিয়ে যান তাহলে ত্রিপুরা সরকারও ভেঙে যেতে পারে। এ ব্যাপারে সচেতন রাজ্য বিজেপি এবার চাইছে সুদীপ এবং তাঁর অনুগামীদের বিরুদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে ব্যবস্থা নেওয়া হোক কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের তৎপরতাতেই। সব মিলিয়ে তাই জমজমাট ত্রিপুরার গেরুয়া শিবিরের অন্দরের টানাপোড়েন।

    Published by:Arka Deb
    First published: