• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • SWATI GHOSH BECOME THE FIRST INDIAN WOMAN TO JUDGE IN AN INTERNATIONAL ART FESTIVAL AT SOUTH KOREA SS

Swati Ghosh: ফের বাংলার মুখ উজ্জ্বল করলেন স্বাতী, আন্তর্জাতিক আর্ট ফেস্টিভ্যালে বিচারকের ভূমিকায় বঙ্গতনয়া

Swati Ghosh

Bengali Artist Swati Ghosh: এ বছর ফের একবার দক্ষিণ কোরিয়ায় যাওয়ার আমন্ত্রণ পেলেন স্বাতী ৷ সে দেশে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক আর্ট ফেস্টিভ্যালে বিচারকের ভূমিকায় দেখা যাবে এই বাঙালি কন্যাকে।

  • Share this:

    কলকাতা: করোনার জেরে গত বছর থেকে শুরু হওয়া লকডাউনে অনেক মানুষের জীবনে অনেক কিছুরই বদল ঘটেছে ৷ তবে সবার ক্ষেত্রে লকডাউন পর্বটা ততটাও খারাপ যায়নি ৷ বঙ্গতনয়া স্বাতী ঘোষের (Swati Ghosh) কাহিনীও অনেকটা তেমনই ৷ স্বামী মার্চেন্ট নেভি অফিসারের চাকরি ছেড়ে দক্ষিণ কোরিয়ায় জাহাজ তৈরির সংস্থায় যোগ দেওয়ায় ছেলেকে সঙ্গী করে স্বাতীও একসময়ে পৌঁছে গিয়েছিলেন কোরিয়ার ইঞ্চিওনে ৷ তখনও করোনার দাপট শুরু হয়নি ৷ কিন্তু অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই ছবিটা সম্পূর্ণ বদলে যায় ৷ লকডাউনের জেরে ধীরে ধীরে বন্ধ হতে থাকে দেশে ফেরার উড়ান ৷ চরম দুশ্চিন্তা এবং উৎকন্ঠার মধ্যেই দিন কাটছিল ৷ হঠাৎই স্বাতী একদিন জানতে পারেন, দক্ষিণ কোরিয়া সরকার একটি আন্তর্জাতিক অঙ্কণ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে ৷ শিল্পী স্বাতী বসে পড়েন কাগজ-পেন্সিল নিয়ে ৷ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রায় ৬০০ জন শিল্পীর আঁকা ছবিগুলির মধ্যে সেরার সেরা শিরোপা ছিনিয়ে নেয় স্বাতীর আঁকা ছবিটিই ৷ যা জায়গা পায় দক্ষিণ কোরিয়ার সরকারি মিউজিয়ামে ৷ এ বছর ফের একবার দক্ষিণ কোরিয়ায় যাওয়ার আমন্ত্রণ পেলেন স্বাতী ৷ সে দেশে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক আর্ট ফেস্টিভ্যালে বিচারকের ভূমিকায় এবার দেখা যাবে এই বাঙালি কন্যাকে।

    Photo Courtesy: Swati Ghosh/Facebook Profile Photo Courtesy: Swati Ghosh/Facebook Profile

    দক্ষিণ কোরিয়ার জিওজে শহরে ইন্টারন্যাশনাল কালচার অ্যান্ড আর্ট ফেডারেশন ও ‌‌ইন্টারন্যাশনাল কাউন্সিল অফ মিউজিয়ামের যৌথ উদ্যোগে চলবে এই প্রদর্শনী। সেই মঞ্চে ভারত থেকে প্রথম মহিলা বিচারক হিসাবে জায়গা করে নিলেন স্বাতী। আরও একবার বাংলার মুখ উজ্জ্বল করলেন এই বঙ্গতনয়া ৷ এবার আরও বড় দায়িত্বে স্বাতী৷ একাধিক বিভাগে অংশগ্রহণকারীদের পুরস্কৃত করার জন্য বিভিন্ন দেশের শিল্পীদের নিয়ে ১৪ জনের একটি বিচারকমণ্ডলী থাকবে। যার অন্যতম সদস্য হিসাবে তাঁকে মনোনীত করা হয়েছে। ইন্টারন্যাশনাল কালচারাল অ্যান্ড আর্ট ফেডারেশন (ICAF)-এর এই প্রদর্শনীতে ইতিমধ্যেই বিশ্বের ৬০টি দেশ থেকে প্রায় ২৬০-এরও বেশি শিল্পীর কাজ এসে পৌঁছেছে। তাঁদের শিল্পকলা প্রদর্শিত হবে এ বছর সেপ্টেম্বরে। গত সাত বছর ধরে এই আন্তর্জাতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আসছে এই সংস্থা ৷ যেখানে বিভিন্ন ধরনের সাংস্কৃতিক এবং শিল্প কলার প্রদর্শনী হয়ে থাকে ৷ স্বাতীর কথায় তাঁদের পরিবারের আধ্যাত্মিক গুরু যোগীরাজ শক্তিকিঙ্কর লাহা রায় তাঁর সকল অনুপ্রেণার উৎস ৷ পাশাপাশি বাবা পার্থ সারথী রায় চৌধুরি, মা পর্ণা রায় চৌধুরী এবং স্বামী প্রসেনজিৎ ঘোষের কাছ থেকেও বরাবরই তাঁর কাজের জন্য উৎসাহ এবং সাহায্য পেয়েছেন তিনি ৷ স্বামীর সঙ্গে কর্মসূত্রে নরওয়েতে থাকলেও বর্তমানে কলকাতায় ফিরেছেন স্বাতী ৷ এরপরই আইসিএএফ-এর ডাকে ফের দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন তিনি ৷

    Published by:Siddhartha Sarkar
    First published: