করোনা আবহে পুজোয় এবার অভিনব ব্যবস্থা নিল সুরুচি সঙ্ঘ...

করোনা আবহে পুজোয় এবার অভিনব ব্যবস্থা নিল সুরুচি সঙ্ঘ...
এবার উৎসব নয়, হোক মানুষের পুজো.....সুরুচির এই মাস্ক এবার দেওয়া হয়েছে ক্লাবের সদস্যদের। সাত রঙা এই মাস্কের বাহার এবার নজর কেড়েছে শহরের নামজাদা পুজো সুরুচি সঙঘতে।

এবার উৎসব নয়, হোক মানুষের পুজো.....সুরুচির এই মাস্ক এবার দেওয়া হয়েছে ক্লাবের সদস্যদের। সাত রঙা এই মাস্কের বাহার এবার নজর কেড়েছে শহরের নামজাদা পুজো সুরুচি সঙঘতে।

  • Share this:

#কলকাতা: করোনা আবহে পুজোয় এবার অভিনব ব্যবস্থা নিল নিউ আলিপুর সুরুচি সঙ্ঘ। ক্লাবের সদস্যদের পরিচয়ের জন্যে এবার থাকছে থ্রি লেয়ার মাস্ক। এবার উৎসব নয়, হোক মানুষের পুজো.....সুরুচির এই মাস্ক এবার দেওয়া হয়েছে ক্লাবের সদস্যদের। সাত রঙা এই মাস্কের বাহার এবার নজর কেড়েছে শহরের নামজাদা পুজো সুরুচি সঙঘতে। গোলাপি, হালকা ও গাঢ় সবুজ বেগুনি, নীল, ধূসর ও হলুদ রঙের মাস্ক বা মুখাবরণ বানানো হয়েছে।

উদ্যোক্তারা জানাচ্ছেন, আই সি এম আর'এর গাইডলাইন মেনে এই মাস্ক বানানো হয়েছে। সমস্ত মাস্ক হয়েছে কটনের৷ এমনভাবে মুখের অংশ ঢাকা থাকবে যাতে কানে ব্যথা লাগবে না। এমনকি সারাক্ষণ মুখে পড়ে থাকলেও কোনও ধরণের অসুবিধা হবে না। মাস্ক বানানোর সময় এই সব বিষয়গুলি খেয়াল রাখা হয়েছে। এই পুজোর অন্যতম উদ্যোক্তা হলেন মন্ত্রী অরুপ বিশ্বাস। তিনি জানিয়েছেন, "গত সাত আট মাস ধরে মুখ্যমন্ত্রী বারবার বলেছেন মাস্ক ব্যবহার করুন। নাক, মুখ ঢেকে বেরোন। আমরাও পুজোর মঞ্চ থেকে সেই বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করেছি।" উদ্যোক্তাদের তরফ থেকে মাস্ক যেমন সদস্যদের দেওয়া হয়েছে, ঠিক তেমনি ভাবেই যারা মন্ডপ ও প্রতিমা দর্শন করতে আসবেন তাদের জন্যেও থাকছে সুরুচি লেখা মাস্ক।

ক্লাবের উদ্যোক্তা কিংশুক মিত্র জানাচ্ছেন, "সদস্যদের জন্যে প্রায় ১০০০০ হাজার মাস্ক বানানো হয়েছে। দর্শনার্থীদের জন্যে থাকছে ১২০০০ মাস্ক।"সুরুচির মন্ডপ প্রাঙ্গণে পৌছলেই দেখা যাবে প্রত্যেকের কাছেই রয়েছে বাহারি এই মুখাবরণ। এছাড়া নজরে রাখা হচ্ছে যাতে কেউ প্রতিমা দর্শন করতে না পারেন মাস্ক ছাড়া। কোভিড প্রটোকল মেনে ইতিমধ্যেই  একাধিক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে সুরুচি। মন্ডপে ঢোকার মুখে থাকছে একাধিক স্যানিটাইজার টাব। গায়ের তাপমাত্রা মেপে ভেতরে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া স্কাউটের হয়ে যারা কাজ করছেন তাদের দেওয়া হচ্ছে ফেস শিল্ড, গ্লাভস। মন্ডপের মধ্যে কোভিড প্রটোকল মেনে দাঁড়িয়ে থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে।


Published by:Pooja Basu
First published:

লেটেস্ট খবর