corona virus btn
corona virus btn
Loading

মিষ্টির দোকানেই সোশ্যাল ডিসটেন্সিং-এর ব্যবস্থা!তবে বিক্রি নিয়ে ধন্দে বিক্রেতারা

মিষ্টির দোকানেই সোশ্যাল ডিসটেন্সিং-এর ব্যবস্থা!তবে বিক্রি নিয়ে ধন্দে বিক্রেতারা
Socail Distancing in Balaram Mullick sweet shop

স্যানিটাইজার থাকছে তো বটেই সঙ্গে কতটা দূরে দূরে দাঁড়িয়ে মিষ্টি কিনতে পারবেন ক্রেতারা, সেই জাগয়াও চিহ্নিত করা হয়েছে৷

  • Share this:

#কলকাতা: লকডাউনে খোলা যাবে মিষ্টির দোকান৷ নির্দিষ্ট সময় (বেলা ১২ থেকে বিকেল ৪) মেনেই খোলা হবে মিষ্টির দোকানগুলি৷ এমনই জানানো হয়েছে সরকারের তরফে৷ সেই কথা মেনে খুলছে কিছু দোকান৷ কিন্তু অনেক মিষ্টির ব্যবসায়ী আবার দোকান খোলা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন৷ লকডাউনে মিষ্টির দোকান বন্ধ থাকায় ভীষণভাবে মার খেয়েছিল দুধের ব্যবসা৷ বিক্রি না হওয়ায় গ্যালন গ্যালন দুধ ফেলে দিতে হয়েছিল বিক্রেতাকে৷ সেই কথা মাথায় রেখেই এবার লকডাউনে মিষ্টির দোকান খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার৷ তবে এই নিয়ে দু’রকম মত উঠে আসছে মিষ্টি ব্যবসায়ীদের থেকে৷

রাধারমণ মল্লিক ও বলরাম মল্লিকের কর্ণধার সুদীপ মল্লিক প্রস্তুত৷ তিনি জানিয়েছেন যে আপাতত তাদের তিনটি ব্রাঞ্চ খোলা হবে৷ ভবানীপুর, লেক গার্ডেন্স এবং কসবায় তিনটি দোকান খুলবেন তারা ৷ সেখানে নির্দিষ্ট কিছু মিষ্টিই পাওয়া যাবে৷ সঙ্গে পাওয়া যাবে ছানা, পনির৷ সাধারণ মানুষের কথা মাথায় রেখেই তাদের এই সিদ্ধান্ত৷ সুদীপের কথায় 'অনেকে মাছ, মাংস খান না৷ তাদের জন্য পনির খাওয়া খুবই জরুরি৷ তাই আমাদের দোকানে এই প্রোডাক্টগুলি থাকবে'৷ করোনা মোকাবিলায় নিজের দোকানে সব রকম ব্যবস্থাও করে ফেলেছেন তিনি৷ স্যানিটাইজার থাকছে তো বটেই সঙ্গে কতটা দূরে দূরে দাঁড়িয়ে মিষ্টি কিনতে পারবেন ক্রেতারা, সেই জাগয়াও চিহ্নিত করা হয়েছে৷ বিক্রি করার জন্য দোকানে লোকও থাকবে হাতে গোনা৷ এর সঙ্গে অনলাইনে অর্ডার করা যাবে বলে স্পষ্ট করেছেন সুদীপ মল্লিক৷ তবে তাঁর আশঙ্কা সময় বেঁধে দেওয়ার ফলে ভিড় বাড়তে পারে৷

অন্যদিকে ভীম চন্দ্র নাগের পক্ষ থেকে প্রদীপ নাগ দোকান খোলার ব্যাপারে সংশয় প্রকাশ করেছেন৷ তিনি বলছেন যে করোনার আতঙ্কে কারিগরেরা সবাই নিজের বাড়ি চলে গিয়েছেন৷ আপাতত তাদের ফিরে আসাও মুশকিল৷ সময় বেঁধে দেওয়া নিয়েও তিনি ধন্দ্বে৷ কারণ এই কম সময় কতটাই বা বিক্রি হবে, প্রশ্ন তুলেছেন তিনি৷ তিনি আরও জানান যে রাস্তার ওপরে তাদের দোকান হওয়াতে বহু মানুষ গাড়িতে এসে মিষ্টি কিনে নিয়ে যান৷ ক্রেতারা সেভাবে আসতে পারেন না ভেবেই আপাতত বৌবাজের ভীম নাগের দোকন বন্ধই রাখার সিদ্ধান্ত নিওয়া হয়েছে৷ যদিও তাদের সংগঠন এই ব্যাপারে কী সিদ্ধান্ত নেন তার অপেক্ষায় প্রদীপবাবু৷

First published: March 31, 2020, 12:18 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर