• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • SOME CANDIATES ARE NOT INTEREST IN TAKING THE PRIMARY TEACHERS JOB SWD

শিক্ষক নিয়োগের চাকরি নিতে অনীহা, ১৯০০ জন চাকরিই নিলেন না! কিন্তু কেন, প্রশ্ন উঠছে

কমিশন সূত্রে খবর ইন্টারভিউ প্রক্রিয়াতে ১৫৪৩৬ জনকে ডাকা হয়েছিল। তার মধ্যে ইন্টারভিউ নেওয়ার সংখ্যাটা ১৩ হাজারেও পৌঁছতে পারেনি।

কমিশন সূত্রে খবর ইন্টারভিউ প্রক্রিয়াতে ১৫৪৩৬ জনকে ডাকা হয়েছিল। তার মধ্যে ইন্টারভিউ নেওয়ার সংখ্যাটা ১৩ হাজারেও পৌঁছতে পারেনি।

  • Share this:

#কলকাতা: রাজ্যে অনেকেই শিক্ষক নিয়োগের চাকরি নিতে চাইছে না। অন্তত স্কুল সার্ভিস কমিশনের পরিসংখ্যান তেমনটাই বলছে। দীর্ঘদিন ধরেই আইনি জটিলতায় আটকে রয়েছে স্কুল সার্ভিস কমিশনের উচ্চ প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া। হাইকোর্টের নির্দেশে স্কুল সার্ভিস কমিশন উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগ প্রক্রিয়ার জন্য ফের ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া নেয়। কমিশন সূত্রে খবর ইন্টারভিউ প্রক্রিয়াতে ১৫৪৩৬ জনকে ডাকা হয়েছিল। তার মধ্যে ইন্টারভিউ নেওয়ার সংখ্যাটা ১৩ হাজারেও পৌঁছতে পারেনি।

এদের মধ্যে কয়েক হাজার প্রার্থী অনুপস্থিত থেকেছে ইন্টারভিউ প্রক্রিয়াতে। আবার অনেকের প্রয়োজনীয় তথ্য না থাকার জন্য ইন্টারভিউ বোর্ডেই বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। যা নিয়ে রীতিমতো সরগরম উচ্চপ্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া। কমিশনের আধিকারিকদের মতে যদি নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ হয় তাহলে একাধিক পদ শূন্য থেকে যাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে আইনি জটিলতায় আটকে রয়েছে উচ্চ প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া। এবার তার জেরেই উচ্চ প্রাথমিকে শিক্ষক এর চাকরি নিতে চাইছে না একাধিক চাকরিপ্রার্থী। কমিশন সূত্রে খবর ১৯০০জন চাকরিপ্রার্থী ইন্টারভিউ তে অনুপস্থিত থেকেছে। কিন্তু এত সংখ্যক চাকরিপ্রার্থী কেন অনুপস্থিত? কমিশনের আধিকারিকদের ব্যাখ্যা, এদের মধ্যে বেশিরভাগই কেউ অধ্যাপক, নবম-দশম, একাদশ-দ্বাদশ স্তরে শিক্ষকের চাকরি পেয়ে গিয়েছেন। আবার কেউ কেউ ডব্লিউবিসিএস এর চাকরি পেয়ে চলে গিয়েছেন। তার জন্যই এত সংখ্যক চাকরিপ্রার্থী অনুপস্থিত থেকে গেছে বলেই মনে করা হচ্ছে।

আবার দীর্ঘদিন ধরে অপেক্ষা না করে অনেকেই বাইরে চলে গিয়েছেন চাকরি নিয়ে। একদিকে যখন এত সংখ্যক চাকরিপ্রার্থী অনুপস্থিত, অন্যদিকে আবার ইন্টারভিউ তালিকাতে নম্বর বাড়ানোর অভিযোগ উঠেছিল। কমিশন সূত্রে খবর ইন্টারভিউ টেবিলে চাকরিপ্রার্থীরা প্রয়োজনীয় তথ্য না দিতে পারার জন্য ৬০০জন চাকরিপ্রার্থীর ইন্টারভিউ প্রক্রিয়ায় বাতিল করে দেওয়া হয়। বাতিল করে দেওয়া চাকরি প্রার্থীদের মধ্যে থেকে অনেকেই সঠিক তথ্য দেখাতে পারেননি। আবার অনেকেই প্রয়োজনীয় নথি যে আপলোড করেছিলেন তার সঙ্গে কমিশনের কাছে পাওয়া তথ্যের অনেক গরমিল ছিল। তার জন্যই এত সংখ্যক প্রার্থী ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া থেকে বাতিল করে দেওয়া হয়েছে বলেই কমিশন সূত্রে খবর।

কমিশনের আধিকারিকদের মতে উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ হলে একাধিক পদ শূন্য থেকে যেতে পারে। তার কারণ একদিকে যেখানে চাকরিপ্রার্থীদের অনুপস্থিতি, অন্যদিকে এত সংখ্যক প্রার্থীর ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া থেকে বাতিল হওয়া। অন্যদিকে হাইকোর্টের নির্দেশে ইতিমধ্যেই অভিযোগের নিষ্পত্তি করার প্রক্রিয়া শুরু করছে কমিশন। মঙ্গলবার থেকে শুরু হচ্ছে অভিযোগের নিষ্পত্তি করার প্রক্রিয়া। কমিশন সূত্রে খবর ৪০ দিন চলবে এই অভিযোগের নিষ্পত্তি করার প্রক্রিয়া পর্ব। সে ক্ষেত্রে পুজোর আগে যাবতীয় প্রক্রিয়া শেষ করতে চায় কমিশন।

সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: