• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • প্রয়াত বাগান সমর্থক সৌম্যকে ডার্বি জয় উৎসর্গ করলেন সনি নর্ডি

প্রয়াত বাগান সমর্থক সৌম্যকে ডার্বি জয় উৎসর্গ করলেন সনি নর্ডি

 ডার্বির পরে ফেসবুকে একটা পোস্ট করে সমর্থকদের আরও নয়নের মণি হয়ে উঠলেন মোহনবাগানের হাইতিয়ান স্ট্রাইকার সনি নর্ডি৷

ডার্বির পরে ফেসবুকে একটা পোস্ট করে সমর্থকদের আরও নয়নের মণি হয়ে উঠলেন মোহনবাগানের হাইতিয়ান স্ট্রাইকার সনি নর্ডি৷

ডার্বির পরে ফেসবুকে একটা পোস্ট করে সমর্থকদের আরও নয়নের মণি হয়ে উঠলেন মোহনবাগানের হাইতিয়ান স্ট্রাইকার সনি নর্ডি৷

  • Share this:

    #কলকাতা: ফ্রি-কিক থেকে অসাধারণ গোল করেই শুধু নয়, ডার্বির পরে ফেসবুকে একটা পোস্ট করে সমর্থকদের আরও নয়নের মণি হয়ে উঠলেন মোহনবাগানের হাইতিয়ান স্ট্রাইকার সনি নর্ডি৷রবিবাসরীয় ডার্বি জয়টা তিনি পুরোপুরি উৎসর্গ করলেন প্রয়াত বাগান সমর্থক সৌম্য মুখোপাধ্যায়কে ৷ এবছরই ডার্বি দেখে ফেরার সময় পথ দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান ২১ বছরের এই ‘ডাই-হার্ড’ মোহনবাগান ফ্যান ৷

    প্রিয় দলের খেলা ৷ তাও আবার ডার্বি ! কলকাতা বা বারাসতে সে ম্যাচ নাই বা হল ৷ ক্লাবকে সমর্থন তো মাঠে গিয়ে করাটা মাস্ট ৷ ডার্বির ক’দিন আগে থেকেই তাই একটু একটু করে মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গল সমর্থকরা পৌঁছতে শুরু করেন শিলিগুড়ি ৷ অন্যান্য মোহনবাগান সমর্থকদের মতো সৌম্যও সেবার মিস করতে চাননি ডার্বি ৷ কিন্তু ম্যাচ দেখতে গিয়েই যে তাঁর সঙ্গে এমন মর্মান্তিক ঘটনা ঘটবে, সেটা কারোর পক্ষেই আন্দাজ করাটা হয়তো সম্ভব ছিল না ৷ দুর্ঘটনায় অকালেই তাই প্রাণ হারাতে হয়েছে দক্ষিণেশ্বরের ছেলেকে ৷ শিলিগুড়ি থেকে ম্যাচ দেখে ফেরার সময় বরাহনগর স্টেশনে ট্রেন থেকে নামার সময় পা পিছলে পড়ে যান তিনি ৷ বেসামাল হয়ে প্লাটফর্মে পড়ে থাকা আলুর বস্তায় বাধা পেয়ে ফের ট্রেনের গায়ে সজোরে ধাক্কা খান এবং প্ল্যাটফর্ম থেকে লাইনের উপর ছিটকে পড়েন। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে আরজি কর হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও শেষ পর্যন্ত তাঁকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি ৷

    দেখতে দেখতে এবছরের ফিরতি ডার্বিও  শেষ ৷ সনিদের ডার্বি জয় হয়তো নিজের চোখে দেখে যাওয়া সৌম্যর পক্ষে সম্ভব হয় নি ৷ কিন্তু ম্যাচ জিতে উঠেই দলের প্রয়াত তরুণ সমর্থককে জয় উৎসর্গ করতে ভোলেননি বাগানের হাইতিয়ান স্ট্রাইকার ৷ সনির এই ফেসবুক পোস্টকে কুর্নিশ জানিয়েছেন প্রত্যেক ফুটবল সমর্থকরাই ৷ সৌম্যর মতো এক একজন সমর্থকদের জন্যই যে তাঁরা ফুটবলটা খেলেন, সেটা আরও একবার প্রমাণ করলেন সনি ৷

    First published: