হোম /খবর /কলকাতা /
নৌকার ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ, রীতি মেনেই হবে শোভাবাজার রাজবাড়ির প্রতিমা নিরঞ্জন

নৌকার ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ, রীতি ও ঐতিহ্য মেনেই হবে শোভাবাজার রাজবাড়ির প্রতিমা নিরঞ্জন

শোভাবাজার রাজবাড়ির বড় তরফের পুজোর সূচনা করেন রাজা নবকৃষ্ণ দেব

শোভাবাজার রাজবাড়ির বড় তরফের পুজোর সূচনা করেন রাজা নবকৃষ্ণ দেব

Sovabazar Rajbari : শোভাবাজার রাজবাড়ির এই বিশেষ বিসর্জন পর্ব দেখতে ভিড় করেন দেশ বিদেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ

  • Last Updated :
  • Share this:

কলকাতা : করোনা সংক্রমণের জেরে শোভাবাজার রাজবাড়ির বড় তরফের দুর্গা পুজোর ভাসানে ছেদ পড়েছিল ঐতিহ্যের। এ বার আবার পুরনো চেহারায় দেখা মিলবে প্রতিমা নিরঞ্জনের। ১৭৫৭ সালে শোভাবাজার রাজবাড়ির বড় তরফের পুজোর সূচনা করেন রাজা নবকৃষ্ণ দেব। তখন থেকেই ভাসানের বেশ কিছু নিয়ম প্রচলিত আছে এই বাড়িতে। শোভাবাজার রাজবাড়ির প্রতিমা কাঁধে করে প্রায় ৪০ জন নিয়ে যান বিসর্জনের ঘাট পর্যন্ত। সেখান থেকে দুই বিশেষ নৌকার মাঝে বসানো হয় প্রতিমা। তারপর মাঝ গঙ্গায় ধীরে ধীরে দু পাশে সরানো হয় দুই নৌকাকে। ঠাকুর বিসর্জন হয়ে যায়।

শোভাবাজার রাজবাড়ির এই বিশেষ বিসর্জন পর্ব দেখতে ভিড় করেন দেশ বিদেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ। গতবার কোভিড রীতি মেনে কাঁধে করে ঠাকুর নিয়ে যাওয়া ও ভাসানের নৌকা না মেলায় ঐতিহ্য মেনে ভাসান হবে কি না তা নিয়ে প্রবল সংশয় তৈরি হয়েছিল। শোভাবাজার রাজবাড়ির পুজো হয় শাস্ত্র মেনে। ফলে এখানে পুজো উপাচারে পান থেকে চুন খসে না। কোভিড পরিস্থিতিতে বেশ কিছু নিয়ম কানুন বদল হলেও পুজোর উপাচারে কোনও বাধা আসেনি বলেই বড় তরফের দাবি।

আরও পড়ুন : রাবড়ি না আইসক্রিম সন্দেশ নাকি বাহারি স্বাদের রসগোল্লা! বিজয়া দশমীতে কোন মিষ্টিতে মজবে বাঙালি রসনা 

শোভাবাজার রাজবাড়ির এস্টেটের অন্যতম সদস্য তাপস বসু। তিনি সেবাইতও বটে। তিনি জানাচ্ছেন, " এই বাড়ির পুজোয় ঠাকুর ভাসানে নৌকার ভূমিকা থাকে। শোভাবাজার ঘাট থেকে দুটি নৌকার মাঝে বসানো হয় প্রতিমা। বাড়ির সদস্যরা, সেবাইতরা প্রত্যেকেই ভাগাভাগি করে থাকেন দুই নৌকায়। প্রতিমা বাঁধা হয় একাধিক বাঁশ এবং কাছি বা দড়ির সাহায্যে। মাঝ গঙ্গায় নৌকা নিয়ে যাওয়ার পরে, ধীরে ধীরে সরানো হয় বাঁশগুলি। তার পরে প্রতিমা রাখা থাকে দড়ির ওপরে৷ আস্তে আস্তে সেটা ছাড়া হয়। তাতেই প্রতিমা দুই নৌকার মাঝে নদীতে পড়ে বিসর্জন হয়ে যায়।"

আরও পড়ুন :  অতিথির পাতে এই বিজয়ায় তুলে দিন বাড়িতে তৈরি সন্দেশ

এভাবেই বছরের পর বছর ধরে নিরঞ্জন হয়ে আসছে। এস্টেটের অন্যতম সদস্য দেবরাজ মিত্র জানাচ্ছেন, " এ বার নৌকা মিলেছে, নিয়মানুযায়ী যাঁদের ঠাকুর যায় কাঁধে চড়ে, সেই ৪০ জন বিশেষ ব্যক্তি, তাঁরা একে অপরের কাঁধে হাত দিয়ে বিশেষ ব্যবস্থা করে। তার ওপর বসানো হয় ঠাকুর। সেটি যায় ভাসানের ঘাট পর্যন্ত।"

দেশ বিদেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ কলকাতার পুজোয় আসেন শোভাবাজার রাজবাড়ির পুজো দেখতে। তার মধ্যে অন্যতম আকর্ষণ হল এই ভাসান।

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published:

Tags: Durga Puja 2022, Sovabazar rajbari